প্রচ্ছদ এডিটরস পিক

বাজারে নিত্য পণ্যের অসহনীয় মূল্য বৃদ্ধিতে ভোক্তাদের করনীয় – সম্পাদকীয়

11
বাজারে নিত্য পণ্যের অসহনীয় মূল্য বৃদ্ধিতে ভোক্তাদের করনীয় – সম্পাদকীয়
পড়া যাবে: 3 মিনিটে

সম্পাদকীয়

যে সকল নিত্য পণ্যের দাম প্রতিনিয়ত বেড়েই চলেছে যেমন:- চাল, পেঁয়াজ, আলু, কাঁচামরিচ, মাছ, দেশী মুরগী, গরুর মাংস, এ সকল পণ্য ন্যূনতম এক সপ্তাহ ০৭ (সাত) দিন না কিনে ভোক্তাগণ যদি একটু কষ্ট করে চলে বা খাদ্যাভাসে কিছুটা পরিবর্তন আনে তবে মনে হয় বাজারের এই তেজীভাব ভবিষ্যতে কিছুটা হলেও নিম্নমূখী হবে। আমরা দেখেছি কতিপয় অসাধু ব্যবসায়ী পিয়াজ সংরক্ষণ করেছিল যা পরবর্তীতে চারা অর্থাৎ গাছ গজিয়ে ১০০ টাকা থেকে এখন ৪০ টাকায়ও বিক্রি হচ্ছে না। ঠিক এভাবে ০৭ (সাত) দিন আমরা যদি আলু কেনা বন্ধ করে দেই, দেখা যাবে তাতেও আলুর চোখ গুলোতে চারা গজাবে, ফলে আলু খেতে মিস্টি লাগবে, শক্ত হয়ে যাবে, যার চাহিদা পূর্বের চেয়ে অনেক কমে যাবে। সেরূপ কাঁচামরিচও বেশী দিন গাছে থাকলে পেকে যাবে, গাছ থেকে ছাড়ানো থাকলে পঁচে যাবে, তাই অন্তত:- ০৭ (সাত) দিন যদি আমরা ভোক্তাগণ এই নিয়ম মেনে চলি তবে নিত্য প্রণ্যের উর্ধ্বগতি অবশ্যই নিম্নমূখী হবে বলে আমরা মনে করি। তদরূপ মাছ-মাংস-মুরগী যাই হোক না কেন সিন্ডিকেট করে যখন যেই পণ্যের দাম বাড়ানো হবে ঠিক তখন ঐ পণ্য ০৭ (সাত) দিনের জন্য সীমিত আকারে ক্রয় বা সম্পূর্ণ বর্জন করলে অবশ্যই সুফল পাওয়া যাবে।

মনে রাখতে হবে কালোবাজারী মজুদদাররা যদি এক হয়ে জনগনের স্বার্থ বিরোধী তথা রাষ্ট্র বিরোধী কাজ করে জনগনের উচিৎ সরকারের পাশাপাশি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করা। সরকার কখনোই জনগনের বাইরের কেউ নয়। সরকারের মূল উপাদান হচ্ছে জনগণ তাই আমাদের সকলেরই উচিৎ স্ব-স্ব অবস্থানে থেকে সজাগ দৃষ্টি রাখা। আমাদের কাছে কেউ যদি ১২টি কলা ১২০ টাকা চায় আমাদের উচিৎ হবে প্রকৃত মূল্য দিয়ে কেনা যদি না হয় আমরা ০৭ (সাত) দিন ঐ পণ্য কেনা থেকে বিরত থাকা। এভাবে আমরা সাধারণ ভোক্তারা যদি সচেতন হই তবে সামান্য পরিমাণে হলেও সকলেই উপকৃত হবো বলো আমি মনে করি। আমরা ক্রেতা/ভোক্তাগণ যখন দেখি যে কোন পণ্যের দাম একটু বেশী আমরা অস্থির হয়ে ঐ পণ্য প্রয়োজনাতিরিক্ত কিনতে শুরু করি। এ ক্ষেত্রে সরকারের বিভিন্ন প্রচার- প্রচারনা থাকলেও আমরা কেউই তা মানছিনা। ফলে বাজারে অস্থির ভাব পরিলক্ষিত হয়। সুযোগটি গ্রহন করে এক শ্রেণীর কালোবাজারী, আড়ৎদার/মজুৎদাররা, আর আমরা দোষারোপ করি সরকারের নজরদারী নেই। কেউ কি কোন দিন এমন করেছেন যে, যে কোন পণ্যের দাম বেশী হলে তা না কেনা বা অল্প করে কেনা? করেননি। তাই বলছি আমরা নিজেরাই কিন্তু পারি কাউকে দোষারোপ না করে কালোবাজারী মজুদদারদের ঠেকাতে। জনগন/সাধারণ ভোক্তাগন চাইলে যে কোন বিষয়ই দ্রুত সমাধান করা সম্ভব। এতে সরকার তথা ভোক্তা অধিকার আইন করে কিছুই হবেনা কেননা আমরা ভোক্তারাই যখন বেহুস তখন আইন করে কি সমাধান করা যাবে? দেশে তো অনেক আইনই প্রচলিত রয়েছে, আমরা কোন আইনটিই পালন করছি বা মানছি। শুধু শুধু সরকারকে দোষারোপ করে কি লাভ। পুলিশ দিয়ে জোর করে আইন মানানো কতটুকু সম্ভবপর। আমরা যদি নিজেরাই আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল না হই, শুধু নতুন নতুন আইন করাই যাবে কিন্তু ফলাফল হবে মাত্র হীন শূন্য।

