প্রচ্ছদ বাংলাদেশ জাতীয়

নিজের বাবার করোনা নিয়েও প্রতারণা করেছিলেন সাহেদ!

26
নিজের বাবার করোনা নিয়েও প্রতারণা করেছিলেন সাহেদ!
পড়া যাবে: 2 মিনিটে

দেশজুড়ে আ’লোচিত রিজেন্ট হাসপাতা’লের চেয়ারম্যান মো. সাহেদ গ্রে’প্তার এড়াতে আত্মগো’পনে আছেন। নানা শ্রেণিপেশার মানুষের সঙ্গে প্রতারণা করা এই সাহেদ প্রতারণা করেছেন বাবার অ’সুস্থতা নিয়েও। করো’না আ’ক্রান্ত বাবাকে নেগেটিভ সনদ দেখিয়ে ভর্তি করান একটি বেসরকারি হাসপাতা’লে।

কিন্তু সেখানে তার বাবার করো’না পজিটিভ আসায় এক পর্যায়ে মা’রা যান সাহেদের বাবা। জন্ম’দাতা বাবার অ’সুস্থতা নিয়ে এমন প্রতারণার ঘটনায় বিস্ময় প্রকাশ করছেন অনেকে। করো’নায় আ’ক্রান্ত হয়ে সাহেদের বাবা গত বৃহস্পতিবার রাতে মহাখালীর ইউনিভা’র্সেল মেডিকেলে মা’রা যান।

জানা গেছে, শুরুতে বাবার খোঁজ নিলেও রিজেন্ট হাসপাতা’লে অ’ভিযানের পর সিলগালা করে দেয়ার পর আর বাবার খোঁজ নেয়নি সাহেদ। শুধু তাই নয়, খোঁজ নেননি মা’রা যাওয়ার পরও। পরে অবশ্য তার ভাড়া বাসার কেয়ারটেকার ও গাড়ি চালককে পাঠিয়ে বাবার ম’রদেহ হাসপাতাল থেকে নিয়ে যাওয়া হয়।

বাবা সিরাজুল করিমকে ভর্তি করাতে গিয়ে সাহেদের প্রতারণার কথা নিশ্চিত করেছেন মহাখালীর ইউনিভা’র্সেল মেডিকেলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ডা. আশীষ কুমা’র চক্রবর্তী। গণমাধ্যমকে তিনি জানান, গত ৪ জুলাই সিরাজুল করিমকে তাদের হাসপাতা’লে ভর্তি করেন সাহেদ। সিরাজুল করিমের বয়স ছিল প্রায় ৭০ বছর। ভর্তি করার সময় সাহেদ জানান তার বাবার কোভিড-১৯ সংক্রমণ নেই।

বাবার করো’না পরীক্ষার ভু’য়া প্রতিবেদন দেয়ার কথা জানিয়ে ডা. আশীষ জানান, ‘আমাদের বলা হয়েছিল, এর আগে তিনটি পরীক্ষায় সিরাজুল করিমের কোভিড-১৯ নেগেটিভ আসে। তিনটি সনদও দেখানো হয়। কিন্তু তার লক্ষণ দেখেই মনে হয়েছে কোভিড-১৯ আ’ক্রান্ত। আমাদের এখানে পরীক্ষায় তার কোভিড-১৯ পজিটিভ আসে।’

হাসপাতালটির চিকিৎসক আজিজুর রহমান জানান, সাহেদের বাবার করো’না পজেটিভ আসলে তাকে আম’রা ফোন দেই। আমাদের পক্ষ থেকে বলা হয়, যেহেতু আপনার হাসপাতাল কোভিড রোগীদের জন্য সেখানে আপনার বাবাকে নিয়ে যান। কিন্তু সাহেদ অ’পারগতা প্রকাশ করেন। বলেন তার ওখানে চিকিৎসার পর্যাপ্ত ব্যবস্থা নেই। ভর্তির দুই দিন পর সিরাজুল করিমকে আইসিইউতে নেওয়া হয় জানিয়ে ডা. আশীষ বলেন, ‘তার ফুসফুসে সংক্রমণ ছিল।

অবস্থা খা’রাপ হলে দুই দিন আগে তাকে লাইফ সাপোর্টে নেওয়া হয়। এ অবস্থায় বৃহস্পতিবার মা’রা যান তিনি।’ ভর্তির পর প্রথম দুই দিন সাহেদ তার বাবাকে দেখতে এসেছিলেন। তবে ৬ জুলাইয়ের পর থেকে এখানে তাদের আর কেউ আসেননি বলেও জানান ইউনিভা’র্সেলের এমডি। জানা গেছে, সাহেদ বাবাকে দেখতে আসা বন্ধ করলেও তার সঙ্গে আসা লোকজন পরেও হাসাপাতা’লে এসেছে।

কিন্তু বৃহস্পতিবার রাতে তার বাবা মা’রা যাওয়ার পরে কারো সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারেননি ইউনিভা’র্সেল হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। পরে থা’নায় জিডি করে তারা। সাহেদের ফোন নম্বর বন্ধ পাওয়ায় পরে তার স্ত্রী’র সঙ্গে কথা বলে হাসপাতা’লের লোকজন। পরে শুক্রবার সকালে সাহেদের কেয়ারটেকার এসে লা’শ বুঝে নেয়। সকালেই আজিমপুর কবরস্থানে সাহেদের বাবাকে দাফন করা হয়।

গত ৬ জুলাই র‌্যা’­বের ভ্রাম্যমাণ আ’দালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সারওয়ার আলমের নেতৃত্বে রিজেন্ট হাসপাতা’লের উত্তরা ও মিরপুর কার্যালয়ে অ’ভিযান চালানো হয়। পরীক্ষা ছাড়াই করো’নার সনদ দিয়ে সাধারণ মানুষের সঙ্গে প্রতারণা ও অর্থ হাতিয়ে নিয়ে আসছিল তারা। র‌্যা’­বের ভ্রাম্যমাণ আ’দালত অন্তত ছয় হাজার ভু’য়া করো’না পরীক্ষার সনদ পাওয়ার প্রমাণ পায়।

একদিন পর গত মঙ্গলবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নির্দেশে র‌্যা’­ব রিজেন্ট হাসপাতাল ও তার মূল কার্যালয় সিলগালা করে দেয়। রিজেন্ট গ্রুপের চেয়ারম্যান সাহেদসহ ১৭ জনের বি’রুদ্ধে উত্তরা পশ্চিম থা’নায় নিয়মিত মা’মলা করা হয়েছে। তবে প্রধান আ’সামি সাহেদ এখনও পলাতক রয়েছে।

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

সাম্প্রতিক খবর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে Bangla Magazine সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান নিউজ ম্যাগাজিন অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।

  • 6
    Shares