প্রচ্ছদ উপজেলা তরুণীকে ১৪ জন মিলে গণধ*র্ষণ, ঘটনা ধা*মাচা*পার চেষ্টা নারী ইউপি মেম্বারের

তরুণীকে ১৪ জন মিলে গণধ*র্ষণ, ঘটনা ধা*মাচা*পার চেষ্টা নারী ইউপি মেম্বারের

75
পড়া যাবে: 3 মিনিটে
advertisement

মহেশখালী উপজেলার কালারমারছড়া ইউনিয়নের চালিয়াতলী এলাকায় এক চাকরিজীবী তরুণীকে গণধ*র্ষণের ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় পুলিশ অভিযান চালিয়ে নারী ইউপি সদস্যের (মেম্বার) বাড়ি থেকে ধ*র্ষিতাকে উদ্ধার করে। এসময় ওই নারী মেম্বার শামীমাকে আ*টক করা হয়।

advertisement

মহেশখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রভাষ চন্দ্র ধর বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, শুক্রবার বিকাল ৫টার দিকে কালারমারছড়া পুলিশ ফাঁড়ির একদল পুলিশ ধ*র্ষিতাকে উদ্ধারে মাতারবাড়িতে অভিযানে যায়।

তারা নারী ইউপি মেম্বার শামীমার বাড়ি থেকে ধ*র্ষিতা মেয়েটিকে উদ্ধার করতে সক্ষম হয়। একই সাথে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য মেম্বার শামীমাকে আ*টক করে।  ওসি আরো জানান, মেয়েটির জবানবন্দির উপর ভিত্তি করেই মা*মলার এজাহার লেখা হচ্ছে। মা*মলা রুজু করা হয়েছে। ধ*র্ষকদের গ্রে*ফতার করতে অভিযান শুরু হয়েছে।

আরও পড়ুন:  কক্সবাজারে ২ টাকার জন্য ক্রেতাকে খু*ন করলো দোকানদার

উল্লেখ্য, চালিয়াতলী এলাকার মৃত আবুল হাছির পুত্র আমির সালাম, মোস্তাক আহমদের পুত্র এনিয়া এবং নলবিলা দরগাহপাড়ার মোক্তার আহমদের পুত্র আদালত খাঁ ও সিএনজি চালক ওসমান গণিসহ ১৪ জন মিলে গত ১০ জুলাই রাতে পাহাড়ে নিয়ে ওই তরুণীকে ধ*র্ষণ করে।

এই ঘটনা ধামাচাপা দিতে মাতারবাড়ি সড়কের সিএনজি লাইনম্যান রশিদ, চালিয়াতলী এলাকার মেম্বার লিয়াকত আলী ও মাতারবাড়ির নারী মেম্বার শামীমা চেষ্টা চালায় বলে অভিযোগ। তারা ঘটনাটি মীমাংসার চেষ্টা করে প্রায় শেষ পর্যায়ে ছিলো। কিন্তু এলাকাবাসী ঘটনাটি জানার পর তা নিয়ে ক্ষুব্দ হয়ে উঠে। এলাকাবাসীর চাপের মুখে ধ*র্ষণের ঘটনা মিমাংসার মিশন ব্যর্থ হয়ে যায়।

ঘটনা জানার পর পুলিশ ধ*র্ষিতাকে ওই নারী মেম্বারের ঘর থেকে উদ্ধার করে এবং ওই নারী মেম্বারকে থানা হেফাজতে নিয়ে আসে।

আরও পড়ুন:  কক্সবাজারে ২ টাকার জন্য ক্রেতাকে খু*ন করলো দোকানদার

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

advertisement