প্রচ্ছদ বাংলাদেশ রাজনীতি

আরেকটি ওয়ান ইলেভেন আসন্ন ?

31
আরেকটি ওয়ান ইলেভেন আসন্ন

হঠাৎ করেই রাজনীতিতে ওয়ান-ইলেভেনের প্রসঙ্গ নিয়ে তোলপাড় শুরু হয়েছে। আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের অভিযোগ করেছেন, ওয়ান ইলেভেনের কুশীলবরা আবার সোচ্চার। আন্দোলনে ব্যর্থ হয়ে বিএনপি দেশে নতুন করে ওয়ান-ইলেভেন ঘটানোর চক্রান্ত করছে। অন্যদিকে একই দিনে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, আওয়ামী লীগের কারণেই দেশে ওয়ান ইলেভেনের মতো পরিস্থিতি সৃষ্টি হচ্ছে। এজন্য অবিলম্বে আওয়ামী লীগের পদত্যাগ করা উচিত।

২০০৭ সালের ১১ জানুয়ারি দেশে এক নৈরাজ্যকর পরিস্থিতির মুখে সেনা সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকার দায়িত্ব গ্রহণ করে। ২০০৬ সালের ২৮ অক্টোবর বিএনপি-জামাত জোট ক্ষমতা ছেড়ে দেয়। সে সময় দেশের সংবিধানে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের বিধান ছিল। সর্বশেষ অবসর প্রাপ্ত প্রধান বিচারপতির তত্ত্বাবধায়ক সরকারপ্রধান হওয়ার সাংবিধানিক বিধান ছিল। বিচারপতি কে. এম. হাসান যেন তত্ত্বাবধায়ক সরকার প্রধান হতে পারে সেজন্য বিএনপি প্রধান বিচারপতির চাকরির বয়সসীমা বাড়িয়ে সংবিধান সংশোধন করে। আওয়ামী লীগ স্পষ্ট জানিয়ে দেয় যে, বিচারপতি কে. এম হাসানের নেতৃত্বে তত্ত্বাবধায়ক সরকার তারা মেনে নেবে না।

আওয়ামী লীগ তীব্র আন্দোলন শুরু করে। তীব্র আন্দোলনের মুখে কে. এম. হাসান তত্ত্বাবধায়ক সরকার প্রধান হবেন না বলে ঘোষণা দেন। কিন্তু তত্ত্বাবধায়ক সরকার প্রধান নির্বাচনের পরবর্তী ধাপ অনুসরণ না করে, রাষ্ট্রপতি ড. ইয়াজউদ্দিন আহমেদ নিজেকে তত্ত্বাবধায়ক সরকার প্রধান ঘোষণা করেন। আওয়ামী লীগ তাঁকে পর্যবেক্ষণ করার সিদ্ধান্ত নেয়। কিন্তু একের পর এক পক্ষপাতমূলক সিদ্ধান্তের ফলে ইয়াজউদ্দিন বিতর্কিত হয়ে ওঠেন। এসময় এরশাদকে একটি মামলায় দণ্ডিত করে হাইকোর্ট তাঁকে নির্বাচনের অযোগ্য ঘোষণা করে। এরপর সব রাজনৈতিক দল নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা দেয় । অন্যদিকে, বিএনপির অনুগত ড. ইয়াজউদ্দিন যেকোনো মূল্যে ২২ জানুয়ারির নির্বাচন অনুষ্ঠানে অটল থাকেন। অস্থির, নৈরাজ্যকর এবং ভয়াল একটি রাজনৈতিক পরিবেশে বিভিন্ন দেশের কূটনীতিক এবং দেশের সুশীল সমাজের একাংশ মিলে একটি নতুন তত্ত্বাবধায়ক সরকারের প্রস্তাব তৈরি করে। আর সেনাবাহিনী তাতে সমর্থন দেয়। আপাত দৃষ্টিতে ওয়ান ইলেভেনের মূল উদ্দেশ্য ছিল সন্ত্রাস, নৈরাজ্য এবং দু:সহ জনজীবন থেকে দেশের মানুষকে মুক্তি দেওয়া। একটি অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য দেশকে প্রস্তুত করা। কিন্তু ড. ফখরুদ্দিন আহমেদের নেতৃত্বে ঐ সরকার দায়িত্ব গ্রহণ করেই রাজনীতিবিদদের বিরুদ্ধে সাঁড়াশি অভিযান শুরু করে। নির্বাচনের বদলে অনির্বাচিত সরকারটি দীর্ঘদিন ক্ষমতায় থাকার পাঁয়তারা শুরু করে। এসময় তাঁরা দুই নেত্রীকে মাইনাস করার রাজনৈতিক কৌশলও গ্রহণ করে। সুশীল সমাজ নিয়ন্ত্রিত একটি অনির্বাচিত সরকার দিয়ে দেশ পরিচালনার এই মনোভাব জনগণ প্রত্যাখ্যান করে। দুই নেত্রীকে জেলে নিয়েও শেষ পর্যন্ত ঐ অনির্বাচিত সরকার দুবছরের বেশি ক্ষমতায় থাকতে পারেনি।

