খবর সংগ্রহের সময় ইসরায়েলি সেনাদের গুলিতে নারী সাংবাদিক নিহত

লেখক: বাংলা ম্যাগাজিন
প্রকাশ: ২ সপ্তাহ আগে

ইসরাইলি সেনাদের গুলি নিহত হয়েছেন কাতারভিত্তিক গণমাধ্যম আল-জাজিরার নারী সাংবাদিক শিরীন আবু আকলেহ। বুধবার ফিলিস্তিনের পশ্চিম তীরে সংবাদ সংগ্রহ করার সময় তাকে গুলি করা হয় বলে জানিয়েছে গণমাধ্যমটি। এসময় সেখানে ইসরাইলি বাহিনী অভিযান চালাচ্ছিল, সেটি কাভার করতেই ঘটনাস্থলে গিয়েছিলেন শিরীন। 

আল-জাজিরা জানিয়েছে, এখন পর্যন্ত শুধু তারা জানে যে, ফিলিস্তিনের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় তার মৃত্যু নিশ্চিত করেছে। শিরীন আবু আকলেহ জেনিন শহরে ইসরাইলি অভিযানের খবর সংগ্রহ করছিলেন। এ ঘটনার পর তার সঙ্গে কাজ করা অন্য সাংবাদিকরাও আতঙ্কগ্রস্থ হয়ে পড়েছেন। নিহত শিরীনের বিষয়ে কথা বলতে গিয়ে সহকর্মী ইব্রাহীম কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন। তিনি জানান, ২০০০ সাল থেকে তারা একসঙ্গে কাজ করে আসছেন।

ফিলিস্তিনের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, পশ্চিম তীরের জেনিন শহরে এই গুলির ঘটনা ঘটে। তবে কোন পরিস্থিতিতে তাকে গুলি করা হয়েছে তা এখনো স্পষ্ট নয়। বিভিন্ন ভিডিও ফুটেজ দেখে ধারণা করা হচ্ছে শিরীনের মাথায় গুলি লেগেছিল। 

যুক্তরাজ্যে নিযুক্ত ফিলিস্তিনি রাষ্ট্রদূত হুসাম জোমলট এক টুইট বার্তাায় লিখেছেন, ‘আজ সকালে জেনিনে তাদের বর্বরতা কভার করার সময় ইসরায়েলি দখলদার বাহিনী আমাদের প্রিয় সাংবাদিক শিরিন আবু আকলেহকে হত্যা করেছে। শিরিন ছিলেন  বিশিষ্ট ফিলিস্তিনি সাংবাদিক এবং একজন ঘনিষ্ঠ বন্ধু। এখন আমরা যুক্তরাজ্য সরকার এবং আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের ‘উদ্বেগ’ শুনব। ’

শিরিন আবু আকলেহ, আল জাজিরা চ্যানেলের একজন সুপরিচিত ফিলিস্তিনি রিপোর্টার, গুলিবিদ্ধ হওয়ার পরপরই তিনি মারা যান। জেরুজালেম-ভিত্তিক আল-কুদস পত্রিকার জন্য কাজ করা আরেক ফিলিস্তিনি সাংবাদিক ইসরায়েলের গুলিতে আহত হলেও স্থিতিশীল অবস্থায় রয়েছেন বলে জানা গেছে।

ঘটনার ভিডিও ফুটেজে আবু আকলেহকে একটি নীল ফ্ল্যাক জ্যাকেট পরা অবস্থায় দেখা যায় যার গায়ে স্পষ্টভাবে “প্রেস” লেখা আছে।ইসরায়েলিরা দীর্ঘদিন ধরে আল জাজিরার কভারেজের সমালোচনা করে আসছে, তবে কর্তৃপক্ষ সাধারণত এর সাংবাদিকদের স্বাধীনভাবে কাজ করার অনুমতি দেয়।আরেকজন আল জাজিরার প্রতিবেদক, গিভারা বুদেইরি, গত বছর জেরুজালেমে একটি বিক্ষোভের সময় অল্প সময়ের জন্য আটক হয়েছিলেন।