প্রচ্ছদ দৈনিক খবর

হঠাৎ করেই ছন্দপতন,পরিস্থিতি ক্রমশ ভয়ঙ্কর হচ্ছে ,দ্রুত যে সিদ্ধান্তগুলো নিতে হবে

3
পড়া যাবে: 2 মিনিটে

ক্রমশ নানা সংকট সামনে চলে আসছে। করোনার প্রথম দফার সংক্রমণের পর আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন সরকার যেভাবে ঘুরে দাঁড়িয়েছিল, বিশেষ করে অর্থনীতিকে সচল রাখা এবং করোনা মোকাবেলার ক্ষেত্রে যে অভাবনীয় সাফল্য দেখিয়েছেন সেখানে যেন হঠাৎ করেই ছন্দপতন হচ্ছে।

পরিস্থিতি ক্রমশ ভয়ঙ্কর হচ্ছে, কেউ কেউ মনে করছেন নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাচ্ছে। আর এরকম পরিস্থিতিতে দ্রুত সরকারকে কিছু সিদ্ধান্ত নিতে হবে বলেই মনে করছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা। যে সিদ্ধান্তগুলো সরকারকে দ্রুত নিতে হবে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা তার মধ্যে রয়েছে:

১. করোনা মোকাবেলার কৌশল: করোনা মোকাবেলায় সরকারকে সুনির্দিষ্ট, সুস্পষ্ট একটি কৌশল পরিপত্র তৈরি করতে হবে বলে বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন। আপদকালীন ব্যবস্থা বা যখন করোনার সংক্রমণ বাড়ছে তখন কিছু ব্যবস্থা গ্রহণ করে করোনা মোকাবেলা সম্ভব নয়। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বলছে করোনা মোকাবেলা করতে হলে করো না আগে থাকতে হবে অর্থাৎ করোনার সংক্রমণ বৃদ্ধির আগেই ব্যবস্থা নিতে হবে। যদি তা না নেওয়া যায় তাহলে করোনা এমন পরিস্থিতি তৈরি করবে যা সকলের জন্যই হবে অত্যন্ত বিপদজনক। বাংলাদেশ সেই বিপদজনক দিকেই যাচ্ছে বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা। আর এজন্যই করোনা মোকাবেলায় সরকারকে একটি কৌশলপত্র নির্ধারণ করতে হবে। যে কৌশলপত্রের মাধ্যমে সরকার কোন পর্যায়ে কি করবে কোন পর্যায়ে কতটুকু বিধিনিষেধ আরোপ করবে সে সম্পর্কে সুনির্দিষ্ট একটি গাইডলাইন তৈরি করতে পারবে।

আরও পড়ুন:  স্বাভাবিকভাবে সুন্দর হয়ে উঠুন কোনও মেকআপ ছাড়াই

২. হেফাজতের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা: এক সপ্তাহ হয়ে গেছে এখন পর্যন্ত হেফাজতের তাণ্ডবের বিরুদ্ধে সরকার সুনির্দিষ্ট এবং সুস্পষ্ট ব্যবস্থা নিতে পারেনি। ইতিমধ্যে হাজার হাজার লোকের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। কিন্তু শেষ পর্যন্ত এ মামলাগুলো কতদূর টিকবে কিংবা হেফাজতের যারা মূল ব্যক্তি, যারা এই তাণ্ডবের মূল উস্কানিদাতা তাদের বিরুদ্ধে আদৌ ব্যবস্থা নেয়া হবে কিনা নাকি সরকার হেফাজতের সাথে আবার সমঝোতার পথে যাবে সেই বিষয়গুলো দ্রুত নিষ্পত্তি হওয়া দরকার। কারণ হেফাজতের বিরুদ্ধে যদি এখন ব্যবস্থা না নেয়া হয় তাহলে সাধারণ মানুষের মধ্যে একটি ভিন্ন বার্তা যাবে এবং সরকারের দুর্বলতা প্রকাশিত হবে। এর ফলে সরকার সমালোচনার মধ্যে পড়তে পারে বলেও বিভিন্ন মহল মনে করছে।

৩. দ্রব্যমূল্য: দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি মধ্যবিত্ত এবং নিম্ন আয়ের মানুষের জন্য একটি ভয়ঙ্কর সমস্যা হিসেবে দাঁড়িয়েছে। সামনে রোজা। এই রোজাতে জিনিসপত্রের দাম নতুন করে বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করা হচ্ছে। ফলে সরকারকে এখন দ্রুত দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণের জন্য ব্যবস্থা নিতে হবে এবং এই ব্যবস্থা এমনভাবে নিতে হবে যেন জনগণ জনগণের কাছে এটি দৃশ্যমান হয় যে সরকার দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে আন্তরিক এবং সজাগ।

৪. বাজেট ও অর্থনৈতিক সংকট: সামনে নতুন অর্থবছরের বাজেট তৈরি করতে হবে। করোনা সংক্রমণের এই ঊর্ধ্বগতি বাজেট তৈরি এবং অর্থনৈতিক সংকটকে দীর্ঘায়িত করতে পারে বলে বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন। বিশেষ করে রাজস্ব আদায়ের ক্ষেত্রে গত এক বছরে এমনি সরকার পিছিয়ে পড়েছে। এখন নতুন করে অর্থনৈতিক সংকট দেখা দিলে রাজস্ব আদায়ে আরো কমে যাবে। এই চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করতে করতে না পারলে সরকারকে একটা অর্থনৈতিক সংকটের মুখে পড়তে হতে পারে, যেটি সরকারের জন্য হবে একটি বিরাট চ্যালেঞ্জ।

আরও পড়ুন:  সাকিবের জায়গায় পাঁচ বছর পর ডাক পেলেন শুভাগত

৫. প্রশাসনিক পুনর্বিন্যাস: সাম্প্রতিক সময়ে এটা স্পষ্ট হয়ে গেছে যে প্রশাসনের ভিতর সমস্যা রয়েছে। একদিকে দুর্নীতি, অন্যদিকে ধর্মান্ধ মৌলবাদী শক্তির অনুপ্রবেশ ঘটেছে প্রশাসনে। আর এ কারণেই প্রশাসনের পুনর্বিন্যাস যদি দ্রুত সময়ের মধ্যে না করা যায়, তাহলে সরকার দ্রুত জনপ্রিয়তা হারাতে পারে বলে মনে করছেন বিভিন্ন মহল।

আর তাই এই ৫ ব্যাপারে দ্রুত সরকারের সিদ্ধান্তের দিকে তাকিয়ে আছে জনগণ। সরকারকেও এখনই ভাবতে হবে এই বিষয়গুলোর ক্ষেত্রে সরকার কি করবে।

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

সাম্প্রতিক খবর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে Bangla Magazine সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান নিউজ ম্যাগাজিন অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।