প্রচ্ছদ এক্সক্লুসিভ

করোনা মোকাবেলায় অনেক্ষেত্রেই স্ববিরোধী সিদ্ধান্তে সরকারের অস্থিরতা প্রকাশ পাচ্ছে

45
করোনা মোকাবেলায় অনেক্ষেত্রেই স্ববিরোধী সিদ্ধান্তে সরকারের অস্থিরতা প্রকাশ পাচ্ছে
পড়া যাবে: 3 মিনিটে

ক’রোনা মো’কাবেলা করতে গিয়ে সরকার পরস্পরবিরোধী, স্ব’বিরোধী সিদ্ধান্ত নিচ্ছে, নির্দেশনা দিচ্ছে। এইসমস্ত সি’দ্ধান্ত এবং নি’র্দেশনা সমালোচিত হচ্ছে এবং এর ফলে কাজগুলো এলোমেলো হয়ে যাচ্ছে, অনেক কাজই লে’জেগোবরে হয়ে যাচ্ছে। ফলে কা’ঙ্ক্ষিত লক্ষ্য অর্জন করা যাচ্ছেনা। যখন ক’রোনা সংক্র’মণ শুরু হলো, তখন থেকেই স’রকারের মধ্যে এক ধরণের অ’স্থিরতা এবং সি’দ্ধান্ত গ্রহণে সমন্বয়ের অ’ভাব লক্ষ্য করা যাচ্ছিল। প্র’থমেই যখন সাধারণ ছুটি ঘোষণা করা হলো, মন্ত্রীপরিষদের সচিব এটাকে ছুটি বললেন এবং বললেন যে এটা সামাজিক দুরত্ব।

কিন্তু ছু’টির সঙ্গে সঙ্গে যে সা’মাজিক দুরত্ব নিশ্চিত করার জন্য মানুষ ঢাকা থেকে বে’রিয়ে না যায় বা অন্য জেলার মা’নুষ যেন ঢা’কায় প্রবেশ না করে তা নি’শ্চিত করার জন্য যে গ’ণপরিবহন ব’ন্ধ করার দরকার ছিল, সেটা তা’রা করেননি। ছু’টি ঘোষণার সঙ্গে সঙ্গে মানুষ উ’পচে পড়ে ক’মলাপুর রেল স্টেশনে, লঞ্চ ঘাটে এবং বাস স্ট্যান্ডে।

ত’খন পর্যায়ক্রমে গ’ণপরিবহন বন্ধ করে দেয়া হয়। এরকম স্ব’বিরোধীতা এখন স’র্বক্ষেত্রে ক্রমশ স্পষ্ট হচ্ছে। য’তই সময় যাচ্ছে, ততই সরকারের সি’দ্ধান্তের মধ্যে সি’দ্ধান্তহীনতা এবং স্ব’বিরোধীতা লক্ষ্যণীয়। আসুন দেখা যাক করোনা মোকাবেলায় স’রকারের প্রধান পাঁচটি স্ববিরোধী সিদ্ধান্ত-

ছুটি বনাম গার্মেন্টসসহ শিল্প কলকারখানা খোলা : সরকার একের পর এক ছুটির মেয়াদ বা’ড়িয়ে যাচ্ছে। এখন জ’নপ্রশাসন ম’ন্ত্রণালয় থেকে জানা যাচ্ছে যে, ৬মে যে ছুটির মেয়াদ শেষ হচ্ছে তা আবার বা’ড়ানো হচ্ছে এবং এটা ১৬মে পর্যন্ত বর্ধিত করা হবে। এ’কদিকে ছুটি বা’ড়ানো হচ্ছে, অন্যদিকে গা’র্মেন্টসসহ শি’ল্প কারখানাগুলো খুলে দেয়া হচ্ছে- এই সিদ্ধান্তটা অ’বশ্যই স্ব’বিরোধী। কারণ গার্মেন্টস খু’লে দেওয়ার কারণে সা’রাদেশের শ্রমিকরা প’ড়িমরি করে ঢা’কায় আসছে, সা’মাজিক বিচ্ছিন্নতা বা দুরত্বের কোন বা’লাই থাকছে না, লঞ্চ, ট্রাক বা ফে’রীতে যে যেভাবে পারছে অ’বাধে ছুটে আসছে। এর ফলে সা’ধারণ ছুটিটা একটি হা’স্যকর প্রহসনে পরিণত হয়েছে। সরকার যদি ছুটি প্’রদান করবে, তাহলে এ’ভাবে সবকিছু খু’লে দেওয়ার অর্থ কি?

আরও পড়ুন:  ময়মনসিংহ মেডিকেলে করোনার ৫০০ রোগীকে সেবা দেওয়া হবে

ঢাকার শ্রমিক বনাম কার্ড দিয়ে ঢাকায় ঢুকবে : স’রকার যখন গার্মেন্টস খো’লার অনুমতি দিলো, তখন গার্মেন্টস মালিকদের সঙ্গে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বৈঠক ক’রলো এবং সেই বৈঠকে গা’র্মেন্টস মালিকরা জানালেন যে, শু’ধুমাত্র ঢাকার আ’শেপাশের শ্র’মিকদের দিয়ে তাঁরা গা’র্মেন্টস চালাবে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জা’নালেন যে শুধুমাত্র ঢা’কার আশেপাশের শ্রমিকদের দিয়ে সীমিত আকারে গার্মেন্টস চালানো হবে। কিন্তু তাঁর দুইদিন পরেই দেখা গেল যে সরকারের আরেকটি বি’ভাগ থেকে নির্দেশ দেওয়া হলো, যে সমস্ত শ্রমিক ঢাকায় আসছে, তাদেরকে অবশ্যই ওই পোষাক কারখানার আইডি কার্ড দেখাতে হবে। তাহলে দুটো সিদ্ধান্ত কি স্ববিরোধী নয়?

