ভিন্ন স্বাদের খবর

পদ্মা সেতু চালু হলে কর্মসংস্থান হারানোর শঙ্কা স্পিডবোট চালকদের

বাংলাবাজার-শিমুলিয়া নৌরুটকে বলা হয় দক্ষিণাঞ্চলের প্রবেশদ্বার। এই নৌরুটে যাত্রী পারাপারে ৮৭টি লঞ্চ ও দেড় শতাধিক স্পিডবোট রয়েছে। দ্রুত যোগাযোগের জন্য স্পিডবোটের চাহিদা শীর্ষে।জনপ্রিয় এই বাহনের বিষয়ে যাত্রীদের অভিযোগও অনেক। ঈদ মৌসুমে ২ থেকে ৩ গুণ বাড়তি ভাড়া আদায় প্রতিবছরের নিয়মিত অভিযোগ।

আলাপকালে বাংলাবাজার ঘাটের স্পিডবোট চালকেরা বলেন, করোনাকালে স্পিডবোট চলাচল বন্ধ থাকায় আর্থিকভাবে ক্ষতির মুখে পড়েছেন চালকেরা। বোট চললে প্রতি ট্রিপের বিপরীতে টাকা পান তাঁরা। নির্দিষ্ট কোনো বেতন নেই তাঁদের। বোট বন্ধ থাকলে উপার্জনও বন্ধ থাকে। সেতু চালু হলে বন্ধ হবে বোট। বেকার হয়ে যাবেন কমপক্ষে দেড় শ স্পিডবোট চালক।

পদ্মা সেতু চালু হওয়ার পর আর এই নৌরুটে যাত্রী পারাপার থাকবে না এটা নিশ্চিত। সংগত কারণে বন্ধ হয়ে যাবে ঘাট। নৌরুটের ৮৭টি লঞ্চ দেশের অন্য কোনো নৌরুটে নেওয়ার চিন্তাভাবনা চলছে। সে নিয়ে কাজও চলছে বলে জানা গেছে।তবে স্পিডবোটগুলোর কী হবে? কর্মসংস্থান হারানোর শঙ্কা নিয়ে দিন কাটাচ্ছেন স্পিডবোট চালকেরা।

বাংলাবাজার ঘাট সূত্রে জানা গেছে, গত বছরের ৩ মে ঘাটে নোঙর করে রাখা একটি বাল্কহেডের সঙ্গে ধাক্কা লেগে স্পিডবোটের ২৬ যাত্রীর মৃত্যুর ঘটনায় ওই দিন থেকেই বন্ধ হয়ে যায় স্পিডবোট চলাচল। দীর্ঘ ১৫৬ দিন পর গত বছরের ৭ অক্টোবর বিকেল থেকে বাংলাবাজার-শিমুলিয়া নৌরুটে চালু হয় স্পিডবোট।

সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে স্পিডবোটের লাইসেন্স এবং চালকদের প্রশিক্ষণ সনদ বাধ্যতামূলক করা হয়। সে সময় ১৪৩ জন চালককে একসঙ্গে সনদ দেওয়া হয়। এরপর ধাপে ধাপে বাড়তে থাকে বোট ও চালকের সংখ্যা। নিয়মিত চলতে থাকে স্পিডবোট।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে বাংলাবাজার স্পিডবোট মালিক সমিতির সভাপতি দেলোয়ার হাওলাদার বলেন, ‘পদ্মা সেতু আমাদের জন্য আশীর্বাদ। আর সেতু চালু হলে নৌরুটে স্পিডবোটের দরকার হবে না। ঘাট বন্ধ হয়ে যাবে।

আমরা বিআইডব্লিউটিএ, জেলা প্রশাসন, উপজেলা প্রশাসন সব জায়গাতেই জানিয়ে রেখেছি বিকল্প নৌরুটের ব্যবস্থার জন্য। তবে এখনো কোনো আশ্বাস পাইনি। অনেকেই বোট বিক্রির চিন্তাভাবনা করছেন। আমরা চেষ্টা করব অন্যত্র কোনো ব্যবস্থা করার।’

স্পিডবোট চালক মো. জসিম বলেন, ‘সেতু চালু হলে স্পিডবোট বন্ধ হয়ে যাবে এটাই স্বাভাবিক। ঘাটে আমরা দেড় শতাধিক চালক রয়েছি। স্পিডবোট অন্য কোথায় চলাচলের অনুমতি দিলে আমাদের জন্য ভালো হবে। তা না হলে আমরা বেকার হয়ে যাব।’

আরেক চালক আবু কালাম বলেন, ‘করোনায় অনেক দিন বন্ধ ছিল। আমরা আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছি। এরপর আমাদের লাইসেন্স করতে হয়েছে। নতুন করে বোট চালানো শুরু হলো। এখন সেতু উদ্বোধন হবে। আমাদের সরকারিভাবে কোনো ব্যবস্থা করে দিতে অনুরোধ জানাচ্ছি সরকারের কাছে। যাতে করে আমরা স্পিডবোট চালকেরা বেকার না থাকি।’

‘পদ্মা সেতু আমাদের জন্য আশীর্বাদ। তবে এই নৌরুটের স্পিডবোট চালকদের জন্য বিকল্প ব্যবস্থা করা উচিত। শিমুলিয়া পাড়ের অনেকেই বোট বিক্রি করে দিচ্ছে। আমরা এখনো আশায় আছি, বিকল্প কিছু একটা হবে। তা না হলে বিপদে পড়ে যাব!’ বলেন স্পিডবোট চালক মো. কাওসার।

বাংলা ম্যাগাজিনে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Flowers in Chaniaগুগল নিউজ-এ বাংলা ম্যাগাজিনের সর্বশেষ খবর পেতে ফলো করুন।ক্লিক করুন এখানে

Related Articles

Back to top button