প্রচ্ছদ ধর্ম ও জীবন

আল্লাহুর রহমতের মধ্য একটি ”অসুস্থতা”

46
পড়া যাবে: < 1 minute

আল্লাহুর তিনটি রহমতের মধ্য একটি অসুস্থতা, সুস্থতা মহান আল্লাহর অনুগ্রহ। আর অ’সুস্থতাও তাহার অনুগ্রহ। অসুস্থতার মাধ্যমে পাপ মোচন হয়। হজরত মুহাম্মাদ (সঃ) মানব জীবনের সব সমস্যার সমাধানে দিয়েছেন গুরুত্বপূর্ণ দিক-নির্দেশনা। হাদিস শরিফে এসেছে, অ’সুস্থ্য ব্যক্তিকে দেখতে গেলে তার জন্য আল্লাহর দরবারে কী’ভাবে দোয়া করতে হবে। হজরত ইবনে আব্বাস রাদিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণিত, রাসুল (সঃ) বলেছেন, যে ব্যক্তি এমন কোনো রুগ্ন মানুষের সঙ্গে সা’ক্ষাৎ করবে, যার এখনো মৃত্যুর সময় উ’পস্থিত হয়নি এবং তার নিকট সাতবার এই দোয়াটি বলবে-

আরও পড়ুন:  উপযুক্ত জীবন সঙ্গী পেতে যে দোয়া ও আমল করবেন

উচ্চারণ : আসআলুল্লাহাল আজিম, রাব্বাল আরশিল আজিম, আঁইয়্যাশফিয়াক অর্থাৎ আমি সুমহান আল্লাহ, মহা আরশের প্রভুর নিকট তোমার আ’রোগ্য (সুস্থতা) প্রার্থনা করছি আল্লাহ তাকে সে রোগ থেকে মুক্তি দান করবেন। (তিরমজি, আবু দাউদ)। হজরত ইবনে আব্বাস রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে আরো বর্ণিত আছে যে, হজরত মুহাম্মাদ (সঃ) একজন বে’দুঈনকে দেখতে গেলেন। আর তাঁর নিয়ম এই ছিল যে, যখন তিনি কোনো রোগীকে দেখতে যেতেন তখন বলতেন-

লা-বাসা তুহু-রুন ইনশাআল্লাহ। অর্থ : ভয় নেই, আল্লাহর মেহেরবানীতে আরোগ্য লাভ করবে ইনশাআল্লাহ (বুখারি, মু’সলিম) হ’জরত আয়েশা রাদিয়াল্লাহু আনহা বলেন, আমাদের মধ্যে কেউ যখন অ’সুস্থ হতো তখন রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তাঁর ডান হাত রোগীর শ’রীরে বুলাতেন এবং বলতেন; আজহাবিল বাসা রব্বান না-সি, ওয়াশফি আনতাশ শা-ফি-লা শিফাআ ইল্লা- শিফা-উকা শিফা-আলা ইউগাদিরু সুক্বমা।

আরও পড়ুন:  *যে পাঁচ সময়ে বান্দার দো'য়া মহান আল্লাহ কবুল করেন*

অর্থ : হে মানুষের প্র’তিপালক! এ রোগ দূর কর এবং আরোগ্য দান কর, তুমিই আরোগ্য দানকারী। তোমা’র আরোগ্য ব্যতিত কোনো আ’রোগ্য নেই। এমন আরোগ্য, যা বাকী’ রাখে না কোনো রোগ। (বুখারি, মিশকাত)

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

  • 23
    Shares