প্রচ্ছদ বাংলাদেশ রাজনীতি

ঢাকা ৩ ও ঢাকা ৪ আসনের মনোনয়ন

131
ঢাকা ৩ ও ঢাকা ৪ আসনের মনোনয়ন
ছবি : সংগৃহীত

ডিসেম্বরের শেষ সপ্তাহে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন। দেশের সর্বত্র বইছে ভোটের হাওয়া। চলছে জল্পনা-কল্পনা। মনোনয়ন প্রত্যাশীদের বেড়ে গেছে দৌড়ঝাঁপ। সব আলোচনা এখন ভোট নিয়ে। ক্ষমতাসীন অাওয়ামী লীগ তৃতীয় মেয়াদে সরকার গঠনের মিশনে ভোটের মাঠে নেমেছে আগেই।

দেশের অন্যতম বড় রাজনৈতিক শক্তি বিএনপির নির্বাচন নিয়ে দোটানা এখনও কাটেনি। তবে বসে নেই দশম জাতীয় সংসদ বর্জন করা দলটির সম্ভাব্য প্রার্থীরা। ভোটের মাঠে নৌকা প্রতীকের মনোনয়ন প্রত্যাশীদের ভিড়ে ধানের শীষের প্রার্থীদের আনাগোনাও চোখে পড়ছে। দেশের অন্যসব জায়গার মতোই রাজধানীতেও ভোটের আমেজ ছড়িয়ে পড়ছে।

জাতীয় সব নির্বাচনেই রাজধানীর থাকে আলাদা গুরুত্ব। নির্বাচনী হাওয়া বা আন্দোলনের গতি কোন দিকে তা দেখা ও জানার জন্য সারা দেশ তাকিয়ে থাকে ঢাকার ২০টি সংসদীয় আসনের দিকে। ঢাকা জেলার আসনগুলোর মধ্যে দুই সিটি কর্পোরেশনে পড়েছে ১৫টি আসন। সব আসনেই আওয়ামী লীগ-বিএনপি বা জোট-মহাজোটের সম্ভাব্য প্রার্থীর ছড়াছড়ি।

এসব আসনে প্রধান দুই দলের মনোনয়ন প্রত্যাশী দুই শতাধিক প্রার্থী। বিপুল সংখ্যক মনোনয়নপ্রত্যাশী থাকায় চাপে পড়েছে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি। বেশ কিছু আসনে প্রার্থী বাছাইয়ে হিমশিম খেতে হচ্ছে দল দুটিকে। সম্ভাব্য প্রার্থীরাও বেশ উদ্বেগের মধ্যে রয়েছেন। একেকটি আসনে ক্ষমতাসীন ও সরকারবিরোধী- দুই শিবির থেকেই গড়ে চার-পাঁচজন করে সম্ভাব্য প্রার্থী নির্বাচনের মাঠে রয়েছেন। শেষপর্যন্ত কে দলীয় মনোনয়ন পাবেন, তা নিয়ে অনিশ্চয়তার দোলাচলে মনোনয়নপ্রত্যাশীরা।

ঢাকা-৩ (কেরানীগঞ্জ) আসনের মনোনয়ন প্রত্যাশী

কেরানিগঞ্জ উপজেলার জিনজিরা, আগানগর, তেঘরিয়া, কোন্ডা ও শুভাঢ্যা ইউনিয়ন নিয়ে ঢাকা ৩ আসন গঠিত। এ আসনের বর্তমান এমপি এবং বিদ্যুৎ ও জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপু। দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত এই প্রতিমন্ত্রী ব্যক্তিগত ইমেজের কারণে এবারও ক্ষমতাসীন দলের মনোনয়ন পাওয়া অনেকটাই নিশ্চিত। তবে স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা হাজী মো. আতাউর রহমানও এবার দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশী।

এক সময় বিএনপির ঘাঁটি হিসেবে পরিচিত এ আসনে এবার ধানের শীষ নিয়ে নির্বাচনের প্রস্তুতি নিচ্ছেন দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়। তবে বিএনপির এই কেন্দ্রীয় নেতার বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলাগুলোর কারণে আইনগত জটিলতার আশঙ্কা রয়েছে।

আরও পড়ুন:  মনোনয়ন বঞ্চিতদের মধ্যে থেকে নির্বাচনকালীন সরকারের মন্ত্রিসভা

এক্ষেত্রে তার মেয়ে বিএনপির প্রান্তিক জনশক্তি উন্নয়ন বিষয়ক সহ-সম্পাদক নিপুন রায় দলের মনোনয়ন পেতে পারেন বলে জানা গেছে। প্রধান দুই দলের বাইরে ঢাকা-৩ আসনে জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় নেতা ও শুভাঢ্যা ইউনিয়নের রমজান ভূঁইয়া এবার দলীয় মনোনয়নে নির্বাচন করার প্রস্তুতি নিচ্ছেন।

ঢাকা-৪ (শ্যামপুর-কদমতলী)

এ আসনের বর্তমান এমপি সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা। জোটগত নির্বাচন হলে মহাজোট থেকে তিনি ফের প্রার্থী হতে চান। জাতীয় পার্টি যদি এককভাবে নির্বাচনে অংশ নেয়, সেক্ষেত্রে লাঙ্গল প্রতীকেই তিনি ভোট লড়াইয়ে নামার প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছেন।

স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতারা আসনটি এবার জাতীয় পার্টিকে ছেড়ে দিতে নারাজ. তারা এমপি হিসেবে দেখতে চান দলের কাউকে। এরই মধ্যে এ আসন থেকে মনোনয়ন প্রত্যাশী আওয়ামী লীগের সাবেক এমপি অ্যাডভোকেট সানজিদা খানম ভোটের মাঠে ব্যাপক গণসংযোগ চালিয়ে যাচ্ছেন।

ক্ষমতাসীন দলের মনোনয়ন প্রত্যাশীদের তালিকায় আরও রয়েছেন- দলীয় সভানেত্রীর সাবেক সহকারী একান্ত সচিব ড. আওলাদ হোসেন, শ্যামপুর থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি তোফাজ্জল হোসেন, শ্যামপুর ইউপি চেয়ারম্যান শফিকুল ইসলাম সাইজুল, ঢাকা মহানগর ছাত্রলীগের সাবেক যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মুনির হোসেন স্বপন এবং বাংলাদেশ হোমিওপ্যাথিক বোর্ডের চেয়ারম্যান ডা. দিলীপ কুমার রায়।

রাজধানীর শ্যামপুর-কদমতলী থানা নিয়ে গঠিত এই আসনে ২০০৮ সালের নির্বাচনে বিএনপির প্রার্থী ছিলেন সাবেক মন্ত্রী আবদুল হাই। এবার তিনি নিজ এলাকা মুন্সিগঞ্জ-৩ আসনে নির্বাচন করতে আগ্রহী। তবে কোনো কারণে ওই আসনে প্রার্থী হতে না পারলে ঢাকা -৪ আসনে দলীয় মনোনয়ন চাইবেন বলে জানিয়েছেন।

এক্ষেত্রে আসনটিতে বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশীদের তালিকায় রয়েছেন তিনজন। তারা হলেন- ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও শ্যামপুর থানার সাধারণ সম্পাদক আ ন ম সাইফুল ইসলাম, সাবেক এমপি সালাহউদ্দিন আহমদের ছেলে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক তানভির আহমেদ রবিন ও সাবেক ওয়ার্ড কমিশনার মীর হোসেন মিরু।

শেয়ার করুন :
  • 49
    Shares

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন

Loading Facebook Comments ...