প্রচ্ছদ বাংলাদেশ রাজনীতি

চেয়ারপার্সনের একনেতার এক পদের নির্দেশ অমান্যকারী মিলন নিজেই দলের শৃঙ্খলা ভঙ্গকারী- তৃণমূল বিএনপি কালীগঞ্জ

19
চেয়ারপার্সনের একনেতার এক পদের নির্দেশ অমান্যকারী মিলন নিজেই দলের শৃঙ্খলা ভঙ্গকারী- তৃণমূল বিএনপি কালীগঞ্জ
পড়া যাবে: 2 মিনিটে

চেয়ারপার্সনের একনেতার এক পদের নির্দেশ অমান্যকারী মিলন নিজেই দলের শৃঙ্খলা ভঙ্গকারী- তৃণমূল বিএনপি কালীগঞ্জ

বিএনপির সাংগঠনিক কার্যক্রম ১৫ আগষ্ট পর্যন্ত স্থগিত, অথচ ১৯ বছর ধরে না করা কালীগঞ্জ ও জামালপুর কলেজ সহ বিভিন্ন ইউনিট কমিটি গুলো করার বিষয়ে উভয় কলেজের সাবেক ছাত্র সংসদের নির্বাচিত প্রতিনিধি, থানা ও কলেজ ইউনিটের সাবেক সভাপতি সাধারণ সম্পাদকদের সাথে পরামর্শ ব্যতিত এমনকি ওনার নিজের থানা বিএনপির কমিটির ছাত্র বিষয়ক সম্পাদক এর সাথেও কোন রকম পরামর্শ ব্যতিত হঠাৎ গাঁয়ের জোরে নিজের পছন্দ মত রাতের অন্ধকারে কমিটি ঘোষণা করার জন্য তরিঘরি করার পিছনে কোন দুরভিসন্ধি আছে কিনা সচেতন ছাত্র সমাজকে ভেবে দেখতে হবে।

স্বরণে থাকার কথা ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় কমিটি করার সময় দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জননেতা তারেক রহমান নিজে স্কাইপে সংলাপ করা স্বত্বেও ছাত্রদলের সকল সাবেক নেতাদের কমিটি করার দ্বায়িত্ব দেন যদিও ভোটের মাধ্যমে কমিটি করা হয়!কিন্তু কালীগঞ্জ থানা ছাত্রদলের কমিটির বিষয়ে কেন কালীগঞ্জের ছাত্রদলের সাবেক নেতাদের মতামত না নিয়ে ছাত্রদলের গঠনতন্ত্রকে বাইপাস করে মিলন সাহেবের ইচ্ছা ও পছন্দ অনুযায়ী কমিটি ঘোষণার পায়তারা চলছে?

আরও পড়ুন:  শিক্ষার্থীদের বাড়িভাড়ার সমস্যায় পাশে থাকার ঘোষণা ছাত্রলীগের

গাজীপুর ও কালীগঞ্জ বিএনপিতে ফজলুল হক মিলন এর স্বেচ্ছাচারিতা যখন চরমে, গাজীপুর ও কালীগঞ্জ বাসী যখন রূপগঞ্জ থেকে আসা এই মাইগ্রেটেড নেতার জুলম বাজি ও সংগঠন ধ্বংসের পায়তারার বিরুদ্ধে সোচ্চার তখন নিজের চামড়া বাঁচাতে ছাত্রদলের কমিটিকে ঢাল হিসাবে ব্যবহার করছে কিনা সেটাও সূক্ষ্ণ ভাবে ভেবে দেখা দরকার।ফজলুল হক মিলন নিজেই দলের চেয়ারপার্সন আপোষহীন দেশনেত্রী, দেশমাতা বেগম খালেদা জিয়ার এক নেতার এক পদ এই নির্দেশ অমান্য কারী হিসাবে দলের শৃঙ্খলা ভঙ্গ কারী, অতএব ওনার মুখে দল প্রেমের কথা অর্থহীন! তিনি নিজে শৃঙ্খলা বিরোধী হয়ে অপরকে নীতি বাক্য শোনার অধিকার রাখেন না।

আমাদের আগে দেশ মাতার নিজ মুখে জানতে হবে তিনি এইসব শৃঙ্খলা ভঙ্গ কারীদের ক্ষমা করেছেন কিনা? আর ওনার নিজের তৈরী নিয়ম এই নির্দেশ অমান্য কারীদের চাপে আপোষ করে তুলে নিয়েছেন কিনা? কারণ আমরা জানি দেশমাতা আপোষহীন দেশনেত্রী বেগম খালেদাজিয়া কখনো কোন অপশক্তির কাছে আপোষ করতে পারেন না। আর তাই দেশমাতা আপোষহীন দেশনেত্রী বেগম খালেদাজিয়ার নির্দেশ অমান্য কারী দলের শৃঙ্খলা ভঙ্গ কারী ফজলুল হক মিলন কোন কমিটি করার অধিকার রাখেনা যতদিন না ম্যাডামের এক নেতার এক পদ বাস্তবায়নের নির্দেশ আগে নিজে পালন করে।

আরও পড়ুন:  সরকার খুব দ্রুতই পড়ে যাবে: রিজভী

আর তাই ওনাকে দলেরও বিশেষ করে গাজীপুর ও কালীগঞ্জে অবৈধ পন্থায় কমিটি গঠন থেকে বিরত থাকার অনুরোধ করছি।তবে নিন্দুকেরা বলাবলি করছে গাজীপুর ও কালীগঞ্জে যে ভাবে ফজলুল হক মিলন এর বিরুদ্ধে সাবেক বর্তমান নেতাকর্মীরা ফুঁসে উঠেছে তাতে তিনি কমিটি গুলো আগের মতই নিজের পছন্দের লোক রাখতে ও যাদের কাছ থেকে টাকা পয়সা নিয়েছে পদ দেওয়ার কথা বলে, তাদের চাপেই সাংগঠনিক কার্যক্রম বন্ধ থাকলেও কমিটি দেওয়ার জন্য ব্যস্ত হয়ে পরেছে সকল নিয়ম নীতি উপেক্ষা করে! কেউ কেউ ধারণা করছে তার বিরুদ্ধে দলে গনতন্ত্র ফিরিয়ে দেওয়ার আন্দোলনের থেকে দৃষ্টি সরাতেও এই কৌশল নিয়ে থাকতে পারে বলে মনে করছে।তৃণমূল বিএনপি কালীগঞ্জ।

বাংলা ম্যাগাজিন ডেস্ক

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

সাম্প্রতিক খবর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে Bangla Magazine সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান নিউজ ম্যাগাজিন অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।

  • 15
    Shares