নষ্ট দুধ বিভিন্ন কাজে লাগানোর উপায়

লেখক: বাংলা ম্যাগাজিন
প্রকাশ: ১ মাস আগে

শরীরে পুষ্টির ঘাটতি পূরণে দুধ অতুলনীয়। ছোট-বড় সবারই নিয়মিত দুধ পান করা প্রয়োজন। দুধে থাকা প্রোটিন, ভিটামিন-এ, ডি, বি১২, ক্যালসিয়াম, পটাশিয়াম ও ফসফরাস হাড়-দাঁত, পেশিকে মজবুত ও শক্ত করতে সহায়ক।অনেক সময় দুধ বেশি দিনের পুরোনো হলে কিংবা আমাদের কোনো ভুলের কারণে জ্বাল দিতে গিয়ে ফেটে যায়।

তখন ওই দুধ আমরা ফেলে দিই। কিন্তু ফেটে যাওয়া বা নষ্ট হয়ে যাওয়া দুধকেও বিভিন্ন কাজে লাগানো সম্ভব। চলুন তবে জেনে নেয়া যাক ফেটে যাওয়া দুধের নানা ব্যবহারঃ 

গাছের পরিচর্যায় ফেটে যাওয়া বা নষ্ট হয়ে যাওয়া দুধ ব্যবহার করতে পারেন। এটি ব্যবহারে গাছে অতিরিক্ত ক্যালসিয়াম সরবরাহ করবে। চারাগাছগুলো তাড়াতাড়ি বেড়ে উঠবে। দুধের সঙ্গে সামান্য পানি মিশিয়ে গাছের গোড়ায় ঢেলে দিন।বেকিংয়ের কাজে প্যানকেক, কেক এবং ওয়াফেল- এ ধরনের ডেজার্টে ফেটে যাওয়া দুধ ব্যবহার করতে পারেন।

ফেটে যাওয়া দুধ বাড়িতে থাকা বিড়ালকে খেতে দিতে পারেন। ওরা কিন্তু মজা নিয়েই খাবে।ফেটে যাওয়া দুধ থেকেই চিজ বানানো হয় তা অনেকেই হয়তো জানেন না। ঘরে রাখা দুধ ফেটে বা ছানা হয়ে তা ফেলে না দিয়ে চিজ বানিয়ে নিন। এই চিজ দিয়ে তরকারি বা নাশতার আইটেম বানিয়ে নিতে পারেন।

সালাদে ক্রিমের পরিবর্তে ফাটা দুধ ব্যবহার করতে পারেন। তবে আনপাস্তুরাইজড মিল্ক সালাদে ব্যবহার করুন। খেয়াল রাখবেন দুধটা যেন পাস্তুরাইজড মিল্ক না হয়।দুধ পান যেমন ত্বকের জন্য উপকারী তেমনি দুধ ত্বকে লাগিয়েও উপকার পাওয়া যায়। ফেটে যাওয়া দুধ ত্বকের জন্য আরও বেশি উপকারী। শুধু ফাটা দুধ মুখে ফেস মাস্কের মতো লাগিয়ে নিন। শুকিয়ে গেলে ধুয়ে ফেলুন। ত্বকের উজ্জ্বলতা বেড়ে যাবে।