প্রচ্ছদ দৈনিক খবর

অসুস্থ মাকে ট্রেনে তুলে দিয়ে অজানায় পাঠালো ছেলে

4
পড়া যাবে: < 1 minute

ষাটোর্ধ্ব ঝর্না বেগমের স্বামী নেই। চোখে দেখেন না। কোনো সন্তান না থাকায় মনা মিয়া নামের এক শি’শুকে দত্তক এনেছিলেন। বড় করেন ছে’লেকে। সেই মনা মিয়ার বয়স এখন ৩০।

কিন্তু বুকে তোলে নেওয়া মাকে দেখভালে তার কোনো নজর নেই। অবশেষে মাকে ট্রেনে তুলে দিয়ে অজানায় পাঠিয়ে দিয়ে চাচ্ছিলেন মুক্তি।করো’নায় ভ’য়ে ঝর্না বেগমকে শায়েস্তাগঞ্জ স্টেশন থেকে ট্রেনে তুলে দেন মনা মিয়া। সাথে দেন কিছু পুরাতন কাপড় আর কাঁথা। ট্রেনটি আখাউড়া স্টেশনে বিরতি দিলে যাত্রীদের কাছে কা’ন্নাকাটি করে নামিয়ে দেওয়ার অনুরোধ করেন ঝর্না বেগম।

আরও পড়ুন:  গোলাপের নানা ভেষজ গুণ

তখন নিরাপত্তা বাহিনীর লোকজন তাকে নামিয়ে দেন। ৩ দিন ধরে এই স্টেশনের এক নম্বর প্ল্যাটফর্মে পড়ে আছেন তিনি।বুধবার (৭ এপ্রিল) আখাউড়া রেলস্টেশনে বৃদ্ধা ঝর্না বেগমকে একা বসে বসে কাঁদতে দেখা গেছে। পরিচয় জানতে চাইলে কা’ন্নাকাটি করেন হাউ মাউ করে।

তিনি জানান, শায়েস্তাগঞ্জের বনগাঁও বাবার বাড়ি। স্বামী নূর মোহাম্ম’দ সফিক দুই যুগ আগেই কোনো এক দুর্ঘ’টনায় মা’রা যান। ছোট্ট একটা ছে’লেকে দত্তক নিয়ে বড় করেন। সেই মনা মিয়ার এখন যৌবনকাল। তিন দিন আগে অ’সুস্থ মাকে শায়েস্তাগঞ্জ রেলওয়ে স্টেশনে বস্তায় কিছু পুরাতন কাপড় আর কাঁথা দিয়ে ট্রেনে তুলে দেয় তার পালক ছে’লে মনা মিয়া।

আরও পড়ুন:  নায়িকা হতে গিয়ে ১ রাতে একে একে চার জ’নের শ’য্যা স’ঙ্গী তমা

এ বিষয়ে আখাউড়া রেলওয়ে জংশন স্টেশনের সুপারিন্টেন্ডেন্ট কাম’রুল হাসান তালুকদার বলেন, ঘটনাটি খুবই ম’র্মা’ন্তিক। মাকে এভাবে ফেলে যাওয়ার মতো জঘন্য কাজ কোনো ছে’লে করতে পারে জানা ছিল না। তবে ওই বৃদ্ধার চিকিৎসার প্রয়োজন। তাকে উপজে’লা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তির ব্যবস্থা করব

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

সাম্প্রতিক খবর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে Bangla Magazine সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান নিউজ ম্যাগাজিন অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।