প্রচ্ছদ রাজনীতি বিএনপি

যেকোনো মূল্যে আগামী নির্বাচনে অংশগ্রহণের নির্দেশ খালেদা জিয়ার

31
যেকোনো মূল্যে আগামী নির্বাচনে অংশগ্রহণের নির্দেশ খালেদা জিয়ার

কারাগারে বন্দী থাকলেও এমনকি নিজে নির্বাচনে অংশগ্রহণ না করতে পারলেও, দলকে আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ নেয়ার নির্দেশ দিয়েছেন বেগম খালেদা জিয়া। নাজিমউদ্দিন রোডের পুরাতন কারাগার থেকে এরকম একটি নির্দেশনা বার্তা এসেছে বলে জানিয়েছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। গতরাতে, বেগম জিয়ার এই বার্তা নিয়ে বৈঠকে বসেন বিএনপির সিনিয়র নেতারা।

রাতে গুলশানে দলীয় চেয়ারপার্সনের কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত এই বৈঠকে কারাবন্দী বেগম জিয়ার এই বার্তা পাঠ করে শোনান মির্জা ফখরুল। তবে, বৈঠকে উপস্থিত কয়েকজন নেতা, এই বার্তা আদৌ বেগম জিয়ার কিনা তা নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেছেন। তাদের মতে, সরকার যেখানে বেগম জিয়াকে হাসপাতালেই নিচ্ছে না, সেখানে এরকম নিরাপত্তা বেষ্টনীর মধ্যে গোপন বার্তা কিভাবে পাঠানো সম্ভব? কেউ কেউ এটাকে সরকারের চালও বলছে। অবশ্য বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এই বার্তা যে বেগম জিয়ার তা নিশ্চিত করেছেন। আজ শুক্রবার বেগম জিয়ার নিকটাত্নীয়রা কারাগারে সাক্ষাত পেতে পারেন। রাতেই কেন্দ্রীয় নেতাদের পক্ষ থেকে বিষয়টি বেগম জিয়ার ছোট ভাই শামীম ইস্কান্দারকে জানানো হয়। বেগম জিয়াকে দেখতে গেলেই তিনি এই বার্তা নিশ্চিত করবেন বলেও জানিয়েছেন।

বিএনপির দায়িত্বশীল একাধিক সূত্র বলছে, কারাগার থেকে পাঠানো বার্তায়, বেগম জিয়া যেকোনো মূল্যে আগামী নির্বাচনে অংশগ্রহণের নির্দেশ দিয়েছেন। বেগম জিয়া শান্তিপূর্ণ আন্দোলন এবং আন্দোলনের অংশ হিসেবে নির্বাচনের জন্য অবিলম্বে প্রস্তুত হবার নির্দেশ দিয়েছেন। বেগম জিয়া তাঁর বার্তায় বলেছেন, ‘কারচুপি করেও সরকার নির্বাচনে জিততে পারবে না। জনগণকে ঐক্যবধ্য করতে পারলে নির্বাচনে জয় অনিবার্য।’ বেগম জিয়া তার বার্তায় ঐক্যবদ্ধভাবে নির্বাচন করতে বলেছেন। কিন্তু এই ঐক্য কার সঙ্গে করা হবে সেই সম্পর্কে বার্তায় স্পষ্ট কিছু নেই বলে জানা গেছে। বেগম জিয়া তার বার্তায় বলেছেন, ‘সরকার নির্বাচনের আগে ছাড়বে না, এমনকি হয়তো আমাকে নির্বাচনও করতে দেওয়া হবে না, কিন্তু তারপরও নির্বাচনে যেতে হবে। নির্বাচনই হবে, আমার মুক্তির গণভোট।’ যদিও বিএনপির একাধিক নেতাই বলছেন, নির্দলীয় নিরপেক্ষ তত্বাবধায়ক সরকার ছাড়া বিএনপি নির্বাচনে যাবে না, কিন্তু বিএনপির ভেতরে নির্বাচনমুখী স্রোতই প্রবল। বিএনপির একধিক সূত্র জানিয়েছে, ইতিমধ্যেই নির্বাচনের প্রস্তুতি বিএনপি শুরু করে দিয়েছে।

আরও পড়ুন:  ৩০ সেপ্টেম্বর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে বিএনপি জনসভা করবেই

৩০০ আসনের প্রার্থী তালিকাও লন্ডন থেকে চুড়ান্ত হয়েছে বলে একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিএনপির একজন শীর্ষ নেতা বলেছেন, ‘কৌশলগত কারণেই বিএনপি নির্বাচনে যাবার ব্যাপারে আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দিচ্ছে না। আওয়ামী লীগের অনেকেই আরেকটি ২০১৪র মতো নির্বাচনের আশায় আছে। আওয়ামী লীগকে অপ্রস্তুত করতেই নির্বাচনের ব্যাপারে বিএনপি লুকোচুরি করছে।’ ঐ নেতা এটাও জানিয়েছেন, সিলেটের নির্বাচন তাদের চোখ খুলে দিয়েছে। নির্বাচনে কিভাবে জিততে হয়, তা বিএনপি শিখেছে। সংশ্লিষ্ঠ সূত্র মতে বেগম জিয়া শুধু নয়, তারেক জিয়াও নির্বাচনে অংশগ্রহণের পক্ষে সবুজবার্তা দিয়েছেন।

শেয়ার করুন :
  • 2
    Shares

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন

Loading Facebook Comments ...