প্রচ্ছদ বাংলাদেশ জাতীয়

আগামী তিন বছরের মধ্যে দেশের চাহিদা মিটিয়ে পেঁয়াজ রফতানি করা সম্ভব হবে

59
পড়া যাবে: < 1 minute

এ মুহূর্তে দেশের বাইরে থেকে যে পেঁয়াজ আম’দানি করা হচ্ছে তার মাত্র ১০ থেকে ১৫ শতাংশ চীন থেকে আসছে। আর চীনের পেঁয়াজ আমাদের দেশের মানুষ পছন্দও করে না। করোনা’ভাইরাসের কারণে যদি চীন থেকে পেঁয়াজ আমদানি বন্ধও হয়ে যায়, তবুও দেশে পেঁয়াজের বাজারে প্রভাব পড়বে না বলে জানিয়েছেন বাণিজ্য’মন্ত্রী টিপু মুনশি। বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে নিজ দফতরে সাং’বাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ সব কথা বলেন। এ সময় বাণিজ্য সচিব ড. জাফর উদ্দীন উপস্থিত ছিলেন। এর আগে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে বেলা সাড়ে ১১টার দিকে এ সং’ক্রান্ত আন্তঃমন্ত্রণালয় সভা অ’নুষ্ঠিত হয়।

সভায় সভা’পতিত্ব করেন বাণিজ্য সচিব ড. জাফর উদ্দীন। বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, বিদেশ থেকে প্রায় ২ হাজার মেট্রিক টন পেঁয়াজ আসছে। এর মধ্যে ৫০ শতাংশ আম’দানি হচ্ছে মিয়ানমার থেকে। পাকিস্তান থেকে আসছে ২০ থেকে ৩০ শতাংশ। এ ছাড়া তু’রস্ক থেকেও আসছে, আর চীন থেকে খুব কম পরি’মাণ আসছে। সুতরাং চীন থেকে পেঁয়াজ আনা বন্ধ হয়ে গেলেও স’মস্যা হবে না।

টিপু মু’নশি বলেন, পেঁয়াজ সমস্যার স্থায়ী সমাধানের জন্য সর’কার সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে কাজ করছে। পেঁয়াজ আমদানির ওপর নির্ভরশীল না থেকে চাহিদা মোতাবেক উৎপাদন করে এ স’মস্যার সমাধান করা হবে। এ ছাড়া পেঁয়াজের উপযুক্ত মূল্য নিশ্চিত করা গেলে কৃষকরা পেঁয়াজ উৎপাদনে উৎসাহিত হবে। তিনি বলেন, আ’গামী তিন বছরের মধ্যে দেশের চাহিদা মিটিয়ে পেঁয়াজ রফ’তানি করা সম্ভব হবে।

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

সাম্প্রতিক খবর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে Bangla Magazine সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান নিউজ ম্যাগাজিন অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।