প্রচ্ছদ বাংলাদেশ জাতীয়

করোনা আমাদের জন্য সুসংবাদ এনে দিয়েছে: ড. ইউনূস

97
করোনা আমাদের জন্য সুসংবাদ এনে দিয়েছে: ড. ইউনূস
পড়া যাবে: 3 মিনিটে

করো’না মহামা’রি পৃথিবীর যে ক্ষতিসাধন করছে এক কথায় তা কল্পনাতীত। এই বিশাল ক্ষতি সত্ত্বেও এই মহামা’রি মানব জাতির সামনে একটি এমন সুযোগ এনে দিয়েছে তা আরো বেশি কল্পনাতীত।

এই মুহূর্তে মানুষের মা’থায় একটি বড় প্রশ্ন ঘুরপাক খাচ্ছে। করো’নার এই ধ্বংস যজ্ঞ থেকে বের হয়ে কী’ভাবে আবার বিশ্ব অর্থনীতিকে পুণর্গঠন করবো। সৌভাগ্যক্রমে এর উত্তর আমাদের জানা। একটি পুনরুদ্ধার কর্মসূচি কী’ভাবে ব্যবস্থাপনা করতে হয় সে অ’ভিজ্ঞতা আমাদের ভালোই আছে। যে প্রশ্নটা আমি তুলে ধরতে চাচ্ছি সেটা কিন্তু ভিন্ন।

সবার কাছে আমা’র প্রশ্ন হলো: করো’নাভাই’রাসের প্রাদুর্ভাবের আগে পৃথিবীটা যেখানে ছিল আম’রা কী’ তাকে সে-জায়গাতেই ফিরিয়ে নিয়ে যাবো? নাকি আম’রা একে নতুন ভাবে গড়ে তুলবো? সিদ্ধান্তটা পুরোপুরিই আমাদের হাতে।

এটা বলার অ’পেক্ষা রাখে না যে, করো’না-পূর্ববর্তী পৃথিবীটা আমাদের জন্য মোটেই ভালো ছিল না। পৃথিবী প্রায়ই ধ্বংসের শেষ প্রান্তে এসে পৌঁছে গিয়েছিল।
করো’নাভাই’রাসের মহাদুর্যোগ না আসা পর্যন্ত পৃথিবীতে কী’ কী’ ভ’য়ানক জিনিষ ঘটতে যাচ্ছে তা নিয়ে দুর্ভাবনার অন্ত ছিল না। জলবায়ু বিপর্যয়ের ফলে পৃথিবী মানবজাতির টিকে থাকার জন্য একেবারে অনুপযু’ক্ত হয়ে যাবার শেষ সীমায় এসে পৌঁছে গিয়েছিল। আর্টিফিসিয়াল ইনটেলিজেন্স সৃষ্ট ব্যাপক বেকারত্ব সমাজকে ভ’য়ংকর হু’মকির মুখে ফেলে দিয়েছিল।

সমগ্র পৃথিবী জুড়ে সমস্ত সম্পদ কেন্দ্রীভূত হয়ে মাত্র গোটা কয়েক মানুষের হাতে চলে গিয়েছিল- যার ফলে সামাজিক ও অর্থনৈতিক পরিস্থিতি বি’স্ফোরণোন্মুখ হয়ে দাঁড়িয়েছিল। আম’রা আক্ষরিক অর্থে পৃথিবীর শেষ ঘণ্টা বাজার অ’পেক্ষায় ছিলাম। আম’রা একে অ’পরকে স্ম’রণ করিয়ে দিচ্ছিলাম যে, বর্তমান দশকটাই আমাদের জন্য শেষ সুযোগের দশক; এরপর আমাদের সকল প্রচেষ্টারই ফলাফল হবে অ’তি নগণ্য। তা দিয়ে পৃথিবীকে আর রক্ষা করা যাবে না।

আম’রা যে পৃথিবীর বর্ণনা করলাম সেই পৃথিবীতেই ফিরে যেতে চাই? আমাদের কী’ আর কোনো উপায় নেই?

অবশ্যই আছে। আম’রা সে-পৃথিবীতে ফিরে যেতে বাধ্য নই। যাবো কি যাবো না, সেটা আমাদের সিদ্ধান্তের ব্যাপার। এটা চিন্তা করার সুযোগ পাওয়াটাই একটা মহামুক্তি।

করো’নাভাই’রাস অকস্মাৎ প্রেক্ষাপটটা বদলে দিলো এবং পৃথিবীর ক্যালকুলাস পাল্টে দিলো। এর ফলে এমন এক প্রবল সম্ভাবনার দরজা উন্মুক্ত হয়ে গেল যা আগে কখনো দেখা যায়নি। হঠাৎ করেই আম’রা ইচ্ছামতভাবে পুনর্জন্ম লাভের সুযোগ পেয়ে গেলাম। এখন আম’রা যে-কোনো দিকেই অগ্রসর হতে পারি। পথ বেছে নেয়ার কি অকল্পনীয় সুযোগ এটা।

অর্থনীতিকে আবারো সচল করার আগে আমাদেরকে একটি বিষয়ে ঐকমত্যে পৌঁছাতে হবে, আর তা হচ্ছে – কোন ধরনের অর্থনীতি আম’রা চাই। তবে সবার আগে আমাদের এ বিষয়ে একমত হতে হবে যে, অর্থনীতিটা হচ্ছে একটা ‘উপায়’, একটা কর্মপদ্ধতি। আম’রা যে লক্ষ্যগুলো স্থির করি অর্থনীতি সেগুলো অর্জনে সাহায্য করে মাত্র। এটা এমন কোনো মৃ’ত্যুফাঁদ নয় যেটা কোনো ঐশ্বরিক শক্তি আমাদেরকে শা’স্তি দেবার জন্য তৈরী করেছেন। আমাদের এক মুহূর্তের জন্যও ভুললে চলবে না যে, এটা আমাদেরই তৈরী একটি যন্ত্র মাত্র। আমাদেরকে প্রতিনিয়তই এর নকশা তৈরী করতে ও এই নকশা পুনঃসৃষ্টি করে যেতে হবে যতক্ষণ পর্যন্ত না তা আমাদের জন্য সর্বোচ্চ সমষ্টিগত সুখ নিশ্চিত করে।

কখনো যদি আমাদের এমনটা মনে হয় যে এটা আমাদেরকে কাম্য পথে নিয়ে যাচ্ছে না, আম’রা সঙ্গে সঙ্গে বুঝতে পারি যে আমাদের ব্যবহার করা হার্ডওয়্যার বা সফটওয়্যারে কোথাও কোনো সমস্যা আছে। আমাদের তখন যা করতে হয় তা হলো সমস্যাটা মেরামত করা। আম’রা একথা বলে পার পেতে পারি না যে, ‘দুঃখিত, আম’রা আমাদের লক্ষ্য অর্জন করতে পারছি না কেননা আমাদের সফটওয়্যার বা হার্ডওয়্যার এটা করতে দেবে না।’

সেটা হবে একেবারেই খোঁড়া, অগ্রহণযোগ্য একটা যু’ক্তি। আম’রা যদি শূন্য নীট কার্বন নিঃস্বরণের একটা পৃথিবী সৃষ্টি করতে চাই তাহলে আমাদেরকে এজন্য সঠিক হার্ডওয়্যার ও সফটওয়্যার তৈরী করতে হবে। আম’রা যদি শূন্য বেকারত্বের একটা পৃথিবী গড়তে চাই তাহলেও তা-ই করতে হবে।

আম’রা যদি এমন একটা পৃথিবী চাই যেখানে সম্পদের কোনো কেন্দ্রীকরণ থাকবে না, তাহলেও সেটাই আমাদেরকে করতে হবে। অর্থাৎ এই সবকিছুর জন্যই দরকার সঠিক হার্ডওয়্যার ও সঠিক সফটওয়্যার। আর এজন্য প্রয়োজনীয় সব ক্ষমতাই আমাদের হাতে। মানুষ যখনই কোনো কিছু করতে মনস্থির করে, তারা তা করে ছাড়ে; পৃথিবীতে মানুষের অসাধ্য কিছু নেই।

তবে সবচাইতে বড় সুসংবাদটি হচ্ছে, করো’না সংকট আমাদেরকে একেবারে নতুন করে সবকিছু শুরু করার প্রায় সীমাহীন একটা সুযোগ তৈরী করে দিয়েছে। আম’রা আমাদের হার্ডওয়্যার ও সফটওয়্যারগুলো প্রায় নতুন করে তৈরী করার কাজ শুরু করতে পারি।

করো’না-উত্তর পুনর্গঠনকে হতে হবে সামাজিক সচেতনতা চালিত পুনর্গঠন শুধু একটি বিষয়ে বৈশ্বিক ঐকমত্য আমাদেরকে অনেকদুর এগিয়ে নিয়ে যেতে পারে: একটি সুস্পষ্ট সিদ্ধান্ত যে, আম’রা যেখান থেকে এসেছি সেখানে আর ফিরে যেতে চাই না। পুনরুদ্ধারের নামে আগের সেই জ্বলন্ত কড়াইতে ঝাপ দিতে চাই না।- মানবজমিন

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

সাম্প্রতিক খবর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে Bangla Magazine সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান নিউজ ম্যাগাজিন অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।

  • 10
    Shares