প্রচ্ছদ রাজনীতি বিএনপি

কাফনের কাপড় পরে নির্বাচনী মাঠে বিএনপি প্রার্থী

28
কাফনের কাপড় পরে নির্বাচনী মাঠে বিএনপি প্রার্থী
পড়া যাবে: 2 মিনিটে

বরিশাল: সময় যতই ঘনিয়ে আসছে বরিশালের বাকেরগঞ্জ উপজেলার কলসকাঠী ইউনিয়ন পরিষদ উপ-নির্বাচনের মাঠ ততই উত্তপ্ত হয়ে উঠছে। গতকাল শনিবার আওয়ামী লীগ ও বিএনপি সমর্থিত দুই চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থকদের মাঝে সংঘর্ষে উভয় দলের কার্যালয় ভাঙচুর ও আহত হওয়ার মধ্যদিয়ে ভোটের দিনের পরিস্থিতি নিয়ে উৎকণ্ঠিত ইউনিয়নের সাধারণ ভোটাররা।

কেবল চেয়ারম্যান পদে ভোটগ্রহণের কারণে উভয় দলের কর্মী-সমর্থকরা সরাসরি চেয়ারম্যান প্রার্থীর গণসংযোগসহ অন্যান্য কর্মকাণ্ড নিয়ে সারাক্ষণ ব্যস্ত। উভয় প্রার্থীর কর্মী-সমর্থকদের মোটরসাইকেল মহড়ায় বিগত দিনগুলোতে নির্বাচনের মাঠ কিছুটা ঠাণ্ডা থাকলেও শেষ মুহূর্তে এসে উত্তাপ ছড়িয়ে যায়। তবে বাকেরগঞ্জ উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা (ইউএনও) এবং থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নিশ্চিত করেছেন- সুষ্ঠু পরিবেশে ২০ অক্টোবর ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। তারা বলছেন, ভোট কেন্দ্রে যেকোনো অপ্রীতিকর ঘটনা প্রতিরোধে সব ধরনের প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে।

এদিকে, শনিবার সন্ধ্যায় দলীয় কার্যালয়ে হামলা চালিয়ে ভাঙচুর এবং ছেলে ও ভাতিজাকে কুপিয়ে আহত করার পর রোববার কাফনের কাপড় পরে নির্বাচনী অফিসে অবস্থান নিয়েছেন বিএনপি মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী শওকত হোসেন হাওলাদার। আজ সকাল ৮টা থেকে বিকেল সাড়ে ৫টা পর্যন্ত (প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত) তিনি একাই নির্বাচনী কার্যালয়ে অবস্থান করেছেন। আগামী মঙ্গলবার উপ-নির্বাচনের দিন পর্যন্ত তিনি তার এই অবস্থান কার্যক্রম চালিয়ে যাবেন বলে সাংবাদিকদের জানিয়েছেন।

আরও পড়ুন:  ‘ব্যর্থ বিএনপি’র নেতাদের আগে পদত্যাগ করা উচিত: কাদের

 শওকত হোসেন হাওলাদার অভিযোগ করেন, বিএনপির নির্বাচনী অফিসে শনিবার হামলা ও ভাঙচুর চালিয়ে ওই রাতেই আওয়ামী লীগ প্রার্থী ফয়সাল ওয়াহিদ মুন্না তালুকদারের লোকজন নিজেরাই আওয়ামী লীগ অফিসও ভাঙচুর করে। এরপর তা বিএনপির নেতাকর্মীদের ওপর দোষ চাপিয়ে শতাধিক নেতাকর্মীর নামে থানায় অভিযোগ দেওয়া হলে গ্রেপ্তার ও হামলা আতঙ্কে তারা এখন এলাকা ছাড়া।  তাই তিনি রোববার একাই নির্বাচনী কার্যালয়ে আসেন।

বিএনপির এই প্রার্থী বলেন, শনিবার সন্ধ্যায় বাকেরগঞ্জ পৌর মেয়র ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক লোকমান হোসেন ডাকুয়ার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা কলসকাঠী ইউপি উপ-নির্বাচনে বিএনপি মনোনীত প্রার্থীর প্রধান নির্বাচনী কার্যালয়ে হামলা-ভাঙচুর চালান। হামলায় বিএনপি-যুবদলের পাঁচজন নেতাকর্মী গুরুতর আহত হন। আহতরা হলেন-বিএনপির প্রার্থী শওকত হোসেন হাওলাদারের ছেলে কামাল হাওলাদার (৪৪), ভাতিজা সাইফুল ইসলাম (২৮), রাজা হাওলাদার (২৫), আরিফ তালুকদার (২২) ও সোহাগ (৩২)।

অপরদিকে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী ফয়সাল ওয়াহিদ মুন্না এই অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, ‘শনিবার বিএনপির লোকজন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ অফিস ভাঙচুর করেছে। এ সময় বিএনপি প্রার্থীর লোকজন বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রীর ছবিও ভাঙচুর করেছে।’

স্থানীয় সূত্র জানিয়েছে, উপ-নির্বাচনকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষ এবং বিএনপি নেতাকর্মীদের এলাকা ছাড়া এবং বিএনপি প্রার্থীর কাফনের কাপড় পড়ে অবস্থান করার ঘটনায় এলাকায় থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। ভোটগ্রহণের দিন রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের আশঙ্কা করছেন সাধারণ ভোটাররা।

আরও পড়ুন:  গলাবাজির রাজনীতি করছে বিএনপি : ওবায়দুল কাদের

এদিকে শনিবার রাতের সংঘর্ষের ঘটনায় রোববার সকাল থেকে সেখানে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। উদ্ভুত পরিস্থিতিতে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (বাকেরগঞ্জ সার্কেল) সুদীপ্ত সরকার রোববার ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

বাকেরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল কালাম বলেন, ‘শনিবার আওয়ামী লীগ অফিসে ভাঙচুরের ঘটনায় লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। নির্বাচনের মাঠ শান্ত রাখার জন্য পুলিশসহ আইন শৃঙ্খলাবাহিনীর সব ধরনের প্রস্তুতি সম্পন্ন।’

বরিশাল জেলা সিনিয়র নির্বাচন অফিসার মোহাম্মাদ নূরুল আলম বলেন, ‘দুই চেয়ারম্যান প্রার্থী তাদের নির্বাচনী অফিস ভাঙচুরের অভিযোগ দিয়েছে। আমরা তদন্তপূর্বক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবো। নির্বাচনে সকল ধরনের অনিয়ম ও বিশৃঙ্খলা পরিস্থিতি এড়ানোর জন্য এবং ভোটাররা যাতে নির্বিঘ্নে ভোটপ্রয়োগ করতে পারে তার সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে।’
নিউজটি পড়া হয়েছে 27 বার

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

সাম্প্রতিক খবর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে Bangla Magazine সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান নিউজ ম্যাগাজিন অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।

  • 6
    Shares