প্রচ্ছদ বাংলাদেশ উপজেলা

মহিলা মাদ্রাসার রান্নাঘরে ছাত্রীকে ধ’র্ষণ করল ম্যানেজার

381
পড়া যাবে: < 1 minute

মাদারীপুরের রাজৈর উপজেলার এক মহিলা মাদ্রাসায় এক ছাত্রীকে ধ’র্ষণের অভিযোগে শাহাদাত হোসেন (২৫) নামে ওই মাদ্রাসার ম্যানেজারকে আ’টক করেছে পুলিশ। আজ মঙ্গলবার দুপুরে পালিয়ে যাওয়ার সময় শাহাদাতকে রাজৈর থানা পুলিশের উপপরিদর্শক (এসআই) কাওছার ধাওয়া করে পার্শ্ববর্তী মুকসুদপুর উপজেলার জলিরপাড় বাসস্ট্যান্ড থেকে আ’টক করে থানায় নিয়ে যায়।

এর আগে ভুক্তভোগী ছাত্রীর অভিযোগ, গতকাল সোমবার দুপুর ১২টার দিকে কক্ষ ঝাড়ু দেওয়ার কথা বলে ডেকে এনে তাকে ধ’র্ষণ করেন শাহাদাত। এদিকে গো’পনে মাদ্রাসা থেকে ওই ছাত্রীকে উদ্ধার করে নিয়ে যান অফিসের প্রশিক্ষক মোমেনা আক্তার।

আরও পড়ুন:  তৃতীয় শ্রেণির ছাত্রীকে মুখ বেধে ধর্ষণ

এ বিষয়ে অভিযুক্ত মাদ্রাসার ম্যানেজার শাহাদাত হোসেন তার ওপর আনা অভিযোগের সত্যতা স্বীকার করে বলেন, ‘আমি ওই ছাত্রীকে বিবাহ করতে রাজি আছি।’

শাহাদাত ফরিদপুরের ভাঙ্গা উপজেলার সিংগারিয়া মুনসারাবাদ গ্রামের মৃত আজিজুল হক মুন্সীর ছেলে। বিশ্ব রাজৈর মহিলা বিষয়ক প্রশিক্ষক মোমেনা আক্তার বাদী হয়ে শাহাদাতকে প্রধান আ’সামি করে থা’নায় মা’মলা এবং ওই ছাত্রীকে মাদারীপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করেছেন।

ধ’র্ষিত ওই ছাত্রীর অভিযোগ বলেন, ‘গতকাল সোমবার দুপুরে মাদ্রাসাটির কমপ্লেক্সে ম্যানেজার শাহাদাত তাকে মাদ্রাসার রান্না ঘর ঝাড়ু দেওয়ার কথা বলে তাকেসহ তার আরেক ছাত্রীকে ডেকে আনেন। পরে তার সহপাঠীকে অন্যত্র পাঠিয়ে দিয়ে তাকে রান্নাঘরে ঢুকিয়েই দরজা বন্ধ করে দেন। এ সময় সে চিৎকার দেওয়ার চেষ্টা করলে তার মুখ চে’পে ধরে তাকে ধ’র্ষণ করা হয়।

আরও পড়ুন:  একই সঙ্গে যমজ দুই ভাইয়ের মৃত্যু

ছাত্রীর মা বলেন, ‘আমার মেয়েকে যে নষ্ট করেছে তার উপযুক্ত বিচার চাই।’ উপজেলা নির্বাহী অফিসার সোহানা নাসরিন ও রাজৈর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. শাজাহান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, এ বিষয়ে কঠোর আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

  • 450
    Shares