প্রচ্ছদ বাংলাদেশ জেলা

শিক্ষিকাদের ভয়ে স্কুলে যাচ্ছেন না প্রধান শিক্ষক

188
পড়া যাবে: 2 মিনিটে

শেরপুরের শ্রীবরদী উপ’জেলার রানীশিমুল ইউনিয়নের হাঁস’ধরা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের সাথে সহকারি শিক্ষিকাদের দ্বন্দ্ব এখন চরমে। ওই দ্বন্দ্বের জেরে সহকারি শিক্ষিকাদের ভয়ে স্কুলে যেতে পারছেন না বলে অভিযোগ করেছেন বিদ্যালয়ের ভার’প্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক কামরুজ্জামান। এ ঘটনায় থানায় সাধারণ ডায়েরিসহ বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ দাখিল করেছেন তিনি। রোব’বার (২ জানুয়ারি) সকালে ওই ঘটনার বিষয়ে তদন্ত করতে শ্রীবরদী থানার এসআই শফিকুর রহমান শফিক ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। বিদ্যালয়ের অভি’ভাবক ও শিক্ষার্থীরা জানান, দীর্ঘদিন যাবত ভার’প্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের সাথে সহকারি শিক্ষিকাদের দ্বন্দ্বের কারণে নিয়মিত ক্লাস হচ্ছে না। এতে শিক্ষা কার্যক্রম ব্যহত হচ্ছে। ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক মোহাম্মদ কামরুজ্জামান জানান, এ বিদ্যালয়ে ৩ জন সহ’কারি শিক্ষিকা।

তারা হলেন, জিন্নাতুন নেছা, হোসনে আরা ও সুরমা আক্তার। তারা রহস্য’জনক কারণে দীর্ঘদিন যাবত বিদ্যালয়ে পাঠদান’সহ নানা বিষয়ে দায়িত্ব পালনে অবহেলা করে আসছেন। এ বিষয়ে কথা বলতে গেলে সহকারি শিক্ষিকা জিন্নাতুন নেছার ছোট ভাই স্থানীয় ভায়া’ডাঙ্গা বাজারে তাকে প্রকাশ্যে মারধর করে। এ ঘটনার পরিপেক্ষিতে আমি তাদের বিরুদ্ধে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নিকট অভিযোগ করি। পরে স্থানীয় গণ্য’মান্য ব্যাক্তির হস্তক্ষেপে বিষয়টি আপোষ-মিমাংসা হয়। সম্প্রতি জিন্নাতুন নেছা বিদ্যালয়ে দেরিতে আসার বিষয়টি উপজেলা সহকারি শিক্ষা অফিসারকে জানাই। এসব ঘটনা’কে কেন্দ্র করে ওই ৩ শিক্ষিকা তাকে বিদ্যালয়ে লাঞ্চিত করে। এমনকি বিদ্যালয়ে গেলে তাকে মারধর করবে বলে হুমকিও দেয়। এ ভয়ে আমি বিদ্যালয়ে যেতে পারছি না। নিরা’পত্তা চেয়ে এ জন্য আমি থানায় একটি সাধারণ ডায়েরিও করেছি।

আরও পড়ুন:  এসএসসি পরীক্ষার্থীকে উত্যক্ত করার অভিযোগে এক যুবককে চার মাসের কারাদণ্ড

ওই বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভা’পতি আব্দুল আলীম ওইসব ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, ওই শিক্ষিকারা এই বিদ্যালয়ে থাকলে যেকোনো মূর্হুতে অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটতে পারে। এ জন্য উপ’জেলা শিক্ষা অফিসে তাদেরকে অন্যত্র বদলীর আবেদন করা হয়েছে। এদিকে এসব অভিযোগের প্রেক্ষিতে থানার এসআই শফিকুর রহমান শফিক আজ রবিবার ঘটনা’স্থল পরিদর্শন করেছেন। তিনি জানান, তাদের মধ্যকার দ্বন্দ্ব এখন চরমে। বিষয়টি থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ রুহুল আমিন তালুকদারকে জানানো হবে। উপজেলা শিক্ষা কর্ম’কর্তা জিয়াউল হক জানান, দীর্ঘ’দিন যাবত ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের সাথে সহকারি শিক্ষিকাদের দ্বন্দ্বের কারণে শিক্ষা কার্যক্রম ব্যাহত হচ্ছে। ওই ৩ শিক্ষিকার ওইসব অনিয়মের ব্যাপারে দ্রুত প্রয়োজনীয় পদ’ক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।

আরও পড়ুন:  শেরপুরে ছিনতাইকারী চক্রের ছয় যুবককে গ্রেফতার

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

সাম্প্রতিক খবর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে Bangla Magazine সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান নিউজ ম্যাগাজিন অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।

  • 65
    Shares