প্রচ্ছদ বাংলাদেশ জাতীয়

প্রতিনিয়ত অন্য পুরুষের সাথে শারীরিক স’ম্পর্কে বাধ্য করতেন স্বামী

47
প্রতিনিয়ত অন্য পুরুষের সাথে শারীরিক স'ম্পর্কে বাধ্য করতেন স্বামী
পড়া যাবে: 2 মিনিটে

ব্যবসায়য়িক অংশীদারদের সাথে অ’নৈতিক কর্মকা’ণ্ড করতে বাধ্য করায় গাজীপুরের শ্রীপুরে ব্যাবসায়ী আব্দুর রহমানের ৪৫ গলা কে’টে হ’ত্যা করার পরিকল্পনা করে স্ত্রী’ সামিরা।

জিজ্ঞাসাবাদে হ’ত্যার বিষয়টি স্বীকার করে র‌্যা’­বের কাছে এমনটিই দাবি করেছেন আ’সামি সামিরা।

খু’ন হওয়া আবদুর রহমান ৫২ চকপাড়ার পাশের গাজীপুর গ্রামের নাসিম উদ্দিনের ছে’লে। তিনি জমি কেনা-বেচার ব্যবসা করতেন।

র‌্যা’­ব ১ পোড়াবাড়ী ক্যাম্পের কোম্পানি কমান্ডার লেফটেন্যান্ট কমান্ডার আব্দুল্লাহ আল মামুন জানান, জে’লার শ্রীপুর পৌর সভা’র কেওয়া পশ্চিম খণ্ড এলাকায় তিন তলা ভবনের একটি ফ্ল্যাট থেকে রহমানের ঝলসানো অবস্থায় গলাকা’টা ম’রদেহ উ’দ্ধার করা হয়।

তাকে ঘুমের মধ্যে গলাকে’টে হ’ত্যা করে এসিড দিয়ে মুখ ঝলসে দিয়ে ম’রদেহ ঘরের ভেতরে ফেলে রাখা হয়। কয়েকদিনে ম’রদেহটি পচে দুর্গন্ধ বের হলে এলাকাবাসীর খবরের ভিত্তিতে পু’লিশ লা’শ উ’দ্ধার করে।

নি’হত আবদুর রহমানের ছে’লে জাহাঙ্গীর আলম বাদী হয়ে এ ঘটনায় সামিরা, সামিরার বাবা ও মাকে আ’সামি করে হ’ত্যা মা’মলা দায়ের করেন।

এ হ’ত্যা মা’মলার মূল আ’সামি শ্রীপুর থা’নার চকপাড়া এলাকার সামিরা আক্তার ও তার বাবা মোহাম্ম’দ আলী হোসেনকে গো’পন সংবাদের ভিত্তিতে রাজধানীর দক্ষিণখান এলাকায় অ’ভিযান চালিয়ে গ্রে’প্তার করা হয়।

আ’সামি সামিরা আক্তারের দেওয়া তথ্যের বরাত দিয়ে র‌্যা’­ব জানায়, রাতে আব্দুর রহমানের ব্যবসায়িক পার্টনার রতন মিয়ার সাথে তার ইচ্ছার বি’রুদ্ধে জো’রপূর্বক যৌ’ন কাজে লিপ্ত হতে বাধ্য করে। পরে রতন রাত ১১টায় বাসা থেকে চলে গেলে ভোর রাত আনুমানিক ৩টায় সামিরা বাসায় থাকা ধারালো দা দিয়ে ঘুমন্ত অবস্থায় স্বামী আব্দুর রহমানকে জবাই করে হ’ত্যা করে।

আব্দুর রহমানকে যেন চেনা না যায় সে জন্য লা’শের মুখে অ্যাসিড দিয়ে ঝলসে দেয় সামিরা এবং লা’শটি তোষক দিয়ে মুড়িয়ে রাখে। ঘটনার পর লা’শ সরিয়ে ফেরার জন্য সামিরা তিনদিন ওই ভাড়া বাসায় অবস্থান করে। কিন্তু লা’শ সরিয়ে ফেলতে ব্যর্থ হয়ে বাসা থেকে পালিয়ে যান তিনি।

পরে পাশের উপজে’লা কালিয়াকৈরের ফুলবাড়িয়া গ্রামের বান্ধবীর বাসায় দুই দিন আত্মগো’পনে থাকার পর নওগাঁয় মামা’র বাড়িতে চলে যান। পরদিন রবিবার ২৩ ফেব্রুয়ারি দক্ষিনখান কোটবাড়ি এলাকার তার চাচার বাসায় আত্মগো’পন করেন।

র‌্যা’­ব জানায়, ২০১৬ সালে আবদুর রহমান দ্বিতীয় স্ত্রী’কে নিয়ে টঙ্গীতে বাস করতো। একই গ্রামের বাসিন্দা হিসেবে সামিরা ও রহমান ছিলেন পূর্ব পরিচিত ছিলেন। ওই বছর সামিরা টঙ্গী সরকারি কলেজ কেন্দ্রে ডিগ্রি পরীক্ষার্থী ছিলেন।

পূর্ব পরিচয় সূত্রে তিনি রহমানের বাসায় থেকে পরীক্ষা দিতেন। রহমান তাকে বিয়ের আশ্বা’স দিয়ে ধ’র্ষণের চেষ্টা করে ব্যর্থ হন। পরে স্ত্রী’র অবর্তমানে কৌশলে খাবারের সাথে ঘুমের ওষুধ খাইয়ে অচেতন করে টঙ্গীর বাসায় ধ’র্ষণ এবং ধ’র্ষণের ভিডিও মোবাইলে ধারণ করে রাখেন রহমান। পরবর্তীতে ধ’র্ষণের ভিডিও এবং হ’ত্যার ভ’য় দেখিয়ে রহমান দিনের পর দিন তাকে ধ’র্ষণ করেন।

এক পর্যায়ে ধ’র্ষণের ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রকাশ পেলে প্রথম স্বামী তাকে ডিভোর্স দেন। তারপর থেকে সামিরা শ্রীপুরের নয়নপুর এলাকায় একটি ওষুধের দোকান পরিচালনা করতেন। ২০১৮ সালের সেপ্টেম্বর মাসে আবদুর রহমান তাকে বিয়ে করে শ্রীপুরের বিভিন্ন এলাকায় বাসা ভাড়া নিয়ে বাস করতেন।

বিয়ের পর থেকে ঘটনার দিন পর্যন্ত রহমান কখনও ব্যবসায়িক স্বার্থে, আবার কখনও বিপুল টাকার বিনিময়ে তার ব্যবসায়িক অংশীদারদের সাথে তাকে শারীরিক স’ম্পর্ক স্থাপনে বাধ্য করতেন। না করলে নি’র্যাতন করতেন। এসব নি’র্যাতন সহ্য করতে না পেরে রহমানের কাছে ডিভোর্স চান তিনি। এতে উল্টো তাকে এবং তার মা ভাইকে খু’নের হু’মকি দেন রহমান। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে তিনি আবদুর রহমানের ওপর প্রতিশোধ নিতে খু’নের পরিকল্পনা করেন।

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

সাম্প্রতিক খবর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে Bangla Magazine সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান নিউজ ম্যাগাজিন অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।

  • 3
    Shares