যার আশ্রয়ে ছিলেন সাহেদ, থাকতেন এসি রুমে

186
যার আশ্রয়ে ছিলেন সাহেদ, থাকতেন এসি রুমে
পড়া যাবে: < 1 minute

সাতক্ষীরার দেবহাটা উপজে’লা শাকরা কোম’রপুরের আল ফেরদৌস ওরফে আলফা’র (৪৯) মাছের ঘেরে আশ্রয় নিয়েছিল বহুরূপী প্রতারক মোহাম্ম’দ সাহেদ করিম।

সাতক্ষীরার একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে, গ্রে’প্তার হওয়ার আগে পর্যন্ত অন্তত চারদিন আলফার মাছের ঘেরে সুসজ্জিত এসি রুমেই রাতযাপন করেছে ৫৬ মা’মলার আ’সামি সাহেদ।

মূলত আশ্রয়দাতা আলফাই তাকে নৌকা করে ভা’রতে পালিয়ে যাওয়ার সব বন্দোবস্ত করেছিল।

আল ফেরদৌস আলফা সাতক্ষীরা জে’লা পরিষদের সদস্য। পু’লিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, ওই অঞ্চলে তিনি একজন কুখ্যাত চো’রাকারবারী বলে পরিচিত। কিছুদিন আগেও তিনি চো’রাচালান মা’মলায় জে’লে ছিলেন।

স্থানীয় একাধিক সূত্র জানায়, গো’পন সূত্রে খবর পেয়ে মঙ্গলবার রাত থেকেই র‌্যা’­বের একাধিক টিম শাকরা, কোম’রপুর গ্রামে অ’ভিযান শুরু করে। সূত্রমতে, এক পর্যায়ে র‌্যা’­বের উপস্থিতি টের পায় বহুরূপী প্রতারক সাহেদ। তখন আলফার মাছের ঘেরের সুসজ্জিত এসি রুম ছেড়ে ইছামতি নদীর সঙ্গে সংযু’ক্ত শাকরা খালের সাথে একটি ড্রেনের মধ্যে বোরকা পরে লুকানোর চেষ্টা করে। আর তাকে অ’বৈধভাবে ভা’রতে পার করতে ইছামতি নদীতে অ’পেক্ষায় থাকে শীর্ষ চো’রাকারবারী আল ফেরদৌস আলফার তত্ত্বাবধানে থাকা বাচ্চু মাঝি।

সূত্রগুলো জানায়, র‌্যা’­ব যখন তার খুব কাছে চলে যায় তখন পি’স্তল তাক করে সে গু’লি করার চেষ্টাও করে। তবে র‌্যা’­বের পেশাদারিত্বের কারণে মুহূর্তেই ধ’রা পড়ে বহু’মুখী, বহুরূপী প্রতারক সাহেদ।

তবে তাকে আশ্রয় দেওয়া চো’রাকারবারী আল ফেরদৌস আলফা পালিয়ে আছে। পালিয়ে গেছে নৌকার মাঝি বাচ্চুও।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে র্যা বের মুখপাত্র, গণমাধ্যম ও আইন শাখার পরিচালক লেফটেন্যান্ট কর্নেল আশিক বিল্লাহ বলেন, ‘আল ফেরদৌস আলফার আশ্রয়ে তার আত্মগো’পনের বিষয়টি আম’রা জানতে পেরেছিলাম। সেই র্যা বের নজরদারির মধ্যেই ছিল। এ বিষয়টি নিয়ে আম’রা আরও ত’দন্ত করব।’

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

সাম্প্রতিক খবর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে Bangla Magazine সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান নিউজ ম্যাগাজিন অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।