ভিন্ন স্বাদের খবর

চিত্রনায়িকা পরীমনির বিরুদ্ধে হত্যাচেষ্টার অভিযোগে নাসিরের মামলা তদন্তের নির্দেশ

চিত্রনায়িকা পরীমনির বিরুদ্ধে মারধর ও হত্যাচেষ্টার অভিযোগে ব্যবসায়ী নাসির ইউ মাহমুদের করা মামলা তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন ঢাকার সিজেএম আদালতের অতিরিক্ত পাবলিক প্রসিকিউটর আনোয়ারুল কবীর বাবুল।

ঢাকার চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট (সিজেএম) আদালতের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট রাজীব হাসান আজ সোমবার এই আদেশ দেন। আগামী ৬ অক্টোবরের মধ্যে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগকে (সিআইডি) তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

এ ব্যাপারে অতিরিক্ত পাবলিক প্রসিকিউটর আনোয়ারুল কবীর বলেন, চিত্রনায়িকা পরীমনির বিরুদ্ধে ব্যবসায়ী নাসির ইউ মাহমুদের করা হত্যাচেষ্টার অভিযোগের মামলা সিআইডিকে তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।যোগাযোগ করা হলে পরীমনির আইনজীবী নীলাঞ্জনা রিফাত বলেন, ‘এ রকম একটি মামলা হয়েছে বলে শুনেছি। তবে কোনো কাগজপত্র পাইনি।’

পরীমনিসহ তিনজনের নামে মারধর ও হত্যাচেষ্টার অভিযোগ এনে ৬ জুলাই ঢাকার সিজেএম আদালতে মামলা নেওয়ার আবেদন করেন ব্যবসায়ী নাসির ইউ মাহমুদ। আদালত সেদিন নাসির ইউ মাহমুদের জবানবন্দি রেকর্ড করেন। পরে মামলা গ্রহণ বিষয়ে আদেশের জন্য আজ সোমবার দিন ধার্য করেছিলেন। অপর দুজন হলেন ফাতেমা তুজ জান্নাত বনি ও জুনায়েদ বোগদাদী জিমি ওরফে জিম।

গত বছরের ৮ জুন সাভারের বিরুলিয়ায় ঢাকা বোট ক্লাবে ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টার অভিযোগ এনে চিত্রনায়িকা পরীমনি ব্যবসায়ী নাসির ইউ মাহমুদসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে সাভার থানায় মামলা করেন। মামলাটি তদন্ত করে গত বছরের ৬ সেপ্টেম্বর নাসির, শহিদুল ও তুহিনের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র জমা দেয় পুলিশ। ওই মামলায় ঢাকার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-৯ তিন আসামির বিরুদ্ধে গত ১৮ মে অভিযোগ গঠন করেন। মামলাটি সাক্ষ্য গ্রহণ পর্যায়ে রয়েছে।

পরীমনির করা ধর্ষণ চেষ্টা মামলার প্রায় তিন মাস তদন্তের পর ওই মামলায় আদালতে দেওয়া অভিযোগপত্রে সাভার থানা–পুলিশ বলেছিল, বোট ক্লাবে মারধর ও শ্লীলতাহানির শিকার হয়েছিলেন পরীমনি। তাঁকে মারধর ও যৌন নির্যাতনের ঘটনায় অভিযোগপত্রে ব্যবসায়ী নাসির উদ্দিন মাহমুদ ও তাঁর সহযোগী শাহ শহিদুল আলম এবং তুহিন সিদ্দিকী ওরফে অমিরের সম্পৃক্ততা পায় পুলিশ।

পরীমনির মামলার পরই গ্রেপ্তার হন নাসির ও তুহিন। পরে তাঁরা জামিন পান।এদিকে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনের মামলায় চিত্রনায়িকা পরীমনিসহ তিনজনের বিরুদ্ধে বিচার চলছে ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-১০-এ। মামলাটি সাক্ষ্য গ্রহণ পর্যায়ে রয়েছে।

পরবর্তীতে ব্যবসায়ী নাসির ইউ মাহমুদ পরীমনির বিরুদ্ধে মামলা করেন। মামলায় তিনি অভিযোগ করেন, সেদিন পরীমনি ও তাঁর সহযোগীরা সাভারের বোট ক্লাবে ঢুকে ওয়াশরুম ব্যবহার করেন। পরে ক্লাবের ভেতরে বসে অ্যালকোহল পান করেন।

রাত ১টা ১৫ মিনিটের দিকে ক্লাব ত্যাগ করার সময় পরীমনি তাঁকে ডাক দেন। পরে একটি ব্লু লেবেল অ্যালকোহলের বোতল বিনা মূল্যে দেওয়ার জন্য চাপ দেন। এতে রাজি না হওয়ায় পরীমনি তাঁকে গালমন্দ করেন। একপর্যায়ে পরীমনি হত্যাচেষ্টার জন্য একটি গ্লাস ছুড়ে মারেন, যা তাঁর মাথায় ও বুকে লাগে বলে মামলায় অভিযোগ করেন নাসির ইউ মাহামুদ।

অবশ্য পরীমনি মামলায় অভিযোগ করেছিলেন, ৮ জুন রাতে তাঁকে কৌশলে সাভারের বিরুলিয়ায় ঢাকা বোট ক্লাবে ডেকে নিয়ে যান তাঁর পূর্বপরিচিত তুহিন। সেখানে জোর করে তাঁকে মদ পান করানোর চেষ্টা করেন নাসির। একপর্যায়ে তাঁকে ধর্ষণের এবং হত্যার চেষ্টা চালানো হয়।

বাংলা ম্যাগাজিনে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Flowers in Chaniaগুগল নিউজ-এ বাংলা ম্যাগাজিনের সর্বশেষ খবর পেতে ফলো করুন।ক্লিক করুন এখানে

Related Articles

Back to top button