প্রচ্ছদ আইন-আদালত এমপি হারুনকে নিয়ে স্ত্রী পাপিয়ার হুঙ্কারই সত্য হলো

এমপি হারুনকে নিয়ে স্ত্রী পাপিয়ার হুঙ্কারই সত্য হলো

188
পড়া যাবে: 5 মিনিটে
advertisement

১০ দিনের মধ্যে দু’র্নীতির মা’মলায় ৫ বছরের কা’রাদ’ণ্ডপ্রা’প্ত বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব ও সংসদ সদস্য হারুন অর রশীদের জামিন হয়ে যাবে বলে হুঙ্কার দিয়েছিলেন তার স্ত্রী ও বিএনপির সাবেক এমপি আসিফা আশরাফি পাপিয়া। গত ২১ অক্টোবর তিনি এ হুঙ্কার দেন। পাপিয়ার কথাই সত্য হলো। তিনি ১০দিনের আগেই জা’মিন পেলেন।

advertisement

দূ’র্নীতি’র মা’মলায় দ’ণ্ডিত বিএনপির নেতা হারুণ অর রশীদকে আদালত ৬ মাসের জা’মিন দিয়েছে। জা’মিন দেওয়ার পাশাপাশি তার জমিমানাও স্থগিত করা হয়েছে। সোমবার দুপুরে বিচারপতি মো. শওকত হোসেনের বেঞ্চ এই রায় দেয়।

এর আগে সোমবার সকালে দুদকের আইনজীবী খুরশীদ আলম খান জানান, এমপি হারুন তার দ’ণ্ডের বি’রুদ্ধে আপিল করেছেন। পাশাপাশি জা’মিনও চেয়েছেন তিনি।

গত ২১ অক্টোবর ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৪ এর বিচারক শেখ নাজমুল আলম এমপি হারুনকে ৫ বছরের দ’ণ্ড দেন। রায়ে এমপি হারুনকে পাঁচ বছর স’শ্রম কা’রাদ’ণ্ড ও ৫০ লাখ টাকা অর্থদ’ণ্ড দেয়া হয়েছে। অর্থদ’ণ্ড অ’নাদায়ে আরও ছয় মাসের বি’নাশ্রম কা’রাদণ্ড দেয়া হয়েছে। ওইদিনই তাকে গ্রে’ফতার করে কা’রাগা’রে পাঠানো হয়।

আরও পড়ুন:  বিএনপির সুবিধাবাদী নেতারা নেতৃত্ব ধরে রাখা নিয়ে দুশ্চিন্তায়

এই মা’মলায় প’লাতক আসামি চ্যানেল নাইনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. এনায়েতুর রহমান বাপ্পিকে দুই বছর স’শ্রম কা’রাদণ্ড ও এক লাখ টাকা অর্থদ’ণ্ড দেয়া হয়েছে। অর্থদ’ণ্ড অনাদায়ে আরও দুই মাসের বিনাশ্রম কা’রাদ’ণ্ড দেয়া হয়।

এ ছাড়া অপর প’লাতক আ’সামি গাড়ি ব্যবসায়ী স্কাই অটোসের মালিক ইশতিয়াক সাদেককে তিন বছর স’শ্রম কা’রাদ’ণ্ড ও ৪০ লাখ টাকা অর্থদ’ণ্ড দেয়া হয়। অর্থদ’ণ্ড অনাদায়ে আরও ছয় মাসের বিনাশ্রম কা’রাদ’ণ্ডের আদেশ দেন আদালত।

আদালত সূত্র জানায়, ২০০৫ সালের ১৯ এপ্রিল হারুন অর রশীদ এমপি কোটায় শুল্কমুক্ত গাড়ি আমদানি করেন। এর এক সপ্তাহ পরই শুল্কমুক্ত গাড়িটি তিনি বিক্রি করে দেন। গাড়িটি তিনি স্কাই অটোসের মালিক ইশতিয়াক সাদেকের মাধ্যমে ক্রেতা মো. এনায়েতুর রহমানের কাছে বিক্রি করেন। গাড়িটির ইনভয়েস মূল্য ১১ লাখ ৬৪ হাজার ১১০ টাকা।

আরও পড়ুন:  হিংসা ও প্রতিহিংসার রাজনীতি

শুল্কমুক্ত গাড়ি আমদানি করে শর্তভঙ্গ করে তা বিক্রি করায় সরকারের ৮৭ লাখ ৭১ হাজার ৬১২ টাকার শুল্ক বাবদ আর্থিক ক্ষতি হয়েছে। এ ঘটনায় ২০০৭ সালের ১৭ মার্চ এসআই মো. ইউনুচ আলী বাদী হয়ে রাজধানীর পল্লবী থানায় মা’মলা করেন।

তদন্ত শেষে ওই বছরের ১৮ জুলাই দু’দকের সহকারী পরিচালক মো. মোনায়েম হোসেন আ’সামিদের বিরুদ্ধে আদালতে এ চা’র্জশিট (অভিযোগপত্র) দাখিল করেন। এর এক মাস পরই আদালত আ’সামিদের বিরুদ্ধে চার্জ (অভিযোগ) গঠনের মাধ্যমে মা’মলার আনুষ্ঠানিক বিচার শুরু করেন। চাঁপাইনবাবগঞ্জ-৩ আসনের এমপি হারুন একাদশ জাতীয় সংসদে বিএনপির সংসদীয় দলের নেতা।

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

সর্বশেষ আপডেট

  • 182
    Shares
advertisement