প্রচ্ছদ বাংলাদেশ জেলা

প্রেমিকের বাড়িতে একসাথে ২ প্রেমিকা, অতঃপর…

24
পড়া যাবে: 4 মিনিটে

চতুর প্রেমিক। করছিলেন একসাথে দুইটি প্রেম। দুইজন প্রেমিকার সাথেই সমান ঘনিষ্ঠতা। একই সময়ে সমানতালে দুই প্রেমিকার সাথে প্রেম করে হয়তো মনে মনে বলতেন- ‘কি আমাকে দেখে হিংসে হয়?’! তেমন কিছু হয়েছে কিনা জানা না গেলেও দুইজন প্রেমিকা একই সময়ে বাড়িতে এসে উপস্থিত হওয়ায় চতুর প্রেমিকের হয়েছে ত্রাহি অবস্থা। আর এই ঘটনায় এলাকায় শুরু হয়েছে তোলপাড় আর হাস্যরস।

অভিযুক্ত প্রেমিকের নাম সাব্বির হোসেন (২০)। দুই প্রেমিকা বাড়িতে এসে উপস্থিত হওয়ায় বেরসিক পুলিশ আ*টক করে প্রেমিক সাব্বিরকে। চাঞ্চল্যকর এই ঘটনাটি ঘটেছে টাঙ্গাইলের মির্জাপুর উপজেলার গোড়াই ইউনিয়নের বাইমাইল গ্রামে। এক প্রেমিকার মায়ের অভিযোগের প্রেক্ষিতে পুলিশ সাব্বিরকে আ*টক করে।

আ*টককৃত প্রেমিক সাব্বির মির্জাপুরের বাইমাইল গ্রামের কামরুজ্জামান খানের ছেলে। সে মুন্সিগঞ্জ পলিটেকনিক ইনিস্টিটিউটে চতুর্থ সেমিস্টারে অধ্যয়ন করছে।

এক প্রেমিকার মায়ের দায়ের করা অ*পহরণ ও যৌ*ন নি*র্যাতনের মামলায় আ*টকের পর সোমবার প্র*তারক প্রেমিক সাব্বিরকে জে*ল হাজতে পাঠানো হয়। তাছাড়া প্র*তারণার শিকার স্কুলছাত্রী প্রেমিকাকে ডা*ক্তারি পরীক্ষার পর টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

আরও পড়ুন:  তালাকের নোটিশ পেয়ে খুশিতে দুধ দিয়ে গোসল স্বামীর

মির্জাপুর থানা পুলিশ সূত্র জানায়, বাইমাইল গ্রামের কামরুজ্জামানের ছেলে সাব্বির হোসেন মুন্সিগঞ্জ জেলার পলিটেকনিক কলেজের চতুর্থ বর্ষের ছাত্র। পুলিশ ও এলাকার লোকজন অভিযোগ করেন, মোবাইলে প্র*তারনার ফাঁ*দ পেতে সে বিভিন্ন স্কুল কলেজের ছাত্রীদের সঙ্গে বিয়ের প্র*লোভন দেখিয়ে প্রেম ও শা*রীরিক সম্পর্ক করে আসছিল।

একপর্যায়ে প্রেমিক সাব্বিরের প্র*তারণার ফাঁদে পড়ে মির্জাপুর উপজেলার ভাদগ্রাম ইউনিয়নের দাসপাড়া গ্রামের জনৈক ব্যক্তির কন্যা ও টাঙ্গাইলের কুমুদিনী সরকারি মহিলা কলেজের দ্বিতীয় বর্ষের (২০১৯ সালের এইচএসসি পরীক্ষার্থী) ছাত্রী এবং একই ইউনিয়নের ইচাইল গ্রামের জনৈক ব্যক্তির কন্যা ও কুরনী জালাল উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয়ের (২০১৯ সালের এসএসসি পরীক্ষার্থী) ছাত্রী।

গত শনিবার মোবাইলের মাধ্যমে যোগাযোগ করে ইচাইল গ্রামের ওই ছাত্রীকে বিয়ের প্র*লোভনে বাড়িতে নিয়ে আসে। এই ঘটনা দাসপাড়া গ্রামের কলেজ পড়ুয়া ছাত্রী ও সাব্বিরের আরেক প্রেমিকা জানতে পেরে সাব্বিরের বাড়িতে বাড়িতে এসে অবস্থান নেয়। ঘটনা জানাজানি হলে পুরো এলাকায় হৈচৈ পড়ে যায় এবং শতশত লোক ঐ ঘটনা দেখার জন্য বাড়িতে ভিড় করে।

এদিকে ইচাইল গ্রামের স্কুল পড়ুয়া ছাত্রীর মা রোজিনা বেগম প্রেমিক সাব্বিরকে আসামী করে মির্জাপুর থানায় একটি অ*পহরণের মা*মলা দায়ের করেন। মামলার সূত্র ধরে রোববার রাতে মির্জাপুর থানা পুলিশ বাইমাইল গ্রামে অ*ভিযান চালিয়ে প্র*তারক প্রেমিক সাব্বিরকে গ্রে*ফতার এবং দুই প্রেমিকাকে উ*দ্ধার করে মির্জাপুর থানায় নিয়ে আসে।

আরও পড়ুন:  কোল্ড ড্রিংকসের লোভ দেখিয়ে ৪ বছরের শিশুকে ধ*র্ষণ

এরপর মু*চলেকা নিয়ে কলেজ পড়ুয়া ছাত্রীকে তার অভিভাবকদের কাছে বুঝিয়ে দেয়া হয়। অন্যদিকে আরেক প্রেমিকা ও স্কুলছাত্রী শা*রীরিকভাবে অসুস্থ্য হওয়ায় ডা*ক্তারি পরীক্ষার পর সোমবার তাকে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

এ ব্যাপারে মির্জাপুর থানার এসআই ও মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মোঃ মুরাদ হোসেনের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, প্র*তারক সাব্বিরকে গ্রেফতারের পর জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে। কলেজ পড়ুয়া ছাত্রীকে মু*চলেকা নিয়ে তার পরিবারের কাছে বুঝিয়ে দেয়া হয়েছে। স্কুলছাত্রীর মা রোজিনা বেগম যৌ*ন নি*র্যাতন ও অ*পহরণের মামলা করায় তাকে ডা*ক্তারি পরীক্ষার পর টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি রাখা হয়েছে।

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

সর্বশেষ আপডেট