আরও পড়ুন:  আওয়ামী লীগকে চাপে রাখার জন্য ভারত তৃতীয় শক্তিকে পৃষ্ঠপোষকতা দিচ্ছে

এখন প্রশ্ন হলো, বাংলাদেশে কি আরেকটি ওয়ান ইলেভেন আসার আশঙ্কা রয়েছে? একথা অনস্বীকার্য যে, ওয়ান ইলেভেন আনতে যে দূতাবাসগুলো সক্রিয় ছিল তাঁদের মধ্যে একমাত্র ভারত ছাড়া বাকি সবাই সক্রিয়। দূতাবাসগুলো একের পর এক বৈঠক করছে সুশীল সমাজের সঙ্গে। শুধু দূতাবাসগুলোই নয়, সুশীল সমাজের যে অংশটি ওয়ান ইলেভেন আনতে সক্রিয় ছিল, তারা আবারও তৎপর। কিন্তু ২০০৭ সালে ড. ফখরুদ্দিন আহমেদের সরকারের ক্ষমতা গ্রহণের পেছনে আরও দুটি উপাদান ছিল গুরুত্বপূর্ণ। এর একটি হলো রাজনৈতিক বিশৃঙ্খলা এবং সহিংসতা। অন্যটি সেনাবাহিনীর ভূমিকা। দেশে এখন কোনো রাজনৈতিক বিশৃঙ্খলা নেই। ২০১৪ এবং ২০১৫ সালে মানুষ সন্ত্রাস এবং সহিংসতার রাজনীতি ঘৃণাভরে প্রত্যাখ্যান করেছে। জ্বালাও পোড়াও করার শক্তি ও সাহস দেশের বিরোধী দলের নেই। বাংলাদেশ সেনাবাহিনীও এখন ২০০৭ সালের সেনাবাহিনী নয়। সেনাবাহিনী এখন অনেক পেশাদার, দক্ষ এবং আন্তর্জাতিক মান সম্পন্ন।

আর সবচেয়ে বড় কথা, বাংলাদেশের বর্তমান সংবিধান অনুযায়ী আর ওয়ান ইলেভেন আসার সুযোগ নেই। সংবিধানের ৭ (ক) অনুচ্ছেদে অসাংবিধানিক পন্থায় ক্ষমতা গ্রহণকে রাষ্ট্রোদ্রোহ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। তাই ওয়ান ইলেভেন এখন কেবল এক শ্লোগান আর রাজনৈতিক স্টান। বাস্তবে বাংলাদেশে আবার ওয়ান ইলেভেন আসার সুযোগ খুবই কম।

শেয়ার করুন :
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন

Loading Facebook Comments ...