প্রচ্ছদ অর্থ ও বাণিজ্য

জুলাইয়ে লক্ষ্যমাত্রা থেকে ১৩.৩৯ শতাংশ বেশি রপ্তানি আয়

21
জুলাইয়ে লক্ষ্যমাত্রা থেকে ১৩.৩৯ শতাংশ বেশি রপ্তানি আয়
পড়া যাবে: 2 মিনিটে

নিজস্ব প্রতিবেদক: জুলাই মাসে এসে বাংলাদেশের রপ্তানি বাণিজ্যে ঘুরে দাঁড়িয়েছে। জুলাইয়ে পণ্য রপ্তানি থেকে ৩৯১ কোটি ৯ লাখ ২০ হাজার ডলার আয় হয়েছে। যা লক্ষ্যমাত্রা থেকে ১৩.৩৯ শতাংশ বেশি।

রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর (ইপিবি) প্রকাশিত প্রতিবেদন অনুযায়ী, চলতি অর্থবছরের প্রথম মাস জুলাইয়ের রপ্তানির লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৩৪৪ কোটি ৯০ লাখ ডলার। চলতি অর্থবছরের প্রথম মাস জুলাইয়ে পণ্য রপ্তানি থেকে ৩৯১ কোটি ৯ লাখ ২০ হাজার ডলার আয় করেছে বাংলাদেশ। লক্ষ্যমাত্রা থেকে ১৩.৩৯ শতাংশ রপ্তানি বৃদ্ধি পেয়েছে।

ইপিবির তথ্যে দেখা যায়, ২০২০-২১ অর্থবছরের প্রথম মাস জুলাইয়ে তৈরি পোশাক খাতে রপ্তানি আয়ের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ২৮৪ কোটি ২০ লাখ ৬০ হাজার ডলার। আর হয়েছে ৩২৪ কোটি ৪৯ লাখ ৪০ হাজার ডলার। সে হিসেবে রপ্তানি আয় বেড়েছে ১৪.১৮ শতাংশ।

হোম ট্যাক্সটাইল খাতে রপ্তানি লক্ষ্যক্ষমাত্রা ছিল ৮ কোটি ৭ লাখ ৬০ হাজার ডলার। আয় হয়েছে ৯ কোটি ৪০ লাখ ১০ হাজার ডলার। লক্ষ্যমাত্রা থেকে রপ্তানি বেশ হয়েছে ১৬. ৪১ শতাংশ।

ম্যানুফ্যাকচারিং খাতে রপ্তানি আয় হয়েছে ৩৭৬ কোটি ৭৩ লাখ ৪০ হাজার ডলার। লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৩৩১ কোটি ৭ লাখ ডলার। যা লক্ষ্যমাত্রা থেকে ১৩.৭৯ শতাংশর বেশি আয় হয়েছে। ক্যামিকেল পণ্য রপ্তানি করে আয় হয়েছে ২ কোটি ২৯ লাখ ৮০ হাজার ডলার। লক্ষ্যমাত্রা ছিল ২ কোটি ৬ লাখ ১০ হাজার ডলার। রপ্তানি আয় বেড়েছে ১১.৫ শতাংশ।

আরও পড়ুন:  জুলাই মাসে ২৬০ কোটি ডলারের রেকর্ড রেমিট্যান্স

চামড়া ও চামড়াজাত পণ্য রপ্তানি করে আয় হয়েছে ৮ কোটি ৯৯ লাখ ৪০ হাজার ডলার। লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৭ কোটি ৭৩ লাখ ৯০ হাজার ডলার। সে হিসেবে রপ্তানি আয় বেড়েছে ১৬. ২২ শতাংশ।

কৃষি পণ্য রপ্তানি করে আয় হয়েছে ১০ কোটি ১০ লাখ ৬০ হাজার ডলার। লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৯ কোটি ১০ হাজার ডলার। সে হিসেবে লক্ষ্যমাত্রা থেকে রপ্তানি বেড়েছে ১২.২৮ শতাংশ।

পাট ও পাটজাত পণ্য রপ্তানিতে আয় হয়েছে ১০ কোটি ৩৫ লাখ ১০ হাজার ডলার। লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৯ কোটি ৮১ লাখ ৭০ হাজার। রপ্তানি বেশি হয়েছে ৫.৪৪ শতাংশ।

হিমায়িত মাছ রপ্তানি করে আয় হয়েছে ৪ কোটি ২৫ লাখ ২০ হাজার ডলার। লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৪ কোটি ৮২ লাখ ৯০ হাজার ডলার। সে হিসেবে লক্ষ্যমাত্রা থেকে ১১.৯৫ শতাংশ কম।

ইপিবি সূত্রে জানা গেছে, কোভিড-১৯ মহামারীর ধাক্কায় গত মার্চ মাসে, এপ্রিলে রপ্তানি কমে মাত্র ৫২ কোটি ডলারে নেমে এসেছিল, যা ছিল রেমিটেন্সের চেয়েও কম। বিধিনিষেধ শিথিল করে কলকারখানা চালুর পর মে মাসে রপ্তানি বেড়ে ১৪৬ কোটি ৫৩ লাখ ডলারে দাঁড়ায়।

আরও পড়ুন:  বাণিজ্য বাড়াতে বাংলাদেশ-ভারত ব্যবসায়ীদের সমঝোতা

অর্থবছরের শেষ মাস জুন মাসে পণ্য রপ্তানি থেকে আয় হয়েছিল ২৭৮ কোটি ৪৪ লাখ ডলার। সব মিলিয়ে গোটা ২০১৯-২০ অর্থবছরে বিভিন্ন পণ্য রপ্তানি করে বাংলাদেশ ৩ হাজার ৩৬৭ কোটি ৪০ লাখ ডলার আয় করেছে। এই অঙ্ক আগের অর্থবছরের চেয়ে ১৭ শতাংশ কম। আর লক্ষ্যের চেয়ে কম ২৬ শতাংশ।

গত অর্থবছরে রপ্তানি আয়ের প্রধান খাত তৈরি পোশাক রপ্তানি থেকে আয় হয়েছে ২৭.৯৫ বিলিয়ন ডলার। লক্ষ্য ছিল ৩৮.২০ বিলিয়ন ডলার। ২০১৯-২০ অর্থবছরে নিট পোশাক রপ্তানি থেকে আয় হয়েছে ১৩.৯১ বিলিয়ন ডলার। আগের বছরের চেয়ে আয় কমেছে ১৭.৬৫ শতাংশ। ওভেন পোশাক থেকে আয় হয়েছে ১৪.০৪ বিলিয়ন ডলার। প্রবৃদ্ধি কমেছে ১৮.৫৮ শতাংশ।

উল্লেখ্য, নতুন অর্থবছরে পণ্য রপ্তানি করে ৪১ ও সেবা খাতে ৭ বিলিয়ন ডলার আয়ের প্রত্যাশা করছে সরকার। 

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

সাম্প্রতিক খবর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে Bangla Magazine সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান নিউজ ম্যাগাজিন অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।

  • 5
    Shares