প্রচ্ছদ জেলা ক্রিকেট বোর্ডের পরিচালক ও গুলশান ক্লাবের সভাপতির গাড়ি থেকে গু’লি ও মা’দক...

ক্রিকেট বোর্ডের পরিচালক ও গুলশান ক্লাবের সভাপতির গাড়ি থেকে গু’লি ও মা’দক উদ্ধার

228
পড়া যাবে: 2 মিনিটে

নারায়ণগঞ্জ দেশের অন্যতম শীর্ষ ব্যবসায়িক গ্রুপ পারটেক্স গ্রুপের প্রতিষ্ঠাতা, সাবেক সংসদ সদস্য এমএ হাশেমের ছেলে শওকত আজিজ রাসেলের গাড়ি থেকে গু’লি, ই’য়াবা ও বি’দেশী ম’দ উদ্ধার করেছে বলে জেলা গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশ জানায়। শওকত আজিজ রাসেল বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের পরিচালক ও রাজধানীর অভিজাত ক্লাব গুলশান ক্লাবের সভাপতি। শুক্রবার রাতে সিদ্ধিরগঞ্জের সাইনবোর্ড এলাকায় চৌরঙ্গী ফিলিং স্টেশনের সামনে থেকে এই মা’দক ও গু’লি উদ্ধার দেখানো হয়। এ ঘটনায় গাড়ি চালককে গ্রে’ফতার করা হয়েছে।

তবে এই সময় গাড়িতে শওকত আজিজ রাসেলের স্ত্রী ফারাহ রাসেল ও ছেলে আনাব আজিজ ছিল বলে একটি সূত্র জানায়। তবে তাদেরকে আ’টক দেখানো হয়নি। এ ঘটনায় সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় অ’স্ত্র ও মা’দকদ্র’ব্য আইনে দুটি মা’মলা হয়েছে। মা’মলায় শওকত আজিজ রাসেলকে প্রধান আসামি করা হয়েছে। তবে সে প’লাতক রয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ

গতকাল শনিবার বিকেলে গণমাধ্যমে প্রেরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে জেলা পুলিশ জানায়, জেলা পুলিশ সুপার হারুন অর রশীদকে ঢাকার বাসায় নামিয়ে দেওয়ার পর গাড়ি নিয়ে ফেরার সময় শুক্রবার দিবাগত আনুমানিক রাত ১টার দিকে তেজগাঁওয়ের সাতরাস্তায় মগবাজার ফ্লাইওভারের কাছাকাছি পৌছালে রাস্তায় যানজট সৃষ্টি হয়।

আরও পড়ুন:  বাবাকে বাইরে পাঠিয়ে শিশুর হাত বেঁ*ধে এবং মু*খে স্কচটেপ লাগিয়ে ধ*র্ষণ করলেন ইমাম

তখন এসপির গাড়ির চালক জুয়েল মিয়া হর্ন দিলে গাড়ির সামনে থাকা (ঢাকা মেট্রো-ঘ-১৩-৮৩৭৫) এর গাড়ির ভেতর থেকে একজন লোক এসে গাড়ির বাম পাশের গ্লাসে জোরে আঘাত করে গা’লিগা’লাজ করতে থাকে। ওই ব্যক্তি আমি পারটেক্স রাসেল, গাড়ির দরজা খোল এমন কথা বললে এসপির গাড়ির চালক তখন গাড়ির গ্লাস খুলে প্রতিবাদ করলে উক্ত ব্যক্তি তাকে হ’ত্যার উদ্দেশ্যে মাথায় পি’স্তল তা’ক করে ধরে।

পরে পুলিশের লোক বুঝতে পেরে দ্রুত নিজের গাড়িতে করে পালিয়ে যাওয়ার সময় এসপির গাড়ি চালক ও দেহরক্ষী গাড়িটি অনুসরণ করে। পরে গাড়িটি নারায়ণগঞ্জের দিকে আসছে বলে ডিবি পুলিশের এসআই জলিল মাতুব্বরকে জানায় এসপির গাড়ির চালক। শুক্রবার রাত পৌনে তিনটার দিকে সিদ্ধিরগঞ্জ থানাধীন সাইনবোর্ড চৌরঙ্গী ফিলিং এন্ড সিএনজি ষ্টেশন থেকে ওই গাড়ির চালক সুমনকে আ’টক করে।

পুলিশ আরও জানায়, ওই গাড়ি হতে উদ্ধার করা হয় পি’স্তলের ২৮ রাউন্ড গু’লি, ১২’শ পিস ই’য়াবা ট্যা’বলে’ট, ২৪ বো’তল বিভিন্ন ব্র্যা’ন্ডের বি’দেশী ম’দ, ২৮ ক্যান বি’য়ার, নগদ ২২ হাজার ৩৮০ টাকা। ওই সময়ে গ্রে’ফতার করা হয় চালক মো. সুমনকে (২৯)। এ ঘটনায় সাদা রঙের একটি জিপ গাড়ি (ঢাকা মেট্রো-ঘ: ১৩-৮৩৭৫) পুলিশের জব্দ তালিকায় দেখানো হয়েছে। গাড়ি থেকে উদ্ধারকৃত পি’স্তলের গু’লি ও মা’দক শওকত আজিজ রাসেলের (৩৯) বলে ডিবির কাছে জানায় আ’টক গাড়ি চালক সুমন।

আরও পড়ুন:  ভীমরুলের চাকের মতো ঢাকার রাজপথ দখল করার ক্ষমতা রয়েছে

এদিকে এই ঘটনায় শনিবার সকালেই জেলা পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে ছুটে আসেন পারটেক্স গ্রুপের প্রতিষ্ঠাতা এমএ হাশেম, পারটেক্স গ্রুপের চেয়ারম্যান ও এমএ হাশেমের স্ত্রী সুলতানা হাশেম, এমডি আজিজ আল মাহমুদ। পরে গাড়িতে থাকা শওকত আজিজ রাসেলের স্ত্রী ফারাহ রাসেল ও ছেলে আনাব আজিজকে তাদের হেফাজতে ছেড়ে দেয়া হয়।

এ বিষয়ে শনিবার বিকেলে এক সংবাদ সম্মেলনে এসপি হারুন অর রশীদ বলেন, শওকত আলী রাসেলের গাড়ি ত’ল্লাশী করে ই’য়াবা, পি’স্তলের গু’লি ও বি’দেশী ম’দ উ’দ্ধার করা হয়েছে। তাকে আমরা ধরতে পারি নাই, সে পা’লিয়ে গেছে। তবে তার বিরুদ্ধে অ’স্ত্র ও মা’দক আইনে দুটি মা’মলা হয়েছে। তাকে ধরার জন্য গুলশান এলাকায় যাই ও ঢাকার একটি ক্লাবে যাই, তার বাসায় যাই কিন্তু তাকে পাওয়া যায়নি। আ’সামি রাসেলকে গ্রে’ফতারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

সর্বশেষ আপডেট:

  • 745
    Shares