প্রচ্ছদ অপরাধ মাদ্রাসা ছাত্রীকে তুলে নিয়ে জোরপূর্বক বিয়ে করে ধর্ষণ

মাদ্রাসা ছাত্রীকে তুলে নিয়ে জোরপূর্বক বিয়ে করে ধর্ষণ

95
মাদ্রাসা ছাত্রীকে তুলে নিয়ে জোরপূর্বক বিয়ে করে ধর্ষণ
পড়া যাবে: < 1 minute

বগুড়ার ধুনট উপজেলায় এক মাদ্রাসা ছাত্রীকে অপহরণ ও বিয়ে করে আটকে রেখে ‘ধর্ষণে’র অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় ছাত্রীর বাবা গতকাল মঙ্গলবার রাতে ধুনট থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। পরিপ্রেক্ষিতে নুর মোহাম্মদ বাবু নামে এক যুবককে গ্রেপ্তারের চেষ্টা করছে পুলিশ।

উপজেলার চিকাশী ইউনিয়নের বড়িয়া গ্রামে ঘটনাটি ঘটে। মামলাসূত্রে জানা গেছে, গত বৃহস্পতিবার বড়িয়া গ্রামের ওই মাদ্রাসা ছাত্রী বান্ধবীর বাসায় যাওয়া জন্য বাড়ি থেকে বের হয়। পথে প্রতিবেশী অটোচালক নুর মোহাম্মাদ বাবু তাকে দেখে সেখানে দাঁড়ান। বান্ধবীর বাড়ি পৌঁছে দেবেন বলে তাকে ফুঁসলিয়ে নিজের অটোতে তুলে নেন।

আরও পড়ুন:  এবার ধর্ষকের তালিকায় বিসিসিআই সিইও

এরপর সেখান থেকে ওই ছাত্রীকে নিয়ে যান উপজেলার চিকাশী মোড় এলাকায়। সেখান থেকে সিএনজিচালিত অটোরিকশাযোগে যান শেরপুর। পরে সেখান থেকে বাসযোগে যান নারায়ণগঞ্জে তার আত্মীয়ের বাড়িতে। পরদিন শুক্রবার বিকেলে একটি কাজী অফিসে নিয়ে বাবু ওই ছাত্রীকে জোরপূর্বক বিয়ে করেন।

মেয়েটির ইচ্ছার বিরুদ্ধে বাবু মেয়েটির সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক গড়েন ও সেখানে কয়েকদিন অবস্থান করেন। গত রোববার মেয়েটিকে নিয়ে বাবু ধুনটে তার এক আত্মীয়ের বাড়িতে বেড়াতে আসেন। পরে সেখান থেকে মেয়েটি পালিয়ে এসে ধুনট থানা পুলিশের কাছে পুরো ঘটনা জানায়।

ধুনট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইসমাইল হোসেন মেয়েটির বাবাকে খবর দিয়ে থানায় আনান। পরে তার কাছ থেকে একটি লিখিত অভিযোগ নেন। তিনি বলেন, ‘দাখিল শ্রেণির ওই মাদ্রাসা ছাত্রীর বয়ান রেকর্ড করা হয়েছে। মামলা গ্রহণ করা হয়েছে। বাবুকে গ্রেপ্তারের চেষ্ট চলছে।’

আরও পড়ুন:  হাসপাতাল থেকে চুরি হওয়া নবজাতক উদ্ধার, নারী গ্রে'ফতার

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

সর্বশেষ আপডেট: