অধিকার ও মর্যাদাএক্সক্লুসিভনারী অঙ্গনবিশ্ব সংবাদমধ্যপ্রাচ্য

মাহসার রহস্যজনক মৃত্যুতে ইরানে হিজাব পুড়িয়ে, চুল কেটে নারীদের বিক্ষোভ

মাহসা আমিনির রহস্যজনক মৃত্যু ঘিরে ইরানজুড়ে প্রতিবাদের ঝড় বইছে। রয়টার্সের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গতকাল রোববার প্রতিবাদকারী সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফার্সি ভাষার টুইটারে হ্যাশট্যাগ মাহসাআমিনি দিয়ে প্রতিবাদের ঝড় তোলে। যা দেশটিরে টুইটার ট্রেন্ডিংয়ের শীর্ষে ওঠে।

ঠিকমতো হিজাব না পরার অভিযোগে ইরানে ২২ বছর বয়সী মাহসা আমিনি নামে এক তরুণীকে বেশ কয়েকদিন আগে গ্রেপ্তার করে দেশটির নীতি পুলিশ। এরপর গত শুক্রবার পুলিশি হেফাজতে আমিনির মৃত্যু হয়। অভিযোগ, পুলিশের নির্যাতনে আমিনির মৃত্যু হয়েছে। যদি এই অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করেছে দেশটির পুলিশ।

ইরানের এক সাংবাদিক এবং অ্যাক্টিভিস্ট মাসিহ আলিনজাদ টুইটারে এক ভিডিও পোস্ট করেছেন। সেখানে তিনি বলেছেন, হিজাব পুলিশের হাতে মাহসা আমিনিকে হত্যার প্রতিবাদে ইরানের নারীরা তাদের চুল কেটে ও হিজাব পুড়িয়ে প্রতিবাদ জানাচ্ছেন।

তিনি আরও বলেছেন, ৭ বছর থেকে আমরা যদি আমাদের চুল না ঢাকি তাহলে আমরা স্কুলে যেতে পারিনা, চাকরিও পাইনা। আমরা এই লিঙ্গ বর্ণবৈষম্যের শাসনে বিরক্ত।এছাড়া দেশটির সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমের ব্যবহারকারী নারীদের হিজাব খুলে ফেলার ভিডিও শেয়ার করছেন।

এছাড়া দেশটির সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে প্রতিবাদের অনেক ভিডিও ছড়িয়ে পড়েছে। তাতে সরকারবিরোধী স্লোগান দিতে গেছে, যা ভাইরাল হয়েছে।ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে,কিছু নারী বিক্ষোভকারীকে প্রতিবাদ হিসেবে নিজেদের চুল কেটে দিতে দেখা গেছে। অনেকে আবার তাদের হিজাব পুড়িয়ে দিয়ে প্রতিবাদ জানিয়েছেন। আবার কিছু ভিডিওতে দেখা গেছে, বিক্ষোভকারীদের হটাতে ইরানের নিরাপত্তা বাহিনী টিয়ার গ্যাস নিক্ষেপ করেছে।

অন্যদিকে অনলাইন এক ভিডিওতে দেখা গেছে, রোববার ইউনিভার্সিটি অব তেহরানের আশেপাশে শতশত বিক্ষোভকারী জড়ো হয়। তারা নারী, জীবন, স্বাধীন বলে স্লোগান দিতে থাকে। তবে রয়টার্সের পক্ষ থেকে এই ভিডিও’র সত্যতা যাচাই করা সম্ভব হয়নি বলে প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

বাংলা ম্যাগাজিন /এসকে

বাংলা ম্যাগাজিনে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Flowers in Chaniaগুগল নিউজ-এ বাংলা ম্যাগাজিনের সর্বশেষ খবর পেতে ফলো করুন।ক্লিক করুন এখানে

Related Articles

Back to top button