প্রচ্ছদ দৈনিক খবর

ছেলের বিয়ের দিন মা জানলেন কনে তার হারিয়ে যাওয়া মেয়ে!

4
পড়া যাবে: < 1 minute

প্রায় ২০ বছর আগে হারিয়ে গিয়েছিল একমাত্র মে’য়ে। সেই শোক ভুলে গেলেও ভুলে যাননি সন্তানের কথা। এখানে ওখানে খুঁজে বেড়াতেন মে’য়েকে। এরই মধ্যে বড় হয়ে উঠে ছে’লে। সেই ছে’লের বিয়ে ঠিক করেন মা নিজেই। কিন্তু ঝামেলা বাঁধে ছে’লের বিয়ের দিন। যিনি বউমা হতে চলেছেন জানা গেলো সেই পাত্রী নাকি তার হারিয়ে যাওয়া মে’য়ে!

সম্প্রতি ঘটনাটি ঘটেছে চীনের জিয়াংশু প্রদেশের সুঝাউ এলাকায়। ছে’লের বিয়েতে আড়ম্বরের কোনো অভাব রাখেননি। চলে এসেছিলেন অ’তিথিরাও। এর মধ্যেই কনের সাজে সবার সামনে এলেন পাত্রী। বউমা’র মুখ দেখে কেনো জানি ওই মায়ের মনে হতে লাগলো এ তো তার হারিয়ে যাওয়া মে’য়ের মতোই!

এরপর ভালো করে কনেকে দেখতে লাগলেন তিনি। দেখলেন তার মুখের ওই দাগটা তো জন্মের পর থেকেই ছিল। সঙ্গে সঙ্গে কনের বাবা-মাকে ডেকে বসেন তিনি। সত্যটা জানতে চান। প্রথমে ওই মে’য়ের বর্তমান বাবা-মা মুখ খুলতে চাননি। পরে বেরিয়ে আসে সত্য ঘটনা।

আরও পড়ুন:  চল্লিশ বছর বয়সের পর সুস্থ থাকতে করণীয়

এক পর্যায়ে কনের বাবা-মা স্বীকার করে নেন, বেশ কয়েক বছর আগে রাস্তায় কুড়িয়ে পেয়েছিলেন মে’য়েটিকে। তারপর নিজেদের সন্তান হিসেবেই তাকে বড় করেন। বিয়েবাড়িতে তখন হুলস্থুল কা’ণ্ড। গোটা বিষয়টি জানানো হয় কনেকেও। সব শুনে নিজেকে আর সামলে রাখতে পারেননি তিনি। জন্ম’দাত্রীকে পেয়ে কা’ন্নাকাটি শুরু করে কনে।

এবার গোল বাধে অন্যখানে। ভাই-বোনের তো আর বিয়ে সম্ভব নয়। তখন বের হয়ে আসে আরও বড় চ’মক। মে’য়ে হা’রানো ওই মা তখন বলে বসেন, যার সঙ্গে মে’য়েটির বিয়ে ঠিক হয়েছে সে ছে’লেরও জন্ম’দাত্রী মা তিনি নন! প্রায় দুই দশক আগে মে’য়ে হা’রানোর পর এ ছে’লেটিকে দত্তক নিয়েছিলেন তিনি। তবে তাকে বড় করে তুলেছিলেন একদম নিজ সন্তানের মতো করেই।

আরও পড়ুন:  আল্লাহ যেন কষ্ট কমিয়ে দেন, রমজানে মুশফিকের প্রার্থনা

ফলে ভাই-বোনের আর কোনো প্রশ্নই নেই। ফের বেজে ওঠে বিয়ের সানাই। অ’তিথিরাও নতুন করে মেতে ওঠেন আনন্দে। দিনভর নানা বাধা-বিঘ্ন টপকে শেষ পর্যন্ত চারহাত এক হয়। হাফ ছেড়ে বাঁচেন নব দম্পতি।

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

সাম্প্রতিক খবর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে Bangla Magazine সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান নিউজ ম্যাগাজিন অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।