প্রচ্ছদ বাংলাদেশ উপজেলা

ড. কামাল হোসেন বিএনপি-জামায়াতের লেজ

57
ড. কামাল হোসেন বিএনপি-জামায়াতের লেজ
ছবি : সংগৃহীত
পড়া যাবে: 2 মিনিটে

তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেছেন, সরকার বিরোধী ঐক্য নিয়ে সব ভাব-ভঙ্গি দেখার পর আবিস্কার হলো ড. কামাল হোসেন ঐক্য ফ্রন্টের মাথা নয়, বিএনপি-জামায়াতের লেজ। তিনি বুধবার বেলা ১১টার দিকে তার নির্বাচনী এলাকা মিরপুর উপজেলার তালবাড়িয়া স্কুল মাঠে এক সুধী সমাবেশে যোগদানের আগে স্থানীয় সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে এ কথা বলেন।

জাসদের সভাপতি ইনু বলেন,‘এ মুহুর্তে যে ঐক্যটা হয়েছে সেটা ঐক্য নয় বিএনপিকে ক্ষমতায় বসানো। আর বিএনপিকে ক্ষমতায় বসানোর মানে হচ্ছে রাজাকার-জঙ্গির কাছে দেশটাকে ইজারা দেয়া।’ তথ্যমন্ত্রী ২১ আগষ্টের গ্রেনেড হামাল প্রসঙ্গে বলেন, ‘১৪ বছর ধরে গ্রেনেড হামলার মামলা চলেছে। উন্মুক্ত আদালতে, শতাধিক লোকের স্বাক্ষী ও চুলচেরা বিশ্লেষণে আদালতে এ মামলার রায় হয়েছে। ১৪ বছর পর বিএনপি-কামাল হোসেনরা বলছেন এটা রাজনৈতিক মামলা এটা মিথ্যাচার ছাড়া আর কিছুই না।’

জেলা জাসদের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল আলীম স্বপন, কেন্দ্রীয় নেতা আব্দুল্লাহ, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এস এম জামালসহ স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ এ সময় উপস্থিত ছিলেন। তথ্যমন্ত্রীর আজ বিকেল ৫টায় কুষ্টিয়ার ছেউড়িয়ায় বাউল স¤্রাট লালন সাঁইয়ের আখড়াবাড়ীতে তাঁর (লালনের) ১২৮তম তিরোধান দিবসের দ্বিতীয় দিনের আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে যোগ দেওয়ার কথা।

এদিকে আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, ‘জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট সমাবেশের নামে দেশে কোনো ধরণের বিশৃংখলা সৃষ্টির চেষ্টা করলে জনগণকে সঙ্গে নিয়ে তা প্রতিহত করা হবে।’ তিনি বলেন, জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট সিলেটসহ দেশের বিভাগীয় শহরগুলোতে সমাবেশের কর্মসূচি নিয়েছে । এ সমাবেশগুলোতে তারা বিশৃংখলা করার চেষ্টা করবে। এধরণের অপচেষ্টা করলে জনগণকে সঙ্গে নিয়ে তা প্রতিহত করা হবে। তিনি আজ দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে এক মানববন্ধন কর্মসূচিতে প্রধান অতিথির বক্তব্যে একথা বলেন।

বাংলাদেশ স্বাধীনতা পরিষদ নামের একটি সংগঠন ‘বিএনপি, জামায়াত ও ড. কামাল হোসেন গংদের দেশ বিরোধী ষড়যন্ত্রের প্রতিবাদে’ এই এক মানববন্ধন ও সমাবেশের আয়োজন করে। সংগঠনের উপদেষ্টা এডভোকেট রফিকুল ইসলাম মাসুদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এই সমাবেশে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ, মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের উপ-দপ্তর সম্পাদক মিরাজ হোসেন, সংগঠনের সভাপতি জিন্নাত আলী খান জিন্নাহ ও সাধারণ সম্পাদক শাহাদাত হোসেন টোয়েল প্রমুখ বক্তৃতা করেন।

আওয়ামী লীগের অন্যতম এই মুখপাত্র হাছান মাহমুদ জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নেতাদের কথা উল্লেখ করে বলেন, ‘তারা মূলত ষড়যন্ত্রকারী। বিএনপি নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া তাদের ভাড়া করেছেন। তারা দেশের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছে।’

তিনি বলেন, গতকাল ২০ দলীয় জোট থেকে ন্যাপ ও এনডিপি বেরিয়ে গেছে। সামনে আরও কয়েকটি দল বেরিয়ে যাওয়ার সম্ভবনা রয়েছে। সাবেক পরিবেশ ও বনমন্ত্রী বলেন, ২০ দলীয় জোটের ঐক্য যারা ধরে রাখতে পারে না, তাদের নেতৃত্বে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট গঠন ভাততাবাজী ছাড়া আর কিছু নয়।

তিনি আরো বলেন, বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ও দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদদ আহমদ সুচতুরভাবে ড. কামাল হোসেনকে জোটের নেতা বানিয়ে তাদের দলের নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া ও সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে মাইনাস করে দিয়েছেন। ইতিমধ্যে বিএনপি নেতা গয়েশ্বর চন্দ্র রায় এ বিষয়ে ইঙ্গিত দিয়েছেন।

আওয়ামী লীগের অন্যতম এই মুখপাত্র বক্তৃতায় বলেন, বিএনপি ক্ষমতায় যাওয়ার জন্য প্রয়োজনে ‘শয়তানের’ সাথে ঐক্য করারও ঘোষণা দিয়েছিল। জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট গঠনের মাধ্যমে এটা পরিষ্কার হয়েছে যে বিএনপি যাদের সাথে নতুন করে ঐক্য করেছে তারা আসলে কে?

ড. কামাল হোসেনের সমালোচনা করে হাসান মাহমুদ বলেন, ‘ড. কামাল হোসেন মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও বঙ্গবন্ধুর আত্মার সাথে বেঈমানী করেছেন। তিনি কথায় কথায় নিজেকে বঙ্গবন্ধুর কর্মী হিসেবে দাবী করলেও যে দল তাকে খুন করেছে, খুনীদের আশ্রয় দিয়েছে ও পুরস্কৃত করেছে, সেই দলের নেতৃত্ব গ্রহণ করেছেন।’

তিনি আরও বলেন, ড. কামাল হোসেন কথায় কথায় মানবাধিকার ও আইনের শাসনের কথা বললেও বঙ্গবন্ধুর খুনী, ২১ আগস্টের হামলাকারী, এতিমের টাকা আত্মসাতকারীরে সাথে ঐক্য করেছেন। তিনি আগে শুধু একজন জনবিচ্ছিন্ন রাজনীতিবিদ ছিলেন, এখন তিনি পচে যাওয়া রাজনীতিবিদে পরিণত হয়েছেন বলে মন্তব্য করেন এই আওয়ামী লীগ নেতা।

সর্বশেষ আপডেট