প্রচ্ছদ অর্থ ও বাণিজ্য

*করোনার প্রভাবে দাম বাড়ছে নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের*

98

পড়া যাবে: < 1 minute

*বিশ্ব জুড়ে নভেল করোনা ভাই’রাসের আতঙ্ক। বাংলা’দেশে তেমন প্রভাব না থাকলেও এরই মধ্যে অসাধু ব্যবসায়ীরা নিত্য’প্রয়োজনীয় জিনিসের দাম বাড়িয়ে নিজে’দের পকেট ভারি করছেন। রোব’বার (১৫ মার্চ) রাজ’ধানীর বাজারে ঘুরে দেখা যায় গত সপ্তা’হের চেয়ে এ সপ্তাহে প্রায় প্রতিটি জিনি’সের দাম বা’ড়ানো হয়েছে।*

*বি’ভিন্ন কাঁচা’বাজার ঘুরে দেখা যায়, শসা, শিম, শালগম, গাজর, ফুল’কপি, বাঁধা’কপি, সপ্তাহের ব্যব’ধানে ৫ থেকে ১০ টাকা বেড়েছে। তবে করলা আগের মতো ১২০-১৩০ কেজি বিক্রি হচ্ছে। মাঝারি আকা’রের লাউ বিক্রি হচ্ছে ৪০-৫০ টাকা পিস। বর’বটির কেজি বিক্রি হচ্ছে ৯০-১১০ টাকা। এ’ছাড়া শসা ২০-৩০ টাকা, পেঁপে ৪০-৫০ টাকা, পাকা টমেটো ৫০-৬০ টাকা, শিম ৩০-৪০ টাকা।*

আরও পড়ুন:  সরকারি চিকিৎসকরা টক শো’তে কোনো মন্তব্য করতে পারবেন না, আসছে নিষেধাজ্ঞা

*মাছের বাজা’রের বিক্রে’তারা জা’নান, বড় ইলিশ এক হাজার থেকে ১২০০ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে। শোল মাছ ৬০০ থেকে ৬৫০ টাকা, পাব’দা ও টেংরা ৫৫০ থেকে ৬০০ টাকা, চিং’ড়ি ৭০০ টাকা, বো’য়াল বড় ৮০০ টাকা, দেশি কই ৬০০ টাকা, চাষের কই ৩০০ টাকা, শিং ৫০০ টাকা কে’জি বিক্রি হচ্ছে। তবে খু’শির খবর হল পেয়াঁ’জের দাম ক’মেছে।*

*খুচরা বা’জারে ৫০ থেকে ৬০ টাকা কেজি’তে মুড়ি’কাটা পেঁ’য়াজ বিক্রি হচ্ছে। কারওয়ান’বাজারের পাই’কারি বাজারে মুড়ি’কাটা দেশি পেঁ’য়াজ ৩৫ থেকে ৪০ টাকা, পাকিস্তানি ৬৪ টাকা, চায়না ৫০ টাকা ও হলেনের পেঁয়াজ ৪৫ টাকা কেজি’তে বিক্রি হ’চ্ছে, তবে বাজারে এখন সব’চেয়ে বেশি বিক্রি হচ্ছে দেশি মুড়ি’কাটা পেঁয়াজ।*

আরও পড়ুন:  ২৪ ঘণ্টায় করোনাক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন আরও ৫ জন।

*কারওয়ান’বাজারের পেঁয়া’জের পাই’কারি বি’ক্রেতা মামুন বলেন, পনের’দিনের ব্যব’ধানে দেশি পেঁয়া’জের দাম কেজি’তে ২০ থেকে ২৫ টাকা ক’মেছে। দাম আরও ক’মতে পারে। কা’রণ এখন পুরো’দমে মুড়ি’কাটা পেঁ’য়াজ উঠতে শুরু ক’রেছে।*

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

  • 31
    Shares