আরও পড়ুন:  নজরুলের সৃষ্টি সংরক্ষণ রাষ্ট্রের দায়িত্ব

একটি কথা না বললেই নয়, কোন পণ্যের দাম তখনই বৃদ্ধি পাবার কথা যখন চাহিদার তুলনায় তার সরবরাহ কম থাকে, কিন্তু প্রশ্ন হলো, বাজারে আগাম শীত-কালিন শাক-সবজিসহ, মাছ, মাংস, মুরগী, চাল, ডাল কোন কিছুরই কমতি নেই, প্রচুর সরবরাহ রয়েছে যা দাম হাকা হচ্ছে আমরা তাই দিচ্ছি। কখনোকি সকল ভোক্তা মিলেপ্রতিবাদ করেছি, যে কেন বেশী দাম চাওয়া হচ্ছে? কখনোকি না কিনে আমরা প্রতিবাদ জানিয়েছি? তাই আসুন যে পণ্যের দাম বেশী চাইবে ০৭ (সাত) দিন- মাত্র ০৭ (সাত) দিন সেই পণ্য কেনা থেকে বিরত থাকি, আশা করি সুফল অবশ্যই পাওয়া যাবে। আরেকটি কথা না বললেই নয়, মিডিয়ার কারনেও অনেক সময় পণ্যের দাম উর্ধ্বমূখী হতে দেখা যাচ্ছে।

আরও পড়ুন:  ‘সামরিকতন্ত্র নয়, গণতন্ত্রেই মুক্তি’

যেমন একটি পণ্য আগাম সীম কোন বাজারে ১৫০টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে কিন্তু কোন কোন মিডিয়াতে সরাসরি দেখানো হচ্ছে হাতিরপুল বাজারে ১৯০-২১০ টাকা প্রতি কেজি। সাথে সাথেই সকল বিক্রেতা সচেতন- দাম হাকাচ্ছে আগাম সীম প্রতি কেজি ২১০ টাকা, এবার আপনারাই বলুন দোষ কি ঐ বিক্রেতার? বাজারে ভিন্নতায় প্রতি কেজি পণ্যের দামের তারতম্য কত হতে পারে? কত হওয়া উচিৎ? একজন বিক্রেতা প্রতি কেজি নিত্য পণ্যের উপর কত টাকা লাভ করবে বা করা উচিৎ? এ বিষয়গুলো বিবেচনায় রেখে আমরা যদি কেনা কাটা করি তাহলে ভোক্তা অধিকার আইন বা কমিটি বা সরকারের কোন তদারকী প্রয়োজন হবে বলে মনে হয় না। তাই যেখানে যে পণ্যের দাম আপনার মনে হবে অস্বাভাবিক অন্ততঃ ০৭ (সাত), মাত্র ০৭ (সাত) দিন সেই পণ্য কেনা থেকে বিরত থাকুন। নিশ্চয়ই আশানুরূপ ফল পাওয়া যাবে। তাছাড়া প্রতিটি কাঁচা বাজারে মূল্য তালিকা দেয়া আছে আপনি তার বাইরে বা বেশী মূল্যে কখনোই কোন প্রকার পণ্য কেনা থেকে বিরত থাকবেন।

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

সাম্প্রতিক খবর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে Bangla Magazine সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান নিউজ ম্যাগাজিন অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।