প্রচ্ছদ বাংলাদেশ

আসছে নতুন কর্মসূচি , দেশে ফিরেই ঘোষণা দেবেন খালেদা জিয়া

২২ বার দেখা হয়েছে
বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া

চিকিৎসা শেষে চলতি মাসে (সেপ্টেম্বর) লন্ডন থেকে দেশে ফিরবেন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। সূত্র থেকে জানা গেছে, চোখে ছানি অপারেশনের কারণে ঈদের আগে দেশে ফিরতে পারেন নি তিনি। তবে পুরোপুরি চিকিৎসা শেষে এ মাসেই লন্ডন থেকে দেশে ফেরার সম্ভাবনা রয়েছে তার।

বৃহস্পতিবার (৬ সেপ্টেম্বর) বিএনপি চেয়ারপারসনের মিডিয়া উইংয়ের সদস্য শায়রুল কবির খান  বলেন, ‘সবকিছু ঠিক থাকলে এ মাসেই ম্যাডামের দেশে আসার সম্ভাবনা রয়েছে’।

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া কবে নাগাদ দেশে ফিরতে পারেন এবং কবে নাগাদ সহায়ক সরকারের রুপরেখা দেয়া হবে জানতে চাইলে দলের ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামন দুদু  বলেন, এখন পর্যন্ত সে রকম কোনো সিদ্ধান্তের কথা আমাদেরকে জানানো হয় নি। তবে আশা করা যায় এ মাসের মাঝামাঝি সময়ে তিনি আসবেন এবং তারপরই সহায়ক সরকারের রুপরেখা ঘোষণা করতে পারেন। মোটামুটিভাবে সহায়ক সরকারের রুপরেখা চূড়ান্ত করা হয়েছে। তিনি আসলে তা জাতির সামনে তুলে ধরা হবে।

রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের ধারণা, ঈদের পর খালেদা জিয়া দেশে ফিরলে রাজনীতির মাঠে তৈরি হবে ‘বাঁক’; উজ্জীবিত বিএনপিকে নিয়ে ভোটের সমীকরণে দেখা যাবে নতুন হিসাব-নিকাশ। খালেদা জিয়ার লন্ডন সফরে প্রাণচাঞ্চল্য ফিরে এসেছে বিএনপির নেতাকর্মীদের মাঝে। কেউ কেউ তার এই সফরকে দেখছেন দেশে-বিদেশে অবস্থানরত নেতাকর্মীদের ‘টনিক’ হিসেবে।

খালেদা জিয়া দেশে ফিরবেন না আওয়ামী লীগ নেতাদের এমন ধারণা একেবারেই ঠিক নয় মন্তব্য করে একটি সূত্র বিডি২৪লাইভকে জানায়, বেগম খালেদা জিয়া এ মাসেই দেশে ফিরছেন এটা শতভাগ নিশ্চিত। খালেদা জিয়া দেশে ফেরার জন্য খুবই উদগ্রীব। ষোড়শ সংশোধনী রায়ের পর তিনি ফুরফুরে মেজাজে আছেন। তবে তত্ত্বাবধায়ক সরকার ফিরিয়ে আনতে ত্রয়োদশ সংশোধনীর রিভিউ করবেন কিনা সে বিষয়ে দেশে ফিরেই সিদ্ধান্ত নেবেন তিনি।

সূত্রটি আরো জানিয়েছে, দলের চেয়ারপারসনকে বিশাল শোডাউন করে শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে সংবর্ধনা দেওয়া হবে। এ লক্ষ্যে নীরবে ব্যাপক প্রস্তুতিও নেওয়া হচ্ছে। খালেদার গুলশানের বাসা থেকে শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর পর্যন্ত রাস্তার দুইপাড়ে সারিবদ্ধ হয়ে ফুল দিয়ে খালেদা জিয়াকে বরণ করে নেওয়া হবে। খালেদার সংবর্ধনার দিন বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনগুলো ঢাকাকে মিছিলের নগরীতে পরিণত করতে চায়। পাশাপাশি বিমানবন্দরেও দলীয় নেতাকর্মীর ব্যাপক সমাগম ঘটাবে।

বিএনপির সিনিয়র নেতাদের সাথে কথা বলে জানা যায়, বেগম জিয়া দেশে ফিরবেন না আওয়ামী লীগ নেতাদের এমন বক্তব্যের কড়া জবাব দিতে ও দলীয় নেতাকর্মীদের উজ্জীবিত করতেই মূলত এ শোডাউনের আয়োজন করা হচ্ছে। এ ছাড়াও এ আয়োজনে নেতাকর্মীদের উপস্থিতি দেখে জনগণও বিএনপির সামর্থ্য সম্পর্কে অবাক হবেন বলেও মনে করছেন তারা।

বিএনপির একটি সূত্র জানায়, দলের চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া দেশে ফিরেই সারাদেশে দল গোছানোর কাজ শেষ দেখতে চান। দল গোছানো হওয়ার পরই সহায়ক সরকারের রূপরেখা প্রকাশ করবেন। রূপরেখা প্রকাশের পর বিভিন্ন মহলের প্রতিক্রিয়া এবং সরকারের মনোভাব পর্যবেক্ষণ করবেন কিছুদিন। তারপর প্রয়োজন মতো আন্দোলনের ডাক দেবেন বলেও জানিয়েছেন তারা।

উল্লেখ্য, চিকিৎসা ও পরিবারের সঙ্গে সময় কাটাতে গত মাসে লন্ডন সফরে যান বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া।

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন: