প্রচ্ছদ খেলা ক্রিকেট

চলে গেলেন লিটন , শান্ত ও সাকিব

0

প্রথম ম্যাচে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে দুর্দান্ত এক জয়, দ্বিতীয় ম্যাচে আফগানিস্তানের কাছে পুরোপুরি বিধ্বস্ত হওয়ার পর আর নিজেদের ভুলগুলোও শোধরানোর সময় এবং সুযোগ পেলেন না বাংলাদেশ দলের ক্রিকেটাররা। আবুধাবি থেকে গতরাতে ম্যাচ শেষ করেই দুবাই চলে আসতে হলো মাশরাফিদের। আজ সেখানেই হাইভোল্টেজ ম্যাচে তারা মুখোমুখি ভারতের

এশিয়া কাপ সুপার ফোরের প্রথম ম্যাচে টাইগার ওপেনার লিটন দাসকে আউট করলেন ভারতের ফাস্ট বোলার ভুবনেশ্বর কুমার। ইনিংসের ৫ম তম ওভারের ৩য় বলে কেদার জাদবের হাতে ক্যাচ দিয়ে প্যাভিলিয়নে ফিরেন লিটন। তিনি করেন ৭ রান।

এরপর লিটন দাসের পথেই হাঁটলেন নাজমুল হোসেন শান্ত (৭ রান)। ইনিংসের ৬ষ্ঠ ওভারের ১ম বলেই ক্যাচ আউট হন তিনি। তাকে আউট করেন যাশপ্রিত বুমরাহ।

নাজমুল হোসেন শান্ত পর সাকিব আল হাসান ও একি কাজ করেন । জাদেজার বলে বেক্তিগত ১৭ রানে শিখর ধাওয়ান এর কাছে ক্যাচ তুলে দেন ।

শেষ খবর পাওয়া পযন্ত বাংলাদেশের সংগ্রহ ৩ উইকেটে ৫২ রান, ওভার ১৩ । মাঠে আছেন মুশফিকুর রহিম (১৩) ও মিথুন (০৫)।

এর আগে শুক্রবার (২১ সেপ্টেম্বর) দুবাই ইন্টারন্যাশন্যাল স্টেডিয়ামে টস জিতে বোলিং করার সিদ্ধান্ত নেন ভারত অধিনায়ক রোহিত শর্মা। বাংলাদেশ সময় ম্যাচটি শুরু হয়েছে বিকাল সাড়ে পাঁচটায়। সরাসরি সম্প্রচার করছে গাজী টিভি, বিটিভি ও স্টার স্পোর্টস-১।

বাংলাদেশ-ভারত ম্যাচ এখনও মহারণের মর্যাদা না পেলেও ২০১৫ বিশ্বকাপের পর থেকে এ দু’দলের লড়াই যথেষ্ট চিত্তাকর্ষক হয়ে উঠেছে। মাঠ ও মাঠের বাইরে কথার ঝাঁজ ও উত্তেজনার রসদের কোনো কমতি থাকে না।

আরও পড়ুন:  সাকিবকে টপকে ওয়ানডে সেরা অলরাউন্ডার রশিদ খান

এর পেছনে বড় ভূমিকা আছে মেলবোর্নে ২০১৫ বিশ্বকাপের সেই অগ্নিগর্ভ কোয়ার্টার ফাইনালের। যে ম্যাচে চরম বিতর্কিত আম্পায়ারিংয়ের বলি হতে হয়েছিল বাংলাদেশকে। ম্যাচে ভারতের অন্যয় সুবিধা পাওয়ার পাশাপাশি ভারতীয় মিডিয়ার ‘মওকা, মওকা’ স্লোগান আগুনে ঢেলেছিল ঘি।

বাংলাদেশ-ভারত ম্যাচে উত্তেজনা আমদানিতে দ্বিতীয় অনুঘটক ওয়ানডেতে বাংলাদেশের সমীহ জাগানো দল হয়ে ওঠা। ঘোষণা দিয়ে বাংলাদেশকে হারানোর দিন শেষ হয়ে যাওয়ায় ভারতও এখন এই ম্যাচের আগে চাপে থাকে। পরিসংখ্যান দেখলেই বোঝা যায়, ক্রমেই কমে আসছে দু’দলের ব্যবধান।

এশিয়া কাপে ভারতের বিপক্ষে বাংলাদেশের পারফরম্যান্স মোটেই ভালো নয়। এখন পর্যন্ত এশিয়া কাপে ১০ বার মুখোমুখি হয়েছে দুই দল। যেখানে ভারতের জয় নয়টিতে। বাংলাদেশ জিতেছে কেবল একটি ম্যাচে। সেটিও ২০১২ সালে ঘরের মাঠে। এছাড়া সব মিলিয়ে ৩৩ ম্যাচে মুখোমুখি হয়ে বাংলাদেশের পাঁচ জয়ের বিপরীতে হার রয়েছে ২৭টিতে। একটি ম্যাচ হয়েছে পরিত্যক্ত।

শেয়ার করুন :

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন

Loading Facebook Comments ...