প্রচ্ছদ দৈনিক খবর

সাড়া দিচ্ছেন নায়ক ফারুক, আশাবাদী চিকিৎসকরা

5
পড়া যাবে: < 1 minute

কিংবদন্তি অ’ভিনেতা ও ঢাকা-১৭ আসনের সংসদ সদস্য আকবর হোসেন পাঠান ফারুক দুই সপ্তাহ ধরে সিঙ্গাপুরে হাসপাতা’লের আইসিইউতে রয়েছেন৷ গত ২১ মা’র্চ থেকে কোনো সাড়া দিচ্ছেন না তিনি৷

গতকাল ৬ এপ্রিল এ তথ্যই জানিয়েছিলেন তার পুত্র রওশন হোসেন পাঠান শরৎ।আজ জানান সুখবর। তিনি জানান, আজ ৭ এপ্রিল ডাক্তারদের ডাকে সাড়া দিয়েছেন তার বাবা।শরৎ বলেন, ‘আজ বিকেলের দিকে (বুধবার) আব্বু ডাক্তারদের ডাকে সাড়া দিয়েছেন। একই সঙ্গে হাতও নাড়িয়েছেন। ডাক্তাররা আশাবাদী হয়েছেন।’

‘আব্বুর শারীরিক অবস্থা উন্নতির দিকে। তবে পুরোপুরি সুস্থ হতে বেশ কিছুদিন সময় লাগবে’- যোগ করেন শরৎ।শরৎ জানান, তার বাবা সিঙ্গাপুরের মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতা’লে ভর্তি আছেন। সেখানে তার অনেক আত্মীয়স্বজন রয়েছেন। তাদের মাধ্যমেই প্রতিনিয়ত খবর রাখছেন তিনি।

আরও পড়ুন:  মামুনুলের ‘তৃতীয় প্রেমিকা’ মহিলা মাদ্রাসার শিক্ষিকা

সম্প্রতি সপরিবারে করো’নায় আ’ক্রান্ত হন ফারুক। সবাই সুস্থ হলেও তার বেশকিছু শারীরিক জটিলতা দেখা দেয়। মা’র্চের দ্বিতীয় সপ্তাহে সিঙ্গাপুরে যান তিনি। সেখানে পরীক্ষায় তার র’ক্তে সংক্রমণ ধ’রা পড়ে। এরপর সিঙ্গাপুরে নিজের পরিচিত চিকিৎসকের পরাম’র্শে দ্রুত হাসপাতা’লে ভর্তি করা হয় তাকে। সেখানে কিডনি বিশেষজ্ঞ ডা. লাইয়ের তত্ত্বাবধানে চিকিৎসা নিচ্ছেন।গত ২১ মা’র্চ তাকে আইসিইউতে স্থা’নান্তর করা হয়। তখন থেকেই অচেতন অবস্থায় রয়েছেন।

প্রসঙ্গত, ১৯৭১ সালে এইচ আকবর পরিচালিত ‘জলছবি’ চলচ্চিত্রে অ’ভিনয়ের মাধ্যমে ফারুকের চলচ্চিত্রে অ’ভিষেক ঘটে। তিনি লা’ঠিয়াল, সুজন সখী, নয়নমনি, সারেং বৌ, গো’লাপী এখন ট্রেনে, সাহেব, আলোর মিছিল, দিন যায় কথা থাকে, মিয়া ভাইসহ শতাধিক চলচ্চিত্রে অ’ভিনয় করেছেন।

আরও পড়ুন:  কঠোর লকডাউন: সরকারের ১৩ দফার বিধিনিষেধে যা আছে

‘লা’ঠিয়াল’-এ অ’ভিনয়ের জন্য তিনি ১৯৭৫ সালে ‘শ্রেষ্ঠ পার্শ্ব অ’ভিনেতা’ হিসেবে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার লাভ করেন এবং ২০১৬ সালে ‘আজীবন সম্মাননা’ অর্জন করেন।সবশেষ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ‘ঢাকা-১৭’ আসন থেকে আওয়ামী লীগের হয়ে সংসদ সদস্য হন।

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

সাম্প্রতিক খবর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে Bangla Magazine সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান নিউজ ম্যাগাজিন অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।