প্রচ্ছদ বিশ্ব সংবাদ

মারা যাওয়ার আগে ‘ভয়ঙ্কর সত্য’ জানালেন এই নার্স

87

এক সেবিকা তার ১২ বছরের কর্মজীবনে পাঁচ হাজার শিশু অদল-বদল করেছেন। আর এ কাজটি তিনি নিছক মজার করেই করেছেন। মৃত্যুশয্যায় এমন স্বীকারোক্তি দেওয়া ওই নার্সের নাম এলিজাবেথ মুয়েআ। তিনি আফ্রিকার জাম্বিয়া ইউনিভার্সিটি টিচিং হাসপাতালের প্রসূতি ওয়ার্ডে কাজ করতেন।

জাম্বিয়া অবজারভার নামের একটি পত্রিকার খবরে বলা হয়েছে, এলিজাবেথ মুয়েআ বর্তমানে মরণব্যাধি ক্যানসারে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। তার এই কাজের জন্য সৃষ্টিকর্তার কাছে ক্ষমা চেয়েছেন ওই সেবিকা।

হাসপাতালের বেডে শুয়ে এ প্রসঙ্গে জাম্বিয়ার অবজারভারকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে মুয়েআ বলেন, ‘আমি খুব শিগগিরই মারা যাবো। তবে মারা যাওয়ার আগে আমার অপরাধ স্বীকার করতে চাই। বিশেষ করে ঈশ্বরের কাছে এবং সেইসব লোকদের কাছে, যারা ইউনিভার্সিটি টিচিং হাসপাতালে সন্তান জন্ম দিয়েছেন।’

আরও পড়ুন:  আগামী ১ আগস্ট থেকে বোরকা পরলেই ১৪ হাজার টাকা জ'রিমানা

শয্যাশায়ী ওই বৃদ্ধা নার্স বলেন, ‘আমি ১৯৮৩ থেকে ১৯৯৫ সাল পর্যন্ত অন্তত পাঁচ হাজার শিশুকে অদল-বদল করেছি। কোনো কিছুর লাভে এটা করিনি। শুধু মজা করতে এই ঘৃণ্য কাজ করেছি আমি। আমি এখন অনুতপ্ত। আমি চাই, ঈশ্বর ও জাম্বিয়ানরা আমাকে ক্ষমা করুক।’

ওই নার্স আরও বলেন, ‘আমার কারণে অনেকেই তাদের সত্যিকারের মায়ের আদর পাননি। অনেক মা নিজের শিশুর বদলে দুধ পান করিয়েছেন অন্যের শিশুকে। আমি এ অপরাধের জন্য নরকে যেতে চাই না। দয়া করে আমাকে ক্ষমা করে দিন।’

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

সর্বশেষ আপডেট

শেয়ার করুন :
Loading...

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন

Loading Facebook Comments ...