প্রচ্ছদ বাংলাদেশ জাতীয়

যাদের সঙ্গে রাতে কথা বলছি, পরের দিন তাদের মৃ’ত্যুর খবর শুনছি

31
যাদের সঙ্গে রাতে কথা বলছি, পরের দিন তাদের মৃ'ত্যুর খবর শুনছি

পড়া যাবে: < 1 minute

প্রবীণ রাজনীতিক এবং গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেন বলেছেন, দুনিয়ার রঙ বদলে যাচ্ছে। জীবন দিয়ে এভাবে মানুষকে প্রকৃতির কাছে হার মানতে হবে, তা কখনও ভাবিনি। প্রকৃতির এমন বৈরী পরিবেশে মনোবল শক্ত করে বেঁচে আছি। তবে দুঃখ হয় সাধারণের ক’ষ্ট দেখে।

রোববার (২১ জুন) একটি গনমাধ্যমের সঙ্গে আলাপচারিতায় করো’নাকালীন পরিস্থিতি নিয়ে এসব কথা বলেন তিনি।

নিজের কুশল জানিয়ে ড. কামাল হোসেন বলেন, ‘পরিস্থিতি তো আর মানুষের নিয়ন্ত্রণে নেই। এমন পরিস্থিতিতে নিয়ম করে চলাই উত্তম। বাইরে যাই না একেবারেই। ওষুধ-পথ্য নিয়ম করে চলছে। সময় কাটে পরিবারের আপনজনদের সঙ্গেই। করো’না হয়নি, আপাতত এটিই বড় সান্ত্বনা।’

বাংলাদেশের এ সংবিধান প্রণেতা বলেন, ‘রাষ্ট্র চাইলে মানুষকে আরেকটু নিরাপদে রাখতে পারত। প্রচুর সময় পেয়েছিল প্রস্তুতির। তখন আমলে নেয়নি। এখনও নানা অসঙ্গতি। অথচ রোজ মানুষ ম’রছে, হাজার হাজার আ’ক্রান্ত হচ্ছে। দায় নাগরিকেরও আছে। সচেতনতার প্রশ্নে আম’রা একে অ’পরকে যেভাবে সহায়তা করার কথা, তা করছি না।’

রাজনীতির নয়া বলয় ঐক্যফ্রন্ট প্রধান কামাল হোসেন বলেন, ‘করো’নার শেষ কোথায় কেউ নির্ধারণ করতে পারছে না। এমন পৃথিবী আগে কেউ দেখেনি। মানুষ কত অসহায়! ব্যবসা-বাণিজ্য, অর্থনীতি সবই বিপর্যয়ে। সাধারণরা চাকরি হারাচ্ছে। লকডাউন আরও হু’মকিতে ফেলে দিচ্ছে জীবন-জীবিকা। সরকার হয়তো পরিস্থিতি সামলানোর চেষ্টা করছে। কিন্তু এভাবে আসলে কতদিন?’

তিনি বলেন, ‘যাদের সঙ্গে কথা বলেছি আগের রাতে, পরের দিন তাদের মৃ’ত্যুর খবর শুনতে হচ্ছে। কত পরিচিত মুখ হারিয়ে গেল। ড. আনিসুজ্জামান, কামাল লোহানী, মোহাম্ম’দ নাসিমের মতো বন্ধুদের হারাতে হলো। মাঝে মাঝে অসহায় বোধ করছি। এত শোক চারদিকে! আর কত?’

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

সাম্প্রতিক খবর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে Bangla Magazine সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান নিউজ ম্যাগাজিন অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।

প্রিয় পাঠক, স্বভাবতই আপনি নানান ঘটনার সাক্ষী। শেয়ার করুন আমাদের। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের ইমেলে পাঠিয়ে দিন, [email protected] ঠিকানায়। অথবা যুক্ত হতে পারেন @banglanewsmagazine আমাদের ফেসবুক পেজে। কোন এলাকা, কোন দিন, কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই দেবেন। আপনার পাঠানো খবরটি বিবেচিত হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে।

  • 28
    Shares