প্রচ্ছদ আওয়ামী লীগ ভীমরুলের চাকের মতো ঢাকার রাজপথ দখল করার ক্ষমতা রয়েছে

ভীমরুলের চাকের মতো ঢাকার রাজপথ দখল করার ক্ষমতা রয়েছে

114
ভীমরুলের চাকের মতো ঢাকার রাজপথ দখল করার ক্ষমতা রয়েছে
ছবি : সংগৃহীত
পড়া যাবে: 2 মিনিটে
advertisement

নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য একেএম শামীম ওসমান বলেছেন, মীর জাফরদের এমপি হতে দেব না। সাচ্ছা কর্মীদের লড়াই হবে। এ লড়াই আওয়ামী লীগকে ক্ষমতা আনার লড়াই না, দেশকে বাঁচানোর লড়াই। বৃহস্পতিবার দুপুরে ফতুল্লার মাসদাইর বাংলা ভবন কমিউনিটি সেন্টারে কর্মী সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

advertisement

সামনে খেলা হবে, লড়াই হবে। আমরা লড়াইয়ের প্রথম ঢোল বাজাতে চাই। একথা উল্লেখ করে শামীম ওসমান বলেন, ওরা সমস্ত ষড়যন্ত্র করবে। ষড়যন্ত্রের এখানো কিছুই শুরু হয়নি। শকুনরা সব আকাশে উড়ছে। সময়মতো আমাদের উপর থাবা দিবে। সামনে ধাক্কা আসতেছে। এই ধাক্কাকে মোকাবেলা করতে হবে। এই লড়াই হবে শেষ লড়াই। এই লড়াইতে ওদের সমস্ত শক্তি ক্ষয় হয়ে যাবে।

শামীম ওসমান আরো বলেন, হাতে সময় খুব কম। আর মাত্র ২০ দিন। এই ২০ দিনে সকল খুনিরা একত্র হবে। মুখে অনেকে সভ্যতার কথা বলে, গণতন্ত্রের কথা বলে। আবার তারাই মোহাম্মদপুরে মিটিং করে। ধরাও পড়ে, গাড়ি নিয়েও পালায়। ওইদিন নাই। ওইদিন চলে গেছে। রাতে মিটিং করবেন আর বঙ্গবন্ধুরে হত্যা করবেন? ওইদিন আর নাই। শেখ হাসিনা মীর জাফরদের চিনে রাখছে।

আরও পড়ুন:  নবজাতক কোলে নিয়ে ভিডিও কলে বিয়ের পিঁড়িতে নাদিয়া

শামীম ওসমান বলেন, নৌকা মার্কায় ইলেকশন করতে গেলে এতো কিছু করতে হয়না। নৌকা মার্কা নিয়ে অনেকেই নির্বাচন করতেছে বাংলাদেশে। তাদের এতো কিছু করতে হয় না। শুধু নৌকার চিন্তা করতাম তাহলে বারবার আঘাতের পাত্র হতাম না। ওই পত্রিকাগুলি আমাকে বারবার আঘাত করতো না। আমি রাজনীতি করি এদেশের মানুষের জন্য, বঙ্গবন্ধুর আদর্শের জন্য, শেখ হাসিনার জন্য। আমি কেবল এমপি হবার জন্য রাজনীতি করি না। আমি রাজনীতিতে কোন আপোস করি না।

শামীম ওসমান কর্মী সভায় আরো বলেন, ২০১৪ সালের নির্বাচনের আগে আমি যখন এমপি ছিলাম না। নারায়ণগঞ্জে যারা অনেকেই এমপি হয়েছিলেন। যাদের কারণে দল যাক ওইগুলা আর বললাম না। ২০১৪ স্বাধীনতা বিরোধী শক্তিসহ সবমিলিয়ে নেত্রীর উপর ছোবল মারার চেষ্টা করেছিলো, সারা বাংলাদেশ বিভিন্ন জায়গা থেকে বিচ্ছিন্ন করে দিয়েছিলো। আঘাতের পর আঘাত করেছিলো আমরা সেদিন নারায়ণগঞ্জ আওয়ামী লীগ বলেছিলাম খেলা হবে। এবার একই সুরে একই শক্তি কথা বলছে। বাংলাদেশের দুটি দল আছে। একটি আওয়ামী লীগ আরেকটি এন্টি আওয়ামী লীগ। এখন একটাই প্ল্যান শেখ হাসিনা হটাও।

শামীম ওসমান বলেন, নারায়ণগঞ্জের রাজপথে আমরা লাখো লোক নিয়ে বুঝিয়ে দিয়েছিলাম শেখ হাসিনার একটি নির্দেশের অপেক্ষায় স্বাধীনতার পক্ষের শক্তি আমরা প্রস্তুত আছি। একটি ডাক দিবে আমরা ভীমরুলের চাকের মতো ঢাকার রাজপথ দখল করার ক্ষমতা রয়েছে।

আরও পড়ুন:  আ. লীগের প্রার্থী তালিকায় যে ২৫ নতুন মুখ

এসময় শামীম ওসমান বলেন, সামনে ধাক্কা আসতেছে। এটাই শেষ লড়াই। ওদের সমস্ত শক্তি প্রয়োগ করবে। দেশে বিদেশে ষড়যন্ত্রের জাল ফেলছে। শকুনরা সব আকাশে উড়ছে। নভেম্বরের ৩০ তারিখ পর্যন্ত তারা সব শক্তি প্রয়োগ করবে। এ মাসের ২১ থেকে ২৫ তারিখ পর্যন্ত ঢাকায় ট্রেনিং নিতে যাবো। ২৭ অক্টোবর সামসুজ্জোহা স্টেডিয়ামে দুপুর ৩টায় নারায়ণগঞ্জের ইতিহাসে সর্ববৃহৎ জনসভা করবো। নারায়ণগঞ্জের অন্যান্য আসনের লোকদেরও দাওয়াত করবো। মিটিংয়ের প্রধান অতিথি থেকে সব কিছুই আপনারা ।

কর্মী সভায় মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক শাহ্ নিজাম, সাংগঠনিক সম্পাদক জাকিরুল আলম হেলাল, ফতুল্লা থানা আওয়ামীলীগের সভাপতি এম সাইফুল্লাহ বাদল, সাধারণ সম্পাদক এম শওকত আলী, জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট হাসান ফেরদৌস জুয়েল, সাধারণ সম্পাদক মোহসিন মিয়া, মহানগর আওয়ামীলীগের, শহর যুবলীগের সভাপতি শাহাদাত হোসেন সাজনু প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

সর্বশেষ আপডেট

advertisement