১৮ মন্ত্রণালয়ের খোলা বনাম কাজ ছাড়া অফিসে আসবেন না :স’রকার সীমিত আকারে কাজ শুরু করেছিল, পঞ্চম দফা ছুটির মেয়াদ বৃদ্ধি করে। এসময় ১৮ টি মন্ত্রণালয় খোলা রাখার নির্দেশ দেয়া হয়েছিল। কিন্তু এই ম’ন্ত্রণালয়গুলোতে আস’লে কাজের কোন গতি প্রকৃতি এখন পর্যন্ত নি’শ্চিত নয়। কা’রণ এই মন্ত্রণালয়গুলো খোলার প’রপরই আবার বিভিন্ন মন্ত্রণালয় আর অধিদপ্তর তাঁ’দের কর্মকর্তাদের চি’ঠি দিয়ে জানিয়ে দিয়েছে যে, কা’জ ছাড়া অফিসে আসবেন না। ফ’লে ঐ ১৮ টি ম’ন্ত্রণালয়ের ক’র্মকর্তারা একটি ভ্রমের মধ্যে প’ড়েছে যে, তাঁদের কি আ’সলে ছুটি নাকি তাঁরা অফিসে যাবেন। এই পরস্পরবিরোধী সিদ্ধান্ত নিয়ে একটি অ’স্বস্তিতে প’ড়েছেন অনেক স’রকারি ক’র্মকর্তা।

দূ’র্নীতি’র বি’রুদ্ধে জি’রো ট’লারেন্স বনাম দূ’র্নীতিবা’জকে ধ’রিয়ে দেওয়ায় শা’স্তি : সরকার বিশেষ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন যে, করোনার সময়ে যে দূ’র্নীতি করবে তার বিরুদ্ধে ক’ঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। দূ’র্নীতি’বা’জদের বিরুদ্ধে তিনি জি’রো ট’লারেন্সের কথা বলেন একাধিক বক্তব্যে। প্’রধানমন্ত্রী নি’জেই মহানগর হা’সপাতালে যে এন-৯৫ মাস্ক সরবরাহ হয়েছে তা আসল নয় বলে ভিডিও কনফারেন্সে উল্লেখ করেন। এখন প্রধানমন্ত্রীর  যে অ’বস্থান, সেই অ’বস্থানের সম্পূর্ণ বি’রোধী অ’বস্থানে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। যারা এন-৯৫ মাস্ক জা’লিয়াতির প্’রতিবাদ করেছে, তাঁদেরকেই এখন শা’স্তির খ’ড়গে প’ড়তে হচ্ছে এবং দুইজন পরিচালককে ইতিমধ্যে শা’স্তি দেয়া হয়েছে। এই দুটি সিদ্ধান্ত পরস্পরবি’রোধী।

আরও পড়ুন:  গার্মেন্টস শ্রমিক ‘ছাঁটাই’ বন্ধের দাবি

দূর্গতদের তালিকা নিয়ে স্ববিরোধীতা : ত্রাণ যা’দের দেয়া হবে, তাঁ’দের তা’লিকা কি’ভাবে তৈ’রি হবে তাই নিয়ে স্ব’বিরোধীতা তৈরি হচ্ছে। একটি নি’র্দেশনায় দেখা যাচ্ছে যে, তা’লিকা তৈ’রি হবে জেলা প্রশাসকের নে’তৃত্বে, প্র’শাসনিকভাবে। আ’বার আওয়ামী লীগের এমপি এবং স্থা’নীয় জনপ্রতিনিধিরাও তা’লিকা সংগ্রহ করছেন। অর্থাৎ দু’টো সি’দ্ধান্ত প’রস্পরবি’রোধী এবং কোনটি স’ঠিক তা নিয়ে না’নারকম সংশয় তৈরী হচ্ছে। ফলে স্থা’নীয় পর্যায়ে দু’র্গতদের তা’লিকা তৈরি ক’রা নিয়ে এক ধরণের স’মন্বয়হীনতা শুরু থেকেই লক্ষ্য করা যাচ্ছে

এ’রকম অ’নেক্ষেত্রেই স্ব’বিরোধী সি’দ্ধান্তে স’রকারের অস্থিরতা প্রকাশ পাচ্ছে। অথচ করোনা মোকাবেলার ক্ষেত্রে দরকার সবার সম্বিলিত, সমন্বিত এবং পরিকল্পিত উদ্যোগ। শুধুমাত্র প্র’ধানমন্ত্রী শেখ হা’সিনা যে নি’র্দেশনা দিচ্ছেন, সেই নি’র্দেশনা বা’স্তবায়ন ক’রলেই ক’রোনা মো’কাবেলা করার ক্ষেত্রে আমরা অনেক দূর এ’গিয়ে যেতে পারি। কিন্তু সেই সি’দ্ধান্ত বাস্তবায়নের ক্ষেত্রেও আ’মরা দেখছি এই ধরণের অ’স্থিরতা, স্ব’বিরোধিতা এবং স’মন্বয়হীনতা।

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

সাম্প্রতিক খবর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে Bangla Magazine সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান নিউজ ম্যাগাজিন অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।

  • 28
    Shares