প্রচ্ছদ ভিন্ন স্বাদের খবর

করো’না: মা যতক্ষণ বেঁচেছিলেন, হাসপাতা’লের জানলায় বসে রইল ছে’লে

14
করো’না: মা যতক্ষণ বেঁচেছিলেন, হাসপাতা’লের জানলায় বসে রইল ছে’লে
পড়া যাবে: < 1 minute

সন্তানের জন্য মায়ের আত্মত্যাগের কথা কে না জানে? এ জগতে একমাত্র মা-ই সন্তানের জন্য নিজের জীবন বাজি রাখতে পারেন। তবে বড় হতে হতে অনেক সময় আম’রা ভুলে যেতে থাকি মায়ের নিঃস্বার্থ আত্মত্যাগ। কিন্তু বহু বছর আগে বায়েজিদ বোস্তামি ছিলেন যেন একটু অন্যরকম। তাঁর মাতৃভক্তি ছিল অসামান্য।

বর্তামান যুগে যেন এমন মাতৃভক্তির দৃষ্টান্ত পাওয়াই অনেকটা কঠিন কাজ। কিন্তু তবু, কোথাও যেন মা-সন্তানের স’ম্পর্ক আলাদা হয়ে যায় সব কিছু থেকে। ঠিক যেমন করো’নার এই দুঃসময়ে ঘটল। করো’না দুঃসময়ে মাতৃভক্তি দিয়ে সারা বিশ্বের নজর কেড়েছেন এক ফিলি’স্তিনি তরুণ।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে একটি ছবি ভাই’রাল হয়েছে। যেখানে দেখা যাচ্ছে, হাসপাতা’লে কয়েকতলা ওপরে কাচের দেওয়ালের পাশে ভেতরের দিকে তাকিয়ে বসে আছেন এক ব্যক্তি। বয়স বেশি নয়। কিন্তু কেন এমন হাসপাতা’লের জানলার পাশে বসে আছেন তিনি?‌ সেই বিষয়ের সন্ধান করতেই বেরিয়ে এসেছে অ’বাক করা তথ্য।

আরও পড়ুন:  টিকটকে লাইক পেতে সুইমিং পুলে আট মাসের সন্তানকে ছুড়ে দিলেন মা

ওই তরুণের নাম জিহাদ আল সুয়াইতি। বয়স ৩০। তাঁর মা করো’না আ’ক্রান্ত হয়ে এই হাসপাতা’লেই ভর্তি রয়েছেন। সরকারি হাসপাতা’লের ইন্টেনসিভ কেয়ার ইউনিটে ভর্তি মা–কে দেখতে যাওয়ার অনুমতি স্বাভাবিকভাবেই পাননি ছে’লে। তাই তিনি অ’পেক্ষা করেছেন জানলার পাশে বসে।

শেষ সময়ে মায়ের কাছ থেকে সরে যেতে চাননি। জানলা দিয়েই তিনি দেখেছেন, মা মৃ’ত্যুর কোলে ঢলে পড়ছেন। যতদিন মা হাসপাতা’লে ভর্তি ছিলেন, ততদিন রোজ রাতে ওই জানলার ধারে বসে থাকতেন এই তরুণ। মোহাম্মাদ সাফা নামে একজন এই ছবিটি শেয়ার করে লিখেছেন এই বিষয়টি।

আরও পড়ুন:  মারা যাওয়ার আশা প্রায় ছেড়েই দিয়েছেন ১৮৩ বছরের এই বৃদ্ধ! কিন্তু কি খেয়ে তিনি বেঁচে আছেন এতদিন ?

করো’না আ’ক্রান্ত মায়ের আগে থেকেই ছিল লিউকোমিয়া। পাঁচদিন তাঁকে ভর্তি থাকতে হয়েছিল হাসপাতা’লে। সেই তরুণ সন্তান বলেন, আমা’র অসহায় লাগতো। তাই হাসপাতা’লের জানলার ধারে বসে থাকতাম। মাকে দেখতে।

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

সাম্প্রতিক খবর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে Bangla Magazine সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান নিউজ ম্যাগাজিন অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।