নিম্ন রক্তচাপকে অবহেলা নয়

লেখক: বাংলা ম্যাগাজিন
প্রকাশ: ২ মাস আগে

উচ্চ রক্তচাপ নিয়ে আমরা বেশ উদ্বিগ্ন হই কিন্তু নিম্ন রক্তচাপ হলে কী হতে পারে, এ নিয়ে ভাবি না, জানতেও চাই না। নিম্ন রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণের বিষয়ে পরামর্শ দিয়েছেন— ডা. উম্মে সালমা তালুকদার।  

রক্তের চাপ যদি ৯০/৬০-এর কম হয় তবে মেডিক্যালের ভাষায় একে বলে হাইপোটেনশন বা নিম্ন রক্তচাপ। আমাদের রক্তচাপ থাকা উচিত ১২০/৮০-এর নিচে।নিম্ন রক্তচাপকে অবহেলা করা উচিত নয়।বিশেষ করে বয়স্কদের রক্তচাপ কমলে বিষয়টা সতর্কতার সঙ্গে নিতে হবে। শরীরের ভেতরে বাসা বাঁধা কোনো অসুখের কারণে এমনটা হতে পারে।

লক্ষণ

♦ হার্ট, মস্তিষ্ক বা অন্য কোনো প্রধান অঙ্গে রক্ত চলাচল কমে যাওয়া

♦ বুক ধড়ফড় করা

♦ মাথা ঝিমঝিম করা

♦ অজ্ঞান হয়ে যাওয়া

♦ চোখে অন্ধকার দেখা

♦ বমি বমি ভাব

কারণঃহঠাৎ রক্তচাপ কমে গেলে মস্তিষ্কে ঠিকভাবে অক্সিজেন পৌঁছায় না। ফলে শোয়া থেকে উঠে দাঁড়ালে মাথা ঝিমঝিম বা মাথা হালকা লাগার অনুভূতি হয়। আবার কেউ দীর্ঘ সময় দাঁড়িয়ে থাকলে রক্তচাপ কমে যেতে পারে। এ ছাড়া গর্ভাবস্থায়, হরমোন সমস্যা থাকলে, ওষুধের প্রভাবে, হার্ট অ্যাটাক হলে, অনিয়মিত গতিতে হৃদস্পন্দন হলে, ক্লান্ত থাকলে, পানিশূন্যতা দেখা দিলে ও আহত হলে নিম্ন রক্তচাপ দেখা দিতে পারে।

করণীয়ঃরক্তচাপ কমলে রোগীর ঘাড়ে, কানের লতির পাশে আর চোখে-মুখে ঠাণ্ডা পানির ঝাপটা দিতে হবে। রোগীকে চিনি আর লবণ মেশানো পানি খাওয়াতে হবে। এক গ্লাস পানিতে দুই চামচ চিনি আর এক চামচ লবণ গুলিয়ে নিতে হবে। এই পানীয় রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করবে।

ডায়াবেটিস থাকলে শুধু লবণ দেওয়া পানি খেতে হবে। এরপর রক্তচাপ মেপে দেখতে হবে। খাদ্যতালিকায় দুধ ও ডিম রাখতে হবে। ডিমের কুসুম ও কড়া কফি খাওয়া যেতে পারে। এর পরও সমস্যা না কমলে ডাক্তার দেখাতে হবে।রক্তের চাপ যদি ৯০/৬০-এর কম হয় তবে মেডিক্যালের ভাষায় একে বলে হাইপোটেনশন বা নিম্ন রক্তচাপ।