প্রচ্ছদ বাংলাদেশ রাজনীতি

মনোনয়ন বঞ্চিতদের মধ্যে থেকে নির্বাচনকালীন সরকারের মন্ত্রিসভা

163
মনোনয়ন বঞ্চিতদের মধ্যে থেকে নির্বাচনকালীন সরকারের মন্ত্রিসভা

আর মাত্র দুই মাসের মধ্যে গঠিত হচ্ছে নির্বাচনকালীন সরকার। নির্বাচনকালীন সরকার প্রধানমন্ত্রীর একক এখতিয়ারবিহীন একটি বিষয়। নানা ব্যস্ততার মধ্যেও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নির্বাচনকালীন সরকার নিয়ে কাজ করছেন। এ ব্যাপারে কয়েকজনের সঙ্গে তিনি আলাপ-আলোচনাও করছেন। আওয়ামী লীগের দায়িত্বশীল সূত্রগুলো বলছে, নির্বাচনকালীন সরকারের অবয়ব মোটামুটি চূড়ান্ত। গতবারের মতোই ১২ থেকে ১৫ সদস্যের মন্ত্রিসভা এই  নির্বাচনকালীন সরকারে থাকবে।

আওয়ামী লীগের একটি সূত্র বলছে, জাতীয় সংসদে নেই এমন রাজনৈতিক দলের মধ্যে থেকে  নির্বাচনকালীন সরকারের সদস্য করার সুযোগ কম। তবে, অংশগ্রহণমূলক নির্বাচনের স্বার্থে সংসদের বাইরে থেকে এক/দুইজনকে এই মন্ত্রিসভায় রাখার চিন্তাভাবনা চলছে। আওয়ামী লীগের একাধিক সূত্র বলছে, প্রধানমন্ত্রী  নির্বাচনকালীন মন্ত্রিসভায় একটি নিরপেক্ষ রূপ দেওয়ার চিন্তা করছেন। প্রধানমন্ত্রী ছাড়া মন্ত্রিসভার বেশিরভাগ সদস্যই হয়তো আগামী নির্বাচনে সংসদ সদস্যপদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা নাও করতে পারেন। অবশ্য এটি এখনো একটি চিন্তা মাত্র। যেমন বর্তমান অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত, আগামী নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবেন না। সংসদ উপনেতা সৈয়দা সাজেদা চৌধুরীরও আগামী নির্বাচনে অংশগ্রহণের সম্ভাবনা কম। সাবেক ডেপুটি স্পিকার শওকত আলী সম্ভবত আগামী নির্বাচন করছেন না। এছাড়াও বর্তমান জাতীয় সংসদে নৌকা প্রতীকে বিজয়ী অন্তত ১০০ থেকে ১৫০ জন আগামী নির্বাচনে আওয়ামী লীগের টিকেট না পাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। নির্বাচন সরকারের প্রভাবমুক্ত এটা দেখাতে আওয়ামী লীগ সভাপতি এরকম মনোনয়ন বঞ্চিতদের মধ্যে থেকে নির্বাচনকালীন সরকারের মন্ত্রিসভায় অন্তর্ভুক্ত করতে পারেন বলে একটি সূত্র আভাস দিয়েছে।

আরও পড়ুন:  জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ায় জাতীয় পার্টিকেও যুক্ত করার চেষ্টা , কঠোর হচ্ছে সরকার

২০১৪ এর নির্বাচনের আগে প্রথম দলীয় নির্বাচনকালীন সরকার গঠিত হয়েছিল, সে সময় প্রধানমন্ত্রী ২০০৮ সালের নবম জাতীয় সংসদের সকল রাজনৈতিক দলের অংশগ্রহণে নির্বাচনকালীন সরকার গঠনের ঘোষণা দিয়েছিলেন। তৎকালীন জাতীয় সংসদে প্রধান বিরোধী দল বিএনপিকেও নির্বাচনকালীন সরকারের মন্ত্রিসভায় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় দেওয়ার প্রস্তাব করেছিলেন প্রধানমন্ত্রী। এ নিয়ে সংলাপের আমন্ত্রণ জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে টেলিফোন করেছিলেন।

কিন্তু বিএনপি এবং বেগম খালেদা জিয়া নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের দাবিতে অনড় থেকে ঐ নির্বাচন বর্জন করেছিলেন। বিএনপি নির্বাচন বর্জন করলেও ঐ অন্তর্বতী সরকারে বেগম রওশন এরশাদ ও জাতীয় পার্টির প্রতিনিধিরা, জাসদ নেতা হাসানুল হক ইনু, ওয়ার্কাস পার্টির রাশেদ খান মেনন যোগ দিয়েছিলেন। নির্বাচনকালীন সরকারে তাঁরা মন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছিলেন। বেগম মতিয়া চৌধুরী, নূরুল ইসলাম নাহিদ, আবুল মাল আবদুল মুহিত, ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশারফ হোসেন প্রমুখ মন্ত্রিসভার সদস্যরা নির্বাচনকালীন সরকারেরও দায়িত্ব পালন করেন। তোফায়েল আহমেদ, আমীর হোসেন আমুর মতো ডার্কসাইটে নেতারা যারা আওয়ামী লীগ সরকারের মন্ত্রিসভায় ছিলেন না, তাদের নির্বাচনকালীন মন্ত্রিসভায় রাখা হয়। আওয়ামী লীগের একাধিক সূত্র বলছে, এবারও নির্বাচনকালীন সরকারে অনেক নতুন মুখ থাকবে। তবে, নির্বাচনকালীন সরকারকে একটি নিরপেক্ষ আদল দেওয়ার ভাবনা আওয়ামী লীগে বেশ জোরেসোরেই আলোচিত হচ্ছে।

শেয়ার করুন :
  • 32
    Shares

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন

Loading Facebook Comments ...