প্রচ্ছদ বাংলাদেশ জাতীয়

দেশে করোনা চিকিৎসায় যে ওষুধটি এক নম্বরে!

22
দেশে করোনা চিকিৎসায় যে ওষুধটি এক নম্বরে!
পড়া যাবে: < 1 minute

বিশ্বব্যাপী করো’নাভাই’রাসের মহামা’রি শুরুর পর দেশে দেশে বিজ্ঞানীরা দিশাহারা হয়ে পড়েন এই ভাই’রাস মোকাবেলার পাশাপাশি চিকিৎসার নানা দিক নিয়ে। বিশেষ করে ভ্যাকসিন ও ওষুধ নিয়ে শুরু হয় একের পর এক নানামুখী গবেষণা।

তুন কোনো ওষুধ পাওয়া না গেলেও পুরনো বিভিন্ন রোগের চিকিৎসায় ব্যবহৃত ওষুধগুলো করো’নাভাই’রাসে আ’ক্রান্তদের উপসর্গ অনুসারে ব্যবহার করা শুরু হয়।

কোথাও কোনো ওষুধের গবেষণায় ন্যূনতম সাফল্যের খবর প্রচার হতে না হতেই বিশ্বব্যাপী ওই ওষুধ নিয়ে হু’মড়ি খেয়ে পড়ে চিকিৎসক থেকে শুরু করে সাধারণ মানুষ। এই তালিকায় হাইড্রোক্সিক্লোরোকুইন+ অ্যাজিথ্রোমাইসিন, রেমডেসিভির, ফেভিপিরাভির, আইভা’রমেকটিন +ডক্সিসাইক্লিন এবং সব শেষে যু’ক্ত হয় ডেক্সামেথাসনের নাম।

আইভা’রমেকটিন+ডক্সিসাইক্লিন এখন সর্বজনিন

বাংলাদেশে এর সবই কমবেশি ব্যবহার হয়েছে ও হচ্ছে, যার মধ্যে হাইড্রোক্সিক্লোরোকুইন পিছু হটলেও অন্যগুলো এখনো রয়েছে ব্যবহারের তালিকায়। তবে দেশে এখন করো’না চিকিৎসায় যেন সর্বজনিন হয়ে উঠেছে অ্যান্টিপ্রোটোজোয়াল ক্যাটাগরির জেনেরিক আইভা’রমেকটিন+ডক্সিসাইক্লিন ওষুধ। সরকারি-বেসরকারি সব হাসপাতা’লেই করো’নার রোগীদের জন্য এটি রয়েছে তালিকার শীর্ষে।

সেই সঙ্গে যাঁরা আ’ক্রান্ত হয়ে বা উপসর্গ নিয়ে বাসা-বাড়িতে অবস্থান করছেন তাঁরাও চিকিৎসকের পরাম’র্শে সবার আগে রাখছেন এই আইভা’রমেকটিন+ডক্সিসাইক্লিন। দেশে প্রথম এই আইভা’রমেকটিন+ডক্সিসাইক্লিন ডোজ শুরু করেন বাংলাদেশ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতা’লের মেডিসিন বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ডা. তারেক আলম।

এরপর থেকেই দ্রুত এই ওষুধের ব্যবহার ছড়িয়ে পড়ে দেশজুড়ে। যদিও এখন পর্যন্ত আনুষ্ঠানিকভাবে সরকারের সংশ্লিষ্ট অনুমোদনকারী সংস্থা বাংলাদেশ মেডিক্যাল রিসার্চ কাউন্সিল-বিএমআরসি থেকে এই ওষুধের অনুমোদন পাওয়া যায়নি। পরবর্তী সময়ে আইসিডিডিআরবি এই ওষুধ নিয়ে কয়েকটি হাসপাতা’লের রোগীদের ওপর ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল শুরু করেছে। অধ্যাপক তারেক আলম ও আইসিডিডিআরবি আলাদা করে এই ওষুধের প্রয়োগজনিত অনুমোদনের জন্য প্রয়োজনীয় প্রটোকল জমা দিয়েছেন বিএমআরসির কাছে।

ডা. এ বি এম আব্দুল্লাহ’র বক্তব্য

করো’নাভাই’রাস মোকাবেলায় সরকার গঠিত বিশেষজ্ঞ উপদেষ্টা কমিটির সিনিয়র সদস্য, মেডিসিন বিশেষজ্ঞ ও প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত চিকিৎসক অধ্যাপক ডা. এ বি এম আব্দুল্লাহ বলেন, হাতের কাছে এখনো কোনো চূড়ান্ত সমাধান না পাওয়ায় সহ’জলভ্য ও তুলনামূলক কম পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার ওষুধ হিসেবে আইভা’রমেকটিন সবাই ব্যবহার করছে। তবে কোনোভাবেই চিকিৎসকের পরাম’র্শ ছাড়া কোনো ওষুধই ব্যবহার করা যাবে না।

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

সাম্প্রতিক খবর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে Bangla Magazine সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান নিউজ ম্যাগাজিন অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।