প্রচ্ছদ বাংলাদেশ জেলা

ঐতিহাসিক শোলাকিয়ায় হচ্ছে না ঈদুল ফিতরের জামাত

38
পড়া যাবে: 2 মিনিটে

করোনা’ভাইরাস পরিস্থিতিতে এবার দেশের সবচেয়ে বড় ঈদগাহ ময়দান কিশোর’গঞ্জের ঐতিহাসিক শোলা’কিয়ায় হচ্ছে না ঈদুল ফিতরের জামাত। করোনার বিস্তার রোধে খোলা মাঠ ও ঈদগাহে ঈদের জা’মাত অনুষ্ঠানে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে ইসলামী ফাউন্ডেশন। তাই শোলাকিয়ায় ঈদের জামাত না করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে বলে শুক্র’বার জানি’য়েছেন ঈদ’গাহ পরিচালনা কমিটির সভাপতি ও কিশোরগঞ্জের জেলা প্রশাসক মো. সারওয়ার মুর্শেদ চৌধুরী।

তিনি বলেন, দেশের সবচেয়ে বড় ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয় কিশোরগঞ্জের ঐতিহাসিক শোলাকিয়া ঈদগাহ মাঠে। কিন্তু করোনা পরিস্থিতির কারণে এবারের ১৯৩তম ঈদ-উল-ফিত’রের জামাত হচ্ছে না। সার’ওয়ার মুর্শেদ চৌধুরী জানান, ধর্ম মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে জানানো হয়েছে, উন্মুক্ত স্থানে ঈদের জামাত’ করা যাবে না। ১৮৪ নম্বর বিজ্ঞপ্তিতে স্পষ্ট বলা হয়েছে, মুসল্লিদের জীবনের ঝুঁকি ও নিরাপত্তার কথা বিবেচনা করে ঈদের জামাত’ খোলা জায়’গার পরিবর্তে নিকটস্থ মস’জিদে আদায় করতে হবে। তাই একই মসজিদে একাধিক জামাত অনুষ্ঠিত হবে।

আরও পড়ুন:  করোনা ট্রাম্পকেও ছাড়ছে না, ‘সাবধান’: দেশবাসীকে স্বাস্থ্যমন্ত্রী

এর আগে ঈদে’র জামাত বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে বৃহস্পতি’বার (১৪ মে) বিকালে আলেম-ওলামাদের সাথে বৈঠক করে ধর্ম মন্ত্রণালয়। বৈঠকে খোলা মাঠ ও ঈদগাহে ঈদের জামা’ত না করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। ধর্ম মন্ত্রণালয় এক বিজ্ঞপ্তিতে বলে, ‘ইসলামি শরিয়তে ঈদগাহ বা খোলা জায়’গায় পবিত্র ঈদুল ফিতরের নামাজের জামায়াত আদায়ের ব্যাপারে উৎসাহিত করা হয়েছে। কিন্তু বর্তমানে সারা বিশ্বসহ আমাদের দেশে করোনা’ভাইরাস পরিস্থিতিজনিত ওজরের কারণে মুসল্লি’দের জীবনের ঝুঁকি বিবেচনা করে এ বছর ঈদগাহ বা খোলা জায়গার পরিবর্তে ঈদের নামাজের জামা’য়াত নিকটস্থ মসজিদে আদায় করার জন্য অনুরোধ করা হলো।’

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, জামায়া’তে আগত মুসল্লিকে অবশ্যই মাস্ক পরে মসজিদে আসতে হবে। মসজিদে সংরক্ষিত জায়নামাজ ও টুপি ব্যবহার করা যাবে না। নামাজ আদায়ের সময় কাতারে দাঁড়ানোর ক্ষেত্রে সামাজিক দূরত্ব ও স্বাস্থ্য’বিধি অনুসরণ করে দাঁড়াতে হবে। এক কাতার অন্তর অন্তর কাতার করতে হবে। জামায়াত শেষে কোলা’কুলি এবং পরস্পর হাত মেলা’নো পরিহার করার জন্যও অনুরোধ করা হয়েছে। প্রসঙ্গত, মসনদ-ই-আলা ঈশাখাঁর বংশধর ১৮২৮ সালে কিশোর’গঞ্জ জেলা শহরের পূর্ব প্রান্তে নরসুন্দা নদীর তীরে প্রায় সাত একর জমির ওপর এ ঈদ’গাহ প্রতিষ্ঠা করেন। প্রথম অনুষ্ঠিত জামাতে সোয়া লাখ মুসল্লি অংশগ্রহণ করেন বলে মাঠের নাম হয় ‘সোয়া লাখি মাঠ’। সেখান থেকে উচ্চারণে’র বিবর্তনে নাম ধারণ করেছে আজ’কের শোলাকিয়া মাঠ।

আরও পড়ুন:  বেতন ভাতার দাবিতে শ্রমিকদের শ্রম মন্ত্রণালয় ঘেরাও কর্মসূচি পালন

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

সাম্প্রতিক খবর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে Bangla Magazine সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান নিউজ ম্যাগাজিন অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।

  • 53
    Shares