প্রচ্ছদ বিশ্ব সংবাদ বাবরি মসজিদ রায়ঃমসজিদের জমি পাবে হিন্দুরা,মুসলিমদের দেওয়া হবে বিকল্প জমি

বাবরি মসজিদ রায়ঃমসজিদের জমি পাবে হিন্দুরা,মুসলিমদের দেওয়া হবে বিকল্প জমি

131
পড়া যাবে: 4 মিনিটে
advertisement

ভারতে ঐতিহাসিক অযোধ্যা মা’মলার রায় ঘোষণা করা হয়েছে। আজ শনিবার স্থানীয় সময় সকাল সাড়ে ১০ টা নাগাদ রায় পড়তে শুরু করেন প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈ। তার নেতৃত্বাধীন পাঁচ সদস্যের বেঞ্চের রায়ে বলা হয়েছে, শর্তসাপেক্ষে বাবরি মসজিদের বিতর্কিত জমি পাবে হিন্দুরা। মুসলিমদের বিকল্প জমি দেওয়া হবে।

advertisement

রায়ে আরও বলা হয়েছে, বাবরি মসজিদের জমির নীচে পুরোনো কাঠামো ছিল। তবে সেটা মন্দিরেরই কাঠামো ছিল কিনা তা নিশ্চিত নয়। রায়ে শিয়া ওয়াকফ বোর্ডের আর্জি খারিজ করে দেওয়া হয়েছে।

রায়ে আরো যা বলা হয়:

এই ট্রাস্ট তৈরির জন্য কেন্দ্রকে এগিয়ে আসার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। অযোধ্যায় রামমন্দির তৈরির জন্য ৩ মাসের মধ্যে ট্রাস্ট তৈরি করতে হবে। মসজিদ বানানোর জন্য মুসলিম পক্ষকে ৫ একর বিকল্প জমি দিতে হবে । শর্ত সাপেক্ষে এই জমি হিন্দুদের হাতে দেওয়া হোক। মুসলিমদের জন্য বিকল্প জমির ব্যবস্থা হবে। জমির মালিকানার পক্ষে প্রমাণ দেখাতে পারেনি সুন্নি ওয়াকফ বোর্ড। যে কাঠামো ভেঙে বাবরি মসজিদ তৈরি হয়েছিল তা মসজিদ নয়। তবে তা যে মন্দির ছিল তাও নির্দিষ্ট ভাবে বলা যায় না।

আরও পড়ুন:  রাতে ঘুমন্ত স্ত্রীর পাশেই মেয়েকে ধর্ষণ করল বাবা!

বাবরি মসজিদ খালি জায়গায় ওপর তৈরি হয়নি ধর্মবিশ্বাসের ওপর ভিত্তি করে আদালত রায় দিতে পারে না। রাম যে অযোধ্যায় জন্মেছিলেন হিন্দুদের এই বিশ্বাসের ওপর প্রশ্ন তোলা যায় না। জমির দখল নিয়ে সুন্নি ওয়াকফ বোর্ড যে দাবি করছে, তার যথাযথ প্রমাণ দিতে পারেনি। ১৯৯২ সালে মসজিদ যে ভাঙা হয়েছে, তা আইনবিরুদ্ধ। অযোধ্যায় রামের জন্ম নিয়ে হিন্দুদের বিশ্বাস অনস্বীকার্য। ১৮৫৬-৫৭ সালের মধ্যে য নথি মিলেছে, হিন্দুদের পুজো করাতে কোনও বাধাদান দেওয়া হয়নি।

এর আগে রায় ঘোষণার আগে শান্ত থাকার জন্য দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। বিষয়টি নিয়ে গতকাল তিনি একাধিক টুইট করেন। এসব টুইটে তিনি বলেন, ‘এ রায় কারও জন্য জয়-পরাজয়ের বিষয় নয়। রায় যেন শান্তি ও সংহতির বিষয়ে ভারতের মহান ঐতিহ্যকে আরও জোরদার করতে পারে এবং আমাদের সেই চাওয়াই যেন সবার কাছে অগ্রাধিকার পায়। দেশবাসীর প্রতি এই আমার আহ্বান।’

আরও পড়ুন:  চাঞ্চল্যকর খবর , ভারতে ঢুকে গেছে চীনের সেনাবাহিনী

১৯৯২ সালে কট্টরপন্থী মৌলবাদী হিন্দুরা বাবরি মসজিদ ভেঙ্গে ফেলার পর হিন্দু-মুসলিম দা’ঙ্গায় কমবেশি ২০০০ লোক নি’হত হয়েছিল। এ কারণে রায় ঘোষণার মাসখানেক আগে থেকেই অযোধ্যা শহরে ১৪৪ জারি রয়েছে। এমনিতেই বিতর্কিত জমিটির কাছাকাছি যাওয়া যায় না সহজে। চারদিকে লোহার বেড়া আছে।

২৪ ঘণ্টা সেটিকে ঘিরে রাখে কেন্দ্রীয় নিরাপত্তা বাহিনীর কয়েকশো সদস্য। আর এখন হাজার হাজার বাড়তি কেন্দ্রীয় বাহিনী মোতায়েন করা হয়েছে অযোধ্যায়। বাবরি মসজিদ মামলার রায়কে ঘিরে আইনশৃঙ্খলার অবনতি যাতে না হয় বা সাম্প্রদায়িক উত্তেজনা যাতে না ছড়ায়, তার জন্য ব্যাপক নিরাপত্তার ব্যবস্থা হচ্ছে অযোধ্যা শহর সহ উত্তরপ্রদেশ জুড়ে।

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

সর্বশেষ আপডেট

  • 458
    Shares
advertisement