প্রচ্ছদ বাংলাদেশ জাতীয়

ভেজাল পণ্যে ব্র্যান্ডের মোড়ক লাগিয়ে বিক্রি, ১৫ লাখ টাকা জ'রিমানা

7
ভেজাল পণ্যে ব্র্যান্ডের মোড়ক লাগিয়ে বিক্রি, ১৫ লাখ টাকা জ'রিমানা

পড়া যাবে: 2 মিনিটে

তেল, লবণ, চাল, সেমাই ও ঘি সবই তিনি কিনে আনেন খোলা বাজার থেকে। ভেজাল ও মানহীন এসব পণ্য কিনে প্রথমে নিজের গুদামে মজুত করেন। এরপর নিজেই তৈরি করেন বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের সব ব্র্যান্ডের পণ্যের লেভেল। সেই লেভেল বা মোড়কে সামি স্টোরের মালিক মো. আবুল হোসেন মূলত বিক্রি করে আসছিলেন মানহীন ভেজাল ভোগ্যপণ্য।

রাজধানীর চকবাজার থা’নাধীন ইস’লামবাগ কাঁচাবাজারের ৪৫ নং দোকান সামি স্টোর। সেই দোকান থেকেই পাইকারি দরে এসব ভেজাল পণ্য ‌‌‘ব্র্যান্ড পণ্য’ হিসেবে বিভিন্ন জে’লায় সরবরাহ করতেন আবুল হোসেন।

নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের সহযোগিতায় গো’পন সংবাদের ভিত্তিতে শনিবার সন্ধ্যায় নকল ভোগ্যপণ্য প্রস্তুত, প্রক্রিয়াজাত, মজুত ও বিক্রির বি’রুদ্ধে র‌্যা’­ব-১০ এর একটি দল পুরান ঢাকায় ওই অ’ভিযান পরিচালনা করে। অ’ভিযানে তথ্য প্রমাণের ভিত্তিতে সামি স্টোরের মালিক মো. আবুল হোসেনকে ১৫ লাখ টাকা জ’রিমানা করে ভ্রাম্যমাণ আ’দালত। নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট পলা’শ কুমা’র বসু ভ্রাম্যমাণ আ’দালত পরিচালনা করেন।

তিনি জাগো নিউজকে বলেন, সামি স্টোরের মালিক আবুল হোসেন বিভিন্ন জায়গা থেকে খোলা বাজারের ও ভেজাল সয়াবিন ও সরিষার তেল কিনে নিয়ে আসেন। এরপর গুদামের ড্রামে মজুত করেন। এরপর তীর, পুষ্টি, বিসমিল্লাহ, সুগন্ধাসহ নানান ব্র্যান্ডের লেভেল বা মোড়ক লাগিয়ে সরবরাহ করে আসছিলেন। তার গুদাম থেকে এরকম ১১ ব্র্যান্ডের মোড়ক পাওয়া গেছে। লেভেলে উৎপাদন তারিখ ও স্থান লিখে রাখছেন আসল তেলের বোতলের মতোই। মূলত ব্র্যান্ডের মোড়কে খোলা তেল বিক্রি করে আসছিলেন তিনি।

আরও পড়ুন:  রিজেন্ট গ্রুপের অনিয়ম সরকারই উদঘাটন করেছেঃ তথ্যমন্ত্রী

পলা’শ বসু বলেন, চিনিগুড়া চাল দেশের একটি জনপ্রিয় চালের ব্র্যান্ডের নাম। তিনি সেটাতেও প্রতারণার আশ্রয় নিয়ে রম’রমা বাণিজ্য করে আসছিলেন। সাধারণ মানের চালকে চিনিগুড়া চাল হিসেবে বিক্রি করে আসছিলেন একই কায়দায়।

চিনিগুড়া চালের অসংখ্য মোড়ক তার কাছ থেকে জ’ব্দ করা হয়েছে। এছাড়া খোলাবাজারের লবণ একই কায়দায় ব্র্যান্ডিং করে বিক্রি করে আসছিলেন তিনি। বিভিন্ন জায়গা থেকে খোলা বাজারের লবণ কিনে এনে তার গোডাউনে রেখে তীর, ফ্রেশ, মোল্লা সল্টসহ বিভিন্ন ব্র্যান্ডের নামের মোড়কে বিক্রি করতেন। নকল মোড়কেও তিনি লিখেছেন নিজের মতো করে আয়োডিনযু’ক্ত লবণ। অথচ লবণে আয়োডিনের পরিমাণ খুবই গুরুত্বপূর্ণ, বিশেষ করে শি’শুদের জন্য।

তিনি আরও জানান, খোলাবাজারে সেমাই, অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে তৈরি সেমাই কমমূল্যে কিনে এনে ব্র্যান্ডেই সেমাই হিসেবে লেভেল প্যাকেটজাত করে বিক্রি করে আসছিলেন আবুল হোসেন। মানহীন ঘি কিনেও নকল ব্র্যান্ড মোড়কে বিক্রি করে আসছিলেন। শুধুমাত্র ফ্লেভা’র দিয়েই তিনি ঘি বিক্রি করছেন। অথচ ঘি কী’ভাবে তৈরি হয়, কী’ভাবে প্রক্রিয়াজাত ও লেভেল করতে হয়, সে স’ম্পর্কে তিনি কিছু জানেন না। নকল বা মানহীন ঘি তিনি কোথায় থেকে ক্রয় করেছেন তার কোনো রশিদও তিনি দেখাতে পারেননি।

ম্যাজিস্ট্রেট পলা’শ কুমা’র বসু বলেন, আবুল হোসেন বলতে পারেন পুরাতন পাপী। দীর্ঘদিন যাবৎ তিনি তার নিজস্ব গোডাউনকে অ’বৈধভাবে ব্যবহার করে ভোক্তার অধিকার লঙ্ঘন করে মানহীন ভোগ্য পণ্য ক্রেতাদের কাছে বিক্রি করে প্রতারণা করে আসছিলেন।

আরও পড়ুন:  এসডিজি বাস্তবায়নে জেলা পর্যায় বাজেট থাকা প্রয়োজনঃ পরিকল্পনামন্ত্রী

এজন্য তাকে নিরাপদ খাদ্য আইন ও ভোক্তা সংরক্ষণ আইনের বিভিন্ন ধারায় মোট ১৫ লাখ টাকা জ’রিমানা করা হয়েছে। তার গোডাউন থেকে লেভেল তৈরি ও মোড়কজাত মেশিনসহ বিপুল পরিমাণ বিভিন্ন ব্র্যান্ড কোম্পানির ভোগ্যপণ্যের লেভেল জ’ব্দ করা হয়েছে।

সামি স্টোর থেকে বিপুল পরিমাণ নকল ভেজাল ও মানহীন তেল, চাল, লবন, ঘি ও সেমাই জ’ব্দ করা হয়েছে। ভোক্তাদের প্রতি আমাদের অনুরোধ, বাজারে সঠিক লেভেল গুণগত মান নিশ্চিত হয়ে ভোগ্যপণ্য ক্রয় করুন। পাশাপাশি তিনি বিক্রেতাদের অনুরোধ করে বলেন, সঠিক ও গুণগত মানের জিনিসটি বিক্রি করুন, অন্যথায় আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

অ’ভিযানকালে নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের পরিদর্শক কাম’রুল হাসান ও ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের প্রতিনিধি উপস্থিত ছিলেন।

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

সাম্প্রতিক খবর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে Bangla Magazine সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান নিউজ ম্যাগাজিন অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।

প্রিয় পাঠক, স্বভাবতই আপনি নানান ঘটনার সাক্ষী। শেয়ার করুন আমাদের। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের ইমেলে পাঠিয়ে দিন, [email protected] ঠিকানায়। অথবা যুক্ত হতে পারেন @banglanewsmagazine আমাদের ফেসবুক পেজে। কোন এলাকা, কোন দিন, কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই দেবেন। আপনার পাঠানো খবরটি বিবেচিত হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে।

  • 4
    Shares