প্রচ্ছদ রাজনীতি যেকোনো পরিস্থিতির মধ্যেই আওয়ামী লীগের ৫৪ আসন নিশ্চিত

যেকোনো পরিস্থিতির মধ্যেই আওয়ামী লীগের ৫৪ আসন নিশ্চিত

783
যেকোনো পরিস্থিতির মধ্যেই আওয়ামী লীগের ৫৪ আসন নিশ্চিত
ছবি: ইন্টারনেট
পড়া যাবে: 3 মিনিটে
advertisement

১৯৭৯ থেকে ২০০৮ সাল পর্যন্ত জাতীয় সংসদ নির্বাচনগুলোর গতিপ্রকৃতি গবেষণা করে এ তথ্য জানতে পেরেছে বাংলা ইনসাইডার। গবেষণায় দেখা গেছে, সংসদ নির্বাচনের ৩০০ আসনের মধ্যে প্রায় ১০০ আসনের ফলাফল আগে থেকেই নিশ্চিত।

advertisement

আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে যেকোনো পরিস্থিতির মধ্যেই আওয়ামী লীগের ৫৪ আসন নিশ্চিত। নির্বাচনে গেলে বিএনপিও অন্তত ৩৫ আসন পাওয়ার আশা করতে পারে। আর জাতীয় পার্টিও অন্তত ৯ আসনে নিশ্চিত জয় পাবে।

কারণ এই আসনগুলো আওয়ামী লীগ, বিএনপি অথবা জাতীয় পার্টির আসন হিসেবে পরিচিত। নির্বাচনের আসল প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে বাকি ২০০ আসনে।

আগামী মাসের শেষে যেকোনো সময় ঘোষিত হবে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফসিল। আর চলতি বছরের শেষেই অনুষ্ঠিত হতে পারে নির্বাচন। এরই মধ্যে নির্বাচন কমিশন (ইসি) ৩০০ আসনের সীমানা পুননির্ধারণের কাজ সম্পন্ন করেছে। ভোটকেন্দ্রের চূড়ান্ত তালিকাও প্রকাশ করেছে নির্বাচন কমিশন। নির্বাচন কমিশন যখন নির্বাচনের তোড়জোড় চালাচ্ছে তখন রাজনৈতিক দলগুলো হিসেবের খাতা খুলে বসেছে। বিভিন্ন আসনে নিজেদের অবস্থান যাচাই করছে দলগুলো।

অবস্থান যাচাইয়ের শুরুতেই কিছু বিষয় প্রাধান্য পায়। প্রতিটি বড় দলেরই কিছু আসন থাকে বলা যায় স্থায়ী বা নির্দিষ্ট (রিজার্ভ) আসন। কারণ স্বাধীনতার পর থেকে বর্তমান সময় পর্যন্ত ওই আসনগুলোতে সিংহভাগ সময়ই তাদের দখল ছিল। বিশেষ করে বাংলাদেশের জন্য দু’টি জাতীয় সংসদ নির্বাচন খুবই গুরুত্বপূর্ণ- ২০০১ ও ২০০৮ সালের।

আরও পড়ুন:  নজিরবিহীন মামলায় বিএনপিকে চাপে রাখার চেষ্টা

২০০১ সালের নির্বাচনে বাংলাদেশের জনগণ বিএনপিকে গণহারে ভোট দিয়েছে। আবার ২০০৮ সালের নির্বাচনেও আওয়ামী লীগ একইভাবে গণহারে ভোট পেয়ে জয়ী হয়েছে। বাংলাদেশের ইতিহাসে এই নির্বাচন দু’টি উত্তরমেরু-দক্ষিণমেরুর নির্বাচন। তবে এই দু’টি নির্বাচনের মধ্যেও কিছু আসন ছিল, যা আওয়ামী লীগ বা বিএনপির নিদিষ্ট আসন। ওই আসনগুলোতে আওয়ামী লীগ বা বিএনপি দুই নির্বাচনেই জয়ী হয়েছে। এই আসনগুলোতে আওয়ামী লীগ বা বিএনপির পক্ষ থেকে যেকেউ নির্বাচনে দাঁড়ালেই জয়ী হবে বলে ধারণা করা হয়।

আওয়ামী লীগের যে আসনগুলো নিশ্চিত:

আওয়ামী লীগের বেশ কিছু স্থায়ী আসন রয়েছে, যেগুলোতে প্রায় বরাবরই দলটি জয়লাভ করে আসছে। বাংলাদেশের পূর্বের জাতীয় সংসদ নির্বাচনগুলো বিশ্লেষণ করে দেখা যায়, আওয়ামী লীগের এমন আসনের সংখ্যা ৫৪টি। এগুলো হলো: ঠাকুরগাঁও-২, দিনাজপুর-৫, নীলফামারী-২, লালমনিরহাট-১, গাইবান্ধা-২, নাটোর-৪, পাবনা-৪, ঝিনাইদহ-১, যশোর-৬, মাগুরা-১, বাগেরহাট-১, বাগেরহাট-৩, খুলনা-১, পটুয়াখালী-৩, পটুয়াখালী-৪, টাংগাইল-১, টাংগাইল-৭, টাংগাইল-৮, জামালপুর-৩, জামালপুর-৫, শেরপুর-১, ময়মনসিংহ-১, ময়মনসিংহ-৭, ময়মনসিংহ-৮, ময়মনসিংহ-১০, নেত্রকোনা-২, কিশোরগঞ্জ-১, কিশোরগঞ্জ-২, কিশোরগঞ্জ-৫, গাজীপুর-১, গাজীপুর-২, নরসিংদী-৫, ফরিদপুর-১, ফরিদপুর-৪, গোপালগঞ্জ-১, গোপালগঞ্জ-২, গোপালগঞ্জ-৩, মাদারীপুর-১, মাদারীপুর-২, মাদারীপুর-৩, শরীয়তপুর-২, শরীয়তপুর-৩, সুনামগঞ্জ-২, সুনামগঞ্জ-৩, মৌলভীবাজার-৪, হবিগঞ্জ-১, হবিগঞ্জ-২, হবিগঞ্জ-৩, হবিগঞ্জ-৪, ব্রাহ্মণবাড়িয়া-১, নোয়াখালী-৪, নোয়াখালী-৫, চট্টগ্রাম-৬ ও পার্বত্য বান্দরবান।

আরও পড়ুন:  এখনই রাশ টেনে না ধরলে দল বিপদে পড়বে,এসব নেতাকে ছেঁটে ফেললে দলের কোনো ক্ষতি হবে না

বিএনপি যে আসনগুলো পাবেই বলে মনে করে: 

বিএনপিরও কিছু নিদিষ্ট আসন রয়েছে। বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে, দলটির এমন আসন সংখ্যা ৩৫টি। সেগুলো হলো: জয়পুরহাট-১, জয়পুরহাট-২, বগুড়া-২, বগুড়া-৩, বগুড়া-৪, বগুড়া-৬, বগুড়া-৭, সিরাজগঞ্জ-২, মেহেরপুর-২, খুলনা-২, ভোলা-১, বরিশাল-৪, বরিশাল-৫, গাজীপুর-৪, কুমিল্লা-২, কুমিল্লা-৩, কুমিল্লা-৪, চাঁদপুর-৪, ফেনী-১, ফেনী-২, ফেনী-৩, নোয়াখালী-১, নোয়াখালী-২, নোয়াখালী-৩, লক্ষ্মীপুর-১, লক্ষ্মীপুর-২, লক্ষ্মীপুর-৩, লক্ষ্মীপুর-৪, চট্টগ্রাম-২, চট্টগ্রাম-১৩, চট্টগ্রাম-১৫, চট্টগ্রাম-১৬, কক্সবাজার-১, কক্সবাজার-২ ও কক্সবাজার-৩।

জাতীয় পার্টিও যেখানে নিশ্চিত জয় আশা করে:

বাংলাদেশে আওয়ামী লীগ-বিএনপির পর জাতীয় পার্টির নির্দিষ্ট আসন সংখ্যা বেশি। বলা যায়, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে গেলে এই আসনগুলোতে জাতীয় পার্টি জয়ী হবে। বিশ্লেষণ মতে, দলটির নির্দিষ্ট আসন সংখ্যা ৯টি। এগুলো হলো: লালমনিরহাট-২, রংপুর-১, রংপুর-২, রংপুর-৩, কুড়িগ্রাম-১, কুড়িগ্রাম-২, কুড়িগ্রাম-৩, গাইবান্ধা-২ ও সাতক্ষীরা-৪।

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

সর্বশেষ আপডেট

advertisement