প্রচ্ছদ গল্প

তোমার আলতো ছোয়া আমায় শিহরিত করে তুলে

40
পড়া যাবে: 3 মিনিটে

এখন পরন্ত বিকেল, গোদুলির রং চার দিকে আকাশ আর পরিবেশটাকে আরো মধুময়, আারো সৌন্ধর্যে সৌন্ধর্যমন্ডিত করে রেখেছে। কেমন আছো তুমি? নিশ্চই ভালো! ……….  হয়তো ছাদের উপর, খোলা আকাশের নিচে, ইজিচেয়ারে গা হেলিয়ে চায়ে চুমুক দিয়ে চোখবন্ধকরে, সস্তির নিশ্বাস নিচ্ছ। হয়ত মূূহুর্তের মধ্যেই তোমার চোখপরবে টেবেলের উপর রাখা তেমার মোবাইলের উপর।ফোনটা বাজবে, তোমার মিষ্ট হাতের ছোয়ায় তার শিহরিতো হবার প্রশ্নই উঠেনা।কারণ, সেতো ঝড়বস্তু।

তাকে ঝড়ো বস্তু বলাটাও আমার বোকামি,কারণ! খানিক বাদেই সে বলেউঠবে,
হ্যালো, ……………. তুমি কন্ঠে মিস্টতা জড়িয়ে বলবে, তুমি কেমন আছো বাবু, তোমার মনটা ভালো তো, এই শোনোনা, তোমাকে আমার খুব দেখতে ইচ্ছে করছে। তার পরের কথাগুলো নাইবা বললাম।

তুমি কখোনো এই বিষয়ে জানতে পারবেনা, কারণ! তুমি জানতে চাইবেনা।যে আমার সময়টা কিভাবে কাটছে, কতটা বিরহ বিরহ বাসা বেধেছে আমার হৃদয়ে, বিষাধ আমার জীবনটাকে ঘিরে রেখেছে।খোলা আকাশের নিচটাও যেনো, কোনো বদ্ধ ঘর। যেখানে একা পরে আছি আমি। ………. জ্বলছি, পুড়ছি, ধুকেধুকে মরছি তবুও যেনো মধুময়, তোমার প্রেম জরানো আমার অনুভতিগুলো।

জানো? আমিও চাই তোমার মতো করে সুখি হতে।অন্য কাউকে ভালোবেসে তার চোখে চোখ রেখে বলতে, ভালোবাসি, বড্ড বেশি ভালোবাসি।চলনা হাতে হাত রেখে হারিয়ে যাই কোনো দূর অজানায়, যেখানে জোসনার আলো তে আলোকিতো হয়ে রবে চারদিক। একটি কাগজের ফুলদিয়ে হবে আমাদের ভালোবাসার সূচনা।

প্রশ্ন কাগজের ফুল কেনো? ……………. কারণ! প্রকৃতির রংয়ে রঙ্গিন,ফুলটা একসময় নেতিয়ে যায়, তার অনুসরন করে ভালেবাসাও হয়তো নেতিয়ে পরবে একসময়। তার প্রমান আমার পূর্ব ভালোবাসা।
আমি ভবিষ্যতে আার এমনটা চাইনা, চাইনা আর কষ্ট পেতে।

অভিমান করে বলবে, তার মানে কি! তুমি আমাকে বিশ্বাস করো না? যাও তেমার সাথে আার কথাই বলবে না। আমি মান ভাঙ্গাতে, আলতোকরে তোমাকে ছুয়ে দিবো, বলবো রাগকরোনা প্লিজ।ভালোবাসি বলেইতো এতো ভয়, হারানোর ভয়, তোমাকে আমি হারাতে চাইনা, কোনোদিন ওনা, সাথে দু ফোঁটা অশ্রু গরাবে আমার চোখ থেকে। ……..

চোখের জ্বল মুছিয়ে দেওয়া ছলে, তোমার আলতো ছোয়া আমায় শিহরিত করে তুলবে, যেনো আমি ভূলে গেছি সব ভুলে গেছি। সাথে তোমাকেও…………. এসব আমার কল্পনা, কখোনোই পারবোনা তেমাকে ভূলতে। আমার সর্বস্বই তোমার বিচরণ, তেমায় ভেবে চোখের জ্বল ফেলাই আমার আচরণ।

সর্বশেষ আপডেট