প্রচ্ছদ ভিন্ন স্বাদের খবর

পানির উপরে দানবের মাথা , ক্যামেরায় ধরা পড়ল

72
পানির উপরে দানবের মাথা , ক্যামেরায় ধরা পড়ল
লকনেসের রহস্য আজও অমলিন। প্রতীকী ছবি: শাটারস্টক

সেই কবে থেকে পর্যটকদের কাছে চরম আকর্ষণীয় স্থান স্কটল্যান্ডের বিখ্যাত লক নেস হ্রদ। পাহাড়ে ঘেরা অনুপম সৌন্দর্যই এই জনপ্রিয়তার একমাত্র কারণ নয়। প্রধান কারণও নয়। এই জায়গার মূল খ্যাতি ‘লক নেস মনস্টার’-এর কারণে। এই মনস্টার এক অতিকায় দানব। যাকে আদর করে ‘নেসি’ বলে ডাকেন ভক্তরা। নানা সময়ে একে দেখার দাবি করেছেন বিভিন্ন মানুষ। এবার সেই তালিকায় যুক্ত হল এক বারো বছরের বালিকার নামও। 

এক সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদন থেকে জানা যাচ্ছে, ওই বালিকার নাম শার্লট রবিনসন। এই খুদে তার ক্যামেরায় বন্দি করে ফেলেছে নেসির ছবি। তবে খুব কাছ থেকে নয়, বেশ খানিকটা দূরত্ব থেকে সে এই ছবি তুলেছে। কিন্তু সেই ছবি নিয়েই শোরগোল পড়ে গিয়েছে।

শার্লট জানিয়েছে, ‘‘তীর থেকে প্রায় ৫০ ফুট দূরে জলের উপরে মাথা তুলেছিল দানবটি। আমি ওর ছবি তুলে ফেলি। ওর গলা আর মাথাটা দেখে মনে হচ্ছিল একটা হুক।’’

শার্লট আরও জানিয়েছে, সে নেসির মস্ত ভক্ত। কিন্তু এতদিন সে প্রত্যক্ষ প্রমাণের অপেক্ষায় ছিল। অবশেষে সে দেখা পেল নেসির। তবে তার মা কিন্তু মেয়ের কথায় বিশ্বাস করছেন না।

আরও পড়ুন:  নাইট ক্লাবে আজান, কালিমা ও দরুদ পড়িয়ে প্রশংসায় ভাসছেন যুবক (ভিডিও)

মা বিশ্বাস না করলে কী হবে, ‘লক নেস মনস্টার’ বিশেষজ্ঞ স্টিভ ফেলথাম জানিয়েছেন, তিনি ওই ছবি দেখে উত্তেজিত। গত কয়েক বছরে ওই দানবের যত ছবি উঠেছে তার মধ্যে এই ছবি অন্যতম শ্রেষ্ঠ। প্রসঙ্গত, এই বছরে এই নিয়ে চারটি ছবি সামনে এল নেসির।

কিন্তু আদৌ কি এমন এক প্রাণী সত্যিই রয়েছে বাস্তবে? এর উত্তর অবশ্য গত কয়েক দশক ধরে খুঁজে চলেছেন অনুসন্ধিৎসু মানুষ। সেই কবে ১৯৩৩ সালে অ্যালেক্স ক্যাম্পবেল নামের এক ব্যক্তি প্রথম এই দানব দেখার দাবি করেন। সেই শুরু। রাতারাতি মিথে পরিণত হয় ‘লক নেস মনস্টার’।

সেই রহস্য আজও অব্যাহত। আজও বিশ্বাসীদের নজরে জলের গভীর থেকে মাথা তোলে সে। লক নেস দানব।

শেয়ার করুন :
  • 17
    Shares

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন

Loading Facebook Comments ...