প্রচ্ছদ শিক্ষাঙ্গন আহসানউল্লাহ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষিকা’র যৌ’ন মি’লনে’র ভি’ডিও ভাইরাল!

আহসানউল্লাহ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষিকা’র যৌ’ন মি’লনে’র ভি’ডিও ভাইরাল!

778
পড়া যাবে: 3 মিনিটে
advertisement

আহসানুল্লাহ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালেয়ের দুইজন শিক্ষকের প’র্ন ভি’ডিও এবং ছবি নিয়ে তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে শিক্ষক-শিক্ষার্থীসহ বিভিন্ন মহলে। বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের কাছে লিখিত অভিযোগ দেয়া হলেও কোনও ব্যবস্থা নেয়নি অদ্যাবধি। প’র্ন ভিডিওর বিষয়ে রাজধানীর শেরেবাংলা নগর থানায় সাধারণ ডায়েরিও করা হয়েছে। এদিকে, অ’নৈতি’ক কাজে লি’প্ত দুই শিক্ষককে ব’রখাস্ত অথবা বহিষ্কার না করায় বিশ্ববিদ্যালয়টির বর্তমান ও সাবেক শিক্ষার্থী এবং শিক্ষক-কর্মকর্তাদের মধ্যে চাপা ক্ষোভ বিরাজ করছে।

advertisement

অনুসন্ধানে জানা যায়, ভিসির কাছে সি’ডিতে প’র্ন ভি’ডিওর ক’পিসহ লিখিত অভিযোগ দেয়া হয়েছিল। কিন্তু তদন্ত করে শা’স্তিমূলক ব্যবস্থা না নিয়ে অভিযুক্ত দুই শিক্ষকের আবেদনের প্রেক্ষিতে একমাস করে ছুটি দেয়া হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজনেস স্ট্যাডিজ বিভাগের এই দুই শিক্ষকের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ তদন্ত করারও কোনও উদ্যোগ নেয়নি কর্তৃপক্ষ। এদিকে, শেরেবাংলা নগর থানায় সাধারণ ডায়েরি ক’রেছেন প’র্ন তৈ’রিতে অভিযুক্ত নারী শিক্ষকের স্বামী।

ওই নারী শিক্ষকের পাঁচ বছরের একটি সন্তান রয়েছে। ডায়েরিতে তিনি উল্লেখ করেন, গত সেপ্টেম্বর মাসে তার বাসার গেটে একটি সাদা খাম দেখতে পান। খাম খুলে দেখা যায় একটি সিডি। সিডি চালিয়ে দেখেন তার শিক্ষক স্ত্রী অপর এক পুরুষ লোকে সঙ্গে শা’রীরি’ক স’ম্পর্কে লি’প্ত। পরে খোঁজ নিয়ে জানতে পারেন পুরুষ ওই লোকটি আহসানুল্লাহ বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজনেস স্ট্যাডিজ বিভাগের সহকারী অধ্যাপক।

জানতে চাইলে ভারপ্রাপ্ত ভিসি ড. কাজী শরিফুল আলম বলেন, ‘প’র্ন ভি’ডিওটি আমাদের হাতেও এসেছে। বিষয়টি তাদের ব্যক্তিগত এবং তদন্ত ছাড়া কিছু বলা যাচ্ছে না।’ ভিডিওর ভিত্তিতে নৈ’তিক স্খ’লনের প্রশ্ন তুলে শিক্ষকদ্বয়কে ব’হিষ্কার করার কোনও উদ্যোগ আছে কি-না জানতে চাইলে ভারপ্রাপ্ত ভিসি বলেন, ‘অ’নৈতকতা’র প্রশ্ন আসে না। বিষয়টি তাদের ব্যক্তিগত। একপক্ষ অভিযোগ করেছে মাত্র। নৈ’তিক-অ’নৈতিক কীভাবে বলি?’

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

সর্বশেষ আপডেট

  • 499
    Shares
advertisement