প্রচ্ছদ রাজনীতি আওয়ামী লীগ

নিরবে আওয়ামী লীগের একটি নতুন প্রজন্মের নেতৃত্ব তৈরি হচ্ছে

84
নিরবে আওয়ামী লীগের একটি নতুন প্রজন্মের নেতৃত্ব তৈরি হচ্ছে
পড়া যাবে: 2 মিনিটে

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের গত কাউন্সিলের মাধ্যমে কিছু তরুণদের সুযোগ দেওয়া হয়েছিল। আগামীর নেতৃত্বের জন্য যেন তরুণরা নিজেদের প্রস্তুত করতে পারে সেজন্য তরুণদেরকে কেন্দ্রীয় কমিটিতে স্থান দেওয়া হয়েছিল। অনেকেই তরুণদের এই উত্থানে বিস্মিত হয়েছিলেন। এমনকি আলোচিত নয় এমন তরুণরাও অনেক বড় বড় পদ পেয়েছিলেন।

আওয়ামী লীগের গত কাউন্সিলের মাধ্যমে যে কমিটিটা হয়েছিল, তা হয়েছিল প্রবীণ এবং তরুণদের মিশেলে গড়া একটি কমিটি। এই তরুণরা কাউন্সিলের পর গত ৬ মাসে কেমন করলেন? দেখা যাচ্ছে যে, এই তরুণদের মধ্যে অনেকেই আলো ছড়াচ্ছেন এবং নিজেদের যোগ্যতা প্রমাণ করতে পারছেন।

বিপ্লব বড়ুয়া : আওয়ামী লীগের গত কাউন্সিল অধিবেশনে দপ্তর সম্পাদকের দায়িত্ব পেয়েছিলেন বিপ্লব বড়ুয়া এবং বিপ্লব বড়ুয়া দায়িত্ব পাওয়ার আগে থেকেই আওয়ামী লীগের সম্ভাবনাময় তরুণ উদীয়মান নেতা হিসেবে পরিচিত ছিলেন। সর্বদা মিষ্টভাষী এবং গ্রহণযোগ্যতার দিক থেকে এগিয়ে থাকা এই তরুণ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটিতে একটি অপরিহার্য নাম হয়ে দাঁড়িয়েছেন এবং তাঁর কাজ, পরিশ্রমের কারণে তিনি নেতাকর্মীদের মন জয় করেছেন।

ড. সেলিম মাহমুদ : আওয়ামী লীগের কাউন্সিলে আরেক চমক ছিলেন ড. সেলিম মাহমুদ। তাঁকে তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক করা হয়েছে। তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক হিসেবে তিনি গত ৬ মাসে প্রতিশ্রুতি রাখছেন এবং তিনি যে ভবিষ্যতে আলো ছড়াবেন সেই প্রমাণ এখনই পাওয়া যাচ্ছে।

আরও পড়ুন:  ছন্দহীন আওয়ামী লীগ ,সমন্বয়ের অভাব নেতৃত্বের মধ্যে

ওয়াসিকা আয়েশা খান : আওয়ামী লীগের সবশেষ কাউন্সিলের আরেক চমক ছিলেন প্রয়াত আওয়ামী লীগ নেতা আতাউর রহমান খান কায়সারের মেয়ে ওয়াসিকা আয়েশা খান। তিনি অর্থ ও পরিকল্পনা সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব নিয়ে নিজেকে মেলে ধরতে পারছেন এবং দলীয় কর্মকাণ্ডে তাঁর তৎপরতা দলের নীতিনির্ধারকদের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছে। তিনি ভবিষ্যতের জন্যেও একজন সম্ভাবনাময় নেতা হিসেবে নিজেকে উপস্থাপিত করেছেন।

রেমন অরেন : ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর প্রতিনিধি হিসেবে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটিতে স্থান পেয়েছেন রেমন অরেন। কেন্দ্রীয় কমিটিতে স্থান পাওয়ার পর তিনি আওয়ামী লীগের কর্মকাণ্ড, বিশেষ করে করোনা সঙ্কটের সময় তাঁর উপরে যে আস্থা রাখা হয়েছিল, সেই আস্থার প্রতিদান দিচ্ছেন এবং যথেষ্ট তৎপরতার সঙ্গে কাজ করছেন বলে আওয়ামী লীগের নীতিনির্ধারকরা মনে করছেন।

দেলোয়ার হোসেন : আওয়ামী লীগের পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পেয়েছেন দেলোয়ার হোসেন। তাঁকে নির্বাচন করাও যে ভুল হয়নি এবং তিনিও যে সুযোগ কাজে লাগাতে প্রস্তুত সেটা তিনি প্রমাণ করছেন। গত কয়েকমাসে তাঁর কর্মকাণ্ড যথেষ্ট সম্ভাবনাময় এবং তাঁকে নিয়েও দলের হাইকমান্ড আশাবাদী হয়ে উঠছেন।

আরও পড়ুন:  আওয়ামী লীগের শরিকদের মধ্যে টানাপড়েনে রাজনীতিতে নতুন মেরুকরণ

এছাড়াও আওয়ামী লীগের দুজন সাংগঠনিক সম্পাদকের দায়িত্ব পাওয়া ছিল বর রকমের চমক। এই দুজন হলেন শফিউল আলম নাদেল এবং শাখাওয়াত হোসেন। এরাও হেভিওয়েট সাংগঠনিক সম্পাদকের কাছে নিজেদের মেলে ধরতে না পারলেও এখনো আশা ভঙ্গের কারণ হননি।

আওয়ামী লীগের গত কাউন্সিলের ইতিবাচক দিক হলো এরকম বেশ কয়েকজন তরুণ নেতৃত্বকে সামনে নিয়ে আসা হয়েছে এবং এখন পর্যন্ত তাঁদের প্রতি যে আস্থা, সেই আস্থার প্রতিদান দিচ্ছেন এবং নিরবে আওয়ামী লীগের একটি নতুন প্রজন্মের নেতৃত্ব তৈরি হচ্ছে।

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

সাম্প্রতিক খবর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে Bangla Magazine সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান নিউজ ম্যাগাজিন অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।

  • 35
    Shares