প্রচ্ছদ দৈনিক খবর

সৌদি যুবরাজের বিমান ব্যবহার করে হত্যা করা হয় খাশোগিকে

5
পড়া যাবে: 2 মিনিটে

নির্বাসনে থাকা সৌদি সাংবাদিক ও যুক্তরাষ্ট্রের ওয়াশিংটন পোস্টের নিবন্ধক জামাল খাশোগির হত্যার সাথে জড়িত ঘাতক দল রিয়াদ-ইস্তাম্বুল যাতায়াতে যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের নিয়ন্ত্রণাধীন এক প্রাইভেট বিমান কোম্পানির মালিকানার জেট ব্যবহার করেছিল। বুধবার যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম সিএনএন এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানায়।

কানাডায় নির্বাসনে থাকা সাবেক সৌদি গোয়েন্দা প্রধান সাদ আল-জাবরির বিরুদ্ধে কানাডার এক আদালতে অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে এক মামলায় দাখিল করা এক প্রামান্য দলিল থেকে এই তথ্য প্রকাশ করা হয়। সৌদি মন্ত্রী মোহাম্মদ আল-শেখের স্বাক্ষরিত ‘সর্বোচ্চ গোপনীয়’ শিরোনামের এই দলিলে স্কাই প্রাইম এভিয়েশন নামের কোম্পানিটির হস্তান্তরের বিষয়ে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। জামাল খাশোগিকে ইস্তাম্বুলে হত্যার এক বছর আগে ২০১৭ সালে কোম্পানিটি হস্তান্তর করা হয়।

গত বছর সাদ আল-জাবরি সৌদি যুবরাজের বিরুদ্ধে তাকে হত্যার চেষ্টার অভিযোগে যুক্তরাষ্ট্রের ওয়াশিংটন ডিসির ডিস্ট্রিক্ট কোর্টে মামলা দায়ের করলে আল-জাবরির বিরুদ্ধে কানাডায় এই অর্থ আত্মসাতের মামলা করা হয়।

আরও পড়ুন:  ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে আপনি কেন ঢ্যাঁড়স খাবেন

এর আগে মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থা সেন্ট্রাল ইনটেলিজেন্স এজেন্সি (সিআইএ) তাদের প্রতিবেদনে জানায়, মোহাম্মদ বিন সালমানের আদেশেই জামাল খাশোগিকে হত্যা করা হয়।

রাজপরিবারের ঘনিষ্ঠ থাকা জামাল খাশোগি সৌদি আরবের ডি ফ্যাক্টো শাসক যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান ও তার নীতির কড়া সমালোচক ছিলেন। যুবরাজের সমালোচনার জেরে তিনি দেশ ছেড়ে নির্বাসনে ছিলেন।

২০১৮ সালের ২৮ সেপ্টেম্বর তুর্কি গবেষক খাদিজা চেঙ্গিসকে বিয়ের জন্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্র তৈরি করতে ইস্তাম্বুলের সৌদি কনস্যুলেটে যান জামাল খাশোগি। তাকে ওইদিন ফিরিয়ে দেয়া হয়। এরমধ্যেই সৌদি মিশনের গোয়েন্দা বিভাগের প্রধান কনস্যুলেটে জামাল খাশোগির আসার কথা জানিয়ে রিয়াদে বার্তা পাঠান।

২ অক্টোবর খাশোগি আবার কনস্যুলেটে আসলে আগে থেকে প্রস্তুত থাকা ঘাতক দল তাকে শ্বাসরুদ্ধ করে হত্যা করে এবং লাশ টুকরা টুকরা করে।

আরও পড়ুন:  করোনায় আরেক নক্ষত্রের পতন, চলে গেলেন শামসুজ্জামান খান

২০১৯ সালে পাবলিক এভিয়েশন ডাটার বরাত দিয়ে জাতিসঙ্ঘের এক প্রতিবেদনে স্কাই প্রাইম এভিয়েশনের এইচজেড-এসকে ওয়ান ও এইচজেড-এসকে টু, নাম্বারের দুইটি প্রাইভেট জেট ব্যবহার করে রিয়াদ-ইস্তাম্বুল যাতায়াত করে ঘাতক দলের ১৫ সদস্য।

সৌদি কর্তৃপক্ষ প্রথমে হত্যাকাণ্ডের বিষয় অস্বীকার করলেও পরে তারা জানায়, কর্মকর্তাদের জিজ্ঞাসাবাদের সময় দুর্ঘটনাক্রমে এই হত্যাকাণ্ড সংগঠিত হয়। পরে হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকার অভিযোগে রিয়াদে কয়েকজনকে বিচারের আওতায় আনা হয়।

সূত্র : ডেইলি সাবাহ, মিডল ইস্ট আই ও সিএনএন

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

সাম্প্রতিক খবর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে Bangla Magazine সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান নিউজ ম্যাগাজিন